দূরপাল্লার দৌড়ে অপ্রতিরোধ্য সুমি আক্তার

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:৪৫ এএম, ২৭ জানুয়ারি ২০১৯

গত জাকার্তা ও পালেমবাং এশিয়ান গেমসে ৪০০ মিটার দৌড়ে ক্যারিয়ারসেরা টাইমিং (৫৭.১৬ সেকেন্ড) করেছিলেন নারী অ্যাথলেট সুমি আক্তার। ন্যাশনাল চ্যাম্পিয়নশিপে সে সময়টা ধরে রাখতে না পারলেও স্বর্ণটা ঠিকই নিজের করে নিয়েছেন মানিকগঞ্জের এ অ্যাথলেট।

কেবল ৪০০ মিটারেই নয়, দূরপাল্লার দৌড়ে রীতিমতো অপ্রতিরোধ্য সুমী। ৪১ তম ও ৪২ তম জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপ ও ১৪ তম সামার মিটে দূরপাল্লার দৌড় ইভেন্টগুলোয় তারই ছিল একচেটিয়া শ্রেষ্ঠত্ব।

৪০০, ৮০০, ১৫০০ ও ৩০০০ মিটার দৌড়ে স্বর্ণ জিতে শনিবার শেষ হওয়া ৪২ তম জাতীয় অ্যাথলেটিক চ্যাম্পিয়নশিপে ব্যক্তিগতভাবে সবচেয়ে বেশি সাফল্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর এ অ্যাথলেটের। বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক ফেডারেশন তাকে পুরস্কার দিয়েছে সেরা প্রমীলা অ্যাথলেটের।

এ নিয়ে সুমি টানা তিনবার ৪০০, ১৫০০ ও ৩০০০ মিটারে স্বর্ণ জিতলেন। ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে তিনি ৮০০ মিটারে হেরেছিলেন তারই দলের পাপিয়া খাতুনের কাছে। কিন্তু গত জুলাইয়ের সামার মিটের পর এবার জিতলেন দূরপাল্লার চার ইভেন্টেরই স্বর্ণ।

৪০০ মিটারে নিজ দলের সাবিহা আল সোহাকে (৫৯.৭০ সে.) পেছনে ফেলে স্বর্ণ জিতেছেন সুমি (৫৭.৪৬ সে.)। ৮০০ মিটারে ২:২৫.২০ মিনিট সময় নিয়ে তিনি হারিয়েছে নিজ দলের পাপিয়া খাতুনকে (২:২৮.১০ মিনিট)।

সুমি আক্তার ১৫০০ মিটারে শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখেছেন ৫:১১.৯০ মিনিট সময় নিয়ে। এখানেও তার প্রতিদ্ব›িদ্ব ছিলেন তারই সতীর্থ পাপিয়া খাতুন (৫:১৪.১০ মিনিট)।

৩০০০ মিটারে টানা তৃতীয়বারের মতো স্বর্ণ জিততে সুমি আক্তার সময় নিয়েছেন ১১:১২.২০ মিনিট। বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সামছুন্নাহার রৌপ্য জিতেছেন ১১:১৩.৫০ মিনিট সময় নিয়ে।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সাপ্লাই কোরের সৈনিক সুমি আক্তার ২০১৫ সাল থেকে খেলছেন জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপ। প্রতিবারই তিনি দূরপাল্লার দৌড়ে সেরা হয়ে আসছেন। অ্যাথলেটিকসে ১০০ ও ২০০ মিটার থাকে বেশি প্রচারের আলোয়। যে কারণে মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ার সুমি বছরের পর বছর এমন কীর্তি করার পরও থেকে যান প্রচারের বাইরে।

এসএএস/এমএস