টোকিও থেকে সরিয়ে নেয়া হলো অলিম্পিক রিং

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৫০ পিএম, ০৬ আগস্ট ২০২০

করোনাভাইরাসের কারণে এক বছর পিছিয়ে না গেলে এই সময়ে টোকিও অলিম্পিকে বিদায়ের সুর বাজতো। এতদিনে জানা হয়ে যেতো কে হলেন গতি মানব, কে জিতলে সবচেয়ে বেশি স্বর্ণ। সাাঁতারের পুল কে দাপিয়ে বেড়ালেন বেশি কিংবা অলিম্পিক ফুটবলের স্বর্ণ জিতলেন কারা।

কিন্তু প্রাণঘাতি ভাইরাস করোনার কারণে কোনো কিছুই হলো না। এক বছর পিছিয়ে দেয়ার কারণে এখন অলিম্পিক নিয়ে আলোচনাই নেই। এমনকি করোনা পরিস্থিতি বিরাজমান থাকলে আগামী বছরও অলিম্পিক গেমস আয়োজন করা যাবে কি না, গেলেও সেটার পরিধি কি ছোট করে নিয়ে আসতে হবে? - এমন সব জ্বল্পনা-কল্পনা তুঙ্গে।

এরই মধ্যে খবর এলো, অলিম্পিকের শহর টোকিওর ওয়াটারফ্রন্টে রেইনবো ব্রিজের সামনে যে বিশাল (জায়ান্ট) অলিম্পিক রিং বসানো হয়েছিল, সেটাকে আপাতত সরিয়ে নেয়া হয়েছে। তবে, সাময়িক সময়ের জন্য। কারণ অলিম্পিকের প্রতীক এই জায়ান্ট রিং রক্ষণাবেক্ষণ প্রয়োজন। এ কারণেই মূলতঃ টোকিও থেকে এই রিংটি সরিয়ে নেয়া হলো।

পরস্পর আলিঙ্গনাবদ্ধ ৫টি রিংয়ের সমন্নয়ে তৈরি করা জায়ান্ট অলিম্পিক রিংটির ওজন ৬৯ টন। চলতি বছরের শুরুর দিকে টোকিওর ওদাইবা বে এরিয়া থেকে ওয়াটারফ্রান্টে নিয়ে আসা হয় এটিকে। বিশেষ করে যেদিন ফাইনাল কাউন্টডাউন শুরু করা হয়, তখন এই রিংটিও উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। যা টোকিওকে অলিম্পিক সিটিকে হিসেবে পরিচিতি এনে দিচ্ছিল বিশ্বের কাছে।

টোকিও কর্তৃপক্ষের ইচ্ছা ছিল, এই রিংটি থাকবে ৯ আগস্ট পর্যন্ত। একদিন আগেই শেষ হওয়ার কথা ছিল এবারের সামার অলিম্পিক। এরপর টোকিও অলিম্পিক আয়োজকদের ইচ্ছা ছিল একই জায়গায় প্রতিস্থাপন করা হবে প্যারালম্পিকের প্রতীক।

কিন্তু আজিই হঠাৎ টোকিও কর্তৃপক্ষ ১৫ মিটার লম্বা এবং ৩২ মিটার চওড়া (৪৯ ফুট * ১০৪ ফুট) অলিম্পিক রিংটিকে পানি থেকে টেনে তীরে নিয়ে আসে।

টোকিওর স্থানীয় মেট্রোপলিটন কর্তৃপক্ষ বলছে, ‘অলিম্পিকের প্রতীকটিকে পর্যবেক্ষণ এবং আগামী চারমাস রক্ষণাবেক্ষণের জন্য সরিয়ে আনা হয়েছে। রক্ষণাবেক্ষণ শেষ হওয়ার পর কবে এটাকে আবার তার জায়গায় স্থাপন করা হবে, তা জানিয়ে দেয়া হবে।’

এবারের অলিম্পিক গেমস শুরু হওয়ার কথা ছিল ২৪ জুলাই। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে অলিম্পিক আর শুরু করা গেলো না, বরং এক বছর পিছিয়ে দেয়া হলো।

আইএইচএস/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]