মোহামেডান, মেরিনার্সে আটকে প্রিমিয়ার হকির ভাগ্য

রফিকুল ইসলাম
রফিকুল ইসলাম রফিকুল ইসলাম , বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:৩৫ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০

ঘরোয়া হকির সবচেয়ে আকর্ষণীয় প্রিমিয়ার লিগ হয়নি ২০১৮ সালের পর। এক মৌসুম হারিয়ে যাওয়ার পর বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন চলতি বছরের অক্টোবর-নভেম্বরে প্রিমিয়ার লিগ শুরুর উদ্যোগ নিয়েও এগুতে পারছে না। প্রতিনিধি চেয়ে দুইবার ক্লাবগুলোকে চিঠি দিয়েছিল লিগ কমিটি; কিন্তু দুইবারই না খেলার আভাস দিয়েছে সর্বশেষ চ্যাম্পিয়ন মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব ও তৃতীয় হওয়া মেরিনার ইয়াংস ক্লাব।

২০১৮ সালের ৭ জুন সুপার ফাইভের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল মোহামেডান ও মেরিনার্স। ম্যাচটি ৪৪ মিনিট হওয়ার পর পরিত্যক্ত হয়। তখন ১-১ ছিল ম্যাচের স্কোর। পরিত্যক্ত ওই ম্যাচের ৫ মাস পর ফেডারেশন মোহামেডানকে চ্যাম্পিয়ন, আবাহনীকে রানার্সআপ ও মেরিনার্সকে তৃতীয় ঘোষণা করে।

আর মোহামেডান-মেরিনার্স ম্যাচে গন্ডগোল করার অভিযোগে দুই ক্লাবের চার কর্মকর্তাকে বহিষ্কার ও আর্থিক দন্ড দেয় ফেডারেশন। সেই সাসপেনশনের জের ধরে এখনো বেঁকে আছে মোহামেডান ও মেরিনার্স। কর্মকর্তাদের ওপর থেকে শাস্তি প্রত্যাহার না করা হলে লিগ কমিটিতে প্রতিনিধি প্রেরণ ও খেলা সম্ভব নয় বলে জানিয়ে দিয়েছে ক্লাব দুইটি।

খেলার সময় গন্ডগোল করার অভিযোগে মোহামেডানের ম্যানেজার আরিফুল হক প্রিন্স, মেরিনার্সের সাধারণ সম্পাদক হাসান উল্লাহ খান রানাকে ৫ বছর, মোহামেডানের সহকারী ম্যানেজার আসাদুজ্জামান চন্দন ও মেরিনার্সের কর্মকর্তা নজরুল ইসলামকে ৩ বছরের জন্য হকির কর্মকান্ড থেকে নিষিদ্ধ করেছে ফেডারেশন। প্রতিবাদে মোহামেডান তাদের চ্যাম্পিয়ন ট্রফি গ্রহণ করেনি।

বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের সভাপতি ও বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত নির্বাহী কমিটির কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন ঘরোয়া লিগ শুরুর জন্য উদ্যোগ নিতে। আগের লিগকে কেন্দ্র করে যে সমস্যাগুলো আছে সেগুলো সমাধান করতে।

সে লক্ষ্যেই মোহামেডান ও মেরিনার্স ইস্যুতে নির্বাহী কমিটির সভা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ফেডারেশনের সভাপতি। ৩০ সেপ্টেম্বর এ সভা হওয়ার কথা আছে। বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের সহ-সভাপতি আবদুর রশিদ শিকদার ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইউসুফ জানিয়েছেন, ‘৩০ সেপ্টেম্বর সভা হতে পারে। ওই সভায় মোহামেডান ও মেরিনার্সের দেয়া চিঠি নিয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত হবে।’

এই দুই ক্লাব ছাড়াও সভায় সিদ্ধান্ত হবে ঊষা ক্রীড়া চক্রের প্রিমিয়ার লিগে অংশ নেয়ার বিষয়ে। সর্বশেষ প্রিমিয়ার লিগে অংশ নেয়নি হকির জনপ্রিয় ক্লাবটি। যে কারণে তারা পরবর্তী প্রিমিয়ার লিগে খেলতে পারবে কি না তা নিয়ে তৈরি হয়েছে জটিলতা। ‘আমরা প্রিমিয়ার লিগে খেলার আবেদন করে ফেডারেশনে চিঠি দিয়েছি। এখন নির্বাহী কমিটি সিদ্ধান্ত নেবে’- বলেছেন ঊষা ক্রীড়া চক্রের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রশিদ শিকদার।

মোহামেডান, মেরিনার ইয়াংস ক্লাব ও ঊষা ক্রীড়া চক্র অংশ না নিলে প্রিমিয়ার লিগ আয়োজন অসম্ভব হয়ে পড়বে। ফেডারেশনের কিছু কর্মকর্তা অবশ্য ‘যারা খেলবে তাদের নিয়েই লিগ হবে’- এমন মনোভাব প্রকাশ করছেন। তবে ফেডারেশনের সভাপতি চাচ্ছেন সব ক্লাব নিয়ে জমজমাট লিগ আয়োজন করতে। যে কারণে তিনটি ক্লাবের ঝুলে থাকা ইস্যু নিয়ে নির্বাহী কমিটির সভা করতে যাচ্ছে ফেডারেশন।

এমনিতেই এক বছর লিগ না হওয়ায় হকি খেলোয়াড়রা অর্থকষ্টে ভুগছেন। হকিতে নতুন খেলোয়াড় উঠে আসার পথও রুদ্ধ। এ অবস্থায় লিগ শুরুর জন্য ফেডারেশনের নির্বাহী কমিটি থেকে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত আসবে বলেই প্রত্যাশা করছেন সবাই। ২০২০ সালের মধ্যে লিগ শুরু করতে না পারলে হকির ক্যালেন্ডার থেকে হারিয়ে যাবে আরেকটি মৌসুম।

আরআই/আইএইচএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]