রিভার্স সুইপে দুটি ডাবল সেঞ্চুরি করেছি: মুশফিক

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক চট্টগ্রাম থেকে
প্রকাশিত: ০৮:১৪ পিএম, ১৮ মে ২০২২

বাংলাদেশকে ৬৮ রানের লিড এনে দেওয়ার পথে মুশফিকুর রহিম খেলেছেন ৪৪৯ মিনিটে ২৮২ বলে ১০৫ রানের ইনিংস। যা তার টেস্ট ক্যারিয়ারের সবচেয়ে ধীরতম সেঞ্চুরির নজির। এই ইনিংসে মুশফিক মাত্র চারটি বাউন্ডারি মেরেছেন।

বাংলাদেশি ব্যাটারদের মধ্যে সেঞ্চুরির ইনিংসে এতো কম বাউন্ডারি নেই আর কারও। শুধু তাই নয়, প্রায় সাড়ে সাত ঘণ্টার পুরো ইনিংসে একবারের জন্যও রিভার্স সুইপ খেলেননি মুশফিক। তবে সুইপ শটে আদায় করেছেন বাউন্ডারি, আবারও আউট হয়েছেন সুইপ খেলতে গিয়ে।

সাম্প্রতিক সময়ে এই সুইপ-রিভার্স সুইপ নিয়ে মুশফিককে প্রবল সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে। এমনকি ম্যাচ শুরুর আগে বাংলাদেশের হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো এবং মুমিনুল হককেও এ বিষয়ে করা হয় নানান প্রশ্ন। তারা দুজনই পরামর্শ দেন পরিস্থিতি বুঝে রিভার্স সুইপ খেলার।

কিন্তু ম্যাচের প্রথম ইনিংসে একবারও রিভার্স সুইপ খেলার চেষ্টা করেননি মুশফিক। এ বিষয়ে তার ভাবনা হলো, উইকেট ব্যাটিংবান্ধব হওয়ায় ঝুকিপূর্ণ শটের চেষ্টা করেননি। তবে ভবিষ্যতে প্রয়োজন হলে মুশফিক আবার রিভার্স সুইপ করতে দুইবার ভাববেন না।

দিনের খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে মুশফিক বলেছেন, 'এটি (রিভার্স সুইপ খেলা) আসলে নির্ভর করে উইকেটটা কেমন। যেসব উইকেটে আপনি রক্ষণাত্মক খেলে টিকে যেতে পারবেন সেখানে অন্যরকম শট খেলার তো প্রশ্নই আসে না। এ উইকেট অনেক ভালো, ব্যাটিংবান্ধব।'

তিনি আরও যোগ করেন, 'এমন উইকেটে যদি ডিফেন্সটা আপনার শক্তি হয়, তাহলে অন্যান্য শট সহজে খেলা যায়, সোজা ব্যাটে খেলা যায়। আমি মনে করি এটি ঝুঁকিপূর্ণ শট। তবে ভবিষ্যতেও এই শট খেলতে ভয় পাব না।'

এ সময় রিভার্স খেলা নিয়ে আত্মপক্ষ সমর্থনে মুশফিক বলেন, 'আরেকটা জিনিস হলো, আমি কিন্তু রিভার্স সুইপ করে দুইটি ডাবল সেঞ্চুরি করেছি। একটা নয়, দুইটা ডাবল সেঞ্চুরি করেছি। যাদের কাছে ফুটেজ আছে তারা দেখলে বুঝতে পারবেন। দুই ইনিংসেই তিন-চারটা রিভার্স সুইপ শট করেছি।'

এসএএস/আইএইচএস/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]