হুয়াওয়ে কতটা ঝুঁকিতে রয়েছে?

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক
তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:৪৮ এএম, ০৬ জুলাই ২০২০

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রস্তাবিত নিষেধাজ্ঞায় চীনা প্রযুক্তি কোম্পানিগুলো বিশ্ব বাজারে আগের চেয়ে আরো বেশি পিছিয়ে যাচ্ছে বিশ্ব বাজারে।

সিএনএন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, হুয়াওয়ের তাদের ফাইভ-জি সংক্রান্ত প্রতিশ্রুতি কতটা রাখতে পারবে তা নিয়েও সন্দেহ তৈরি হতে শুরু করেছে বিভিন্ন দেশের মোবাইল অপারেটরদের মধ্যে।

এদিকে ভারতের চীনবিরোধী মনোভাব হুয়াওয়ের জন্য পরিস্থিতি আরও জটিল করে তুলছে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও মনে করেন, চীনা কমিউনিস্ট পার্টির নজরদারি সম্পর্কে বিশ্ববাসী সতর্ক হচ্ছে বলেই প্রযুক্তি বাজারের স্রোত হুয়াওয়ের প্রতিকূলে চলে যাচ্ছে। চেক প্রজাতন্ত্র, পোল্যান্ড এবং এস্তোনিয়া তাদের ফাইভ-জি নেটওয়ার্কে শুধুমাত্র বিশ্বস্ত বিক্রেতাদের অনুমোদন দিচ্ছে। এই সিদ্ধান্তের প্রশংসা করেছেন পম্পেও।

ইউরোপের অনেক দেশ ইতোমধ্যেই হুয়াওয়ের সাথে কোন প্রকার চুক্তিতে যাবে না বলে তাদের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছে।

যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স এবং জার্মানির মত বড় অর্থনীতির ইউরোপীয় দেশগুলো কিছুদিনের মধ্যেই হুয়াওয়ের উপর সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা জারি করবে বলে মনে করেন মার্কিন প্রতিরক্ষা গবেষক ক্যারিসা নিয়েটে।

যুক্তরাষ্ট্রে বাজার হারানোর কারণে হুয়াওয়ে বাণিজ্যিকভাবে বড় ধাক্কাই খেয়েছে। এর কারণে তারা যে ফাইভ-জি অবকাঠামো তৈরি করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তা রাখতে পারবে না বলেই মনে করছে ইউরোপীয় দেশ এবং মোবাইল অপারেটর কোম্পানিগুলো।

গত বছর মার্কিন সরকার তাদের প্রযুক্তি সংস্থাগুলোকে বিশেষ অনুমতিপত্র ছাড়া সেনজেনভিত্তিক কোম্পানিগুলোর প্রযুক্তি পণ্য বিক্রি করা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেয়। যুক্তরাষ্ট্রের এই নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও হুয়াওয়ে ইউরোপে বিকল্প উপায়ে তাদের ব্যবসা চালিয়ে যায়। কিন্তু গুগল যখন তাদের সকল অ্যাপ সুবিধা থেকে হুয়াওয়েকে বঞ্চিত করার ঘোষণা দেয় তখন পরিস্থিতি কিছুটা ভিন্ন দিকে মোড় নেয়।

মে মাসে পাশ হওয়া নতুন মার্কিন অনুমোদন নীতিমালা পূর্বের চেয়ে আরো কঠোর হয়েছে। নতুন নীতিমালা অনুযায়ী বিশ্বের যে কোম্পানিগুলো যুক্তরাষ্ট্রের সরঞ্জাম ব্যবহার করে সেমিকন্ডাক্টর তৈরি করে তারা কেউ হুয়াওয়ের কাছে কম্পিউটার চিপসেট বা অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ উপাদান বিক্রি করতে পারবে না।

এমনকি তাইওয়ান ভিত্তিক ফার্ম টিএসএমসিও এই নীতিমালার অন্তর্ভুক্ত। এই চিপসেটগুলো ছাড়া হুয়াওয়ে ফাইভ-জি স্টেশন তৈরি করতে পারবে না বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

এই নীতিমালার পরিবর্তন বা মার্কিন-চীন উত্তেজনা শিথিল হওয়া ছাড়া হুয়াওয়ের এই বাণিজ্যিক বিপর্যয় প্রতিরোধের আর কোন উপায় নেই বললেই চলে।

আরআর/এএ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]