দেশে প্রথমবারের মতো ‘মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প’ শুরু

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:১৬ পিএম, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২১

তরুণদের মাঝে সাড়া জাগানো ‘ইউনিবেটর’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দেশে প্রথমবারের মতো শুরু হয়েছে ‘মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প’ (এমডিসি)। বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের (বিএইচটিপিএ) আওতাধীন শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রকল্প, চুয়েট এবং দ্য ইনস্টিটিউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশের (আইইবি) যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত চারদিনের এই বিশেষ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দেশের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে তৈরি করা হবে ২০ জন ‘স্টার্টআপ মেন্টর’-কে। যাদের মাধ্যমে স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম তৈরির পথে বাংলাদেশ আরও একধাপ এগিয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে তৈরি করা বিভিন্ন অ্যাসাইনমেন্ট, প্রজেক্ট ও থিসিস পেপার থেকে সফল স্টার্টআপ তৈরির এই প্রতিযোগিতায় এখন পর্যন্ত রেজিস্ট্রেশন করেছেন ৫ হাজারের বেশি তরুণ। ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এই রেজিস্ট্রেশন চলবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

রেজিস্ট্রেশনের জন্য এই লিংকে ক্লিক করতে হবে।এ আয়োজনে নিজেদের থিসিস, প্রজেক্ট বা অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে অংশগ্রহণ করতে পারবেন দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ের যেকোনো পর্যায়ের শিক্ষার্থী। দুর্দান্ত সব ইনোভেটিভ আইডিয়াগুলোকে সঠিক দিকনির্দেশনার মাধ্যমে ব্যবসায় পরিণত করার জন্যই এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন আয়োজকেরা।

‘ইউনিবেটর’-এ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের থিসিস বা প্রজেক্ট পেপার থেকে বাছাই করে শীর্ষ ১০টি উদ্ভাবনী আইডিয়াকে পণ্য বা সেবায় রূপ দেয়ার জন্য মাসব্যাপী ইনকিউবেশন শেষে এবং ১০টি আন্তর্জাতিক মানের কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করা হবে।

এই প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে দেশে প্রথমবারের মতো আয়োজন করা হচ্ছে মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প।

প্রথম দিন বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গুগলের নেক্সট বিলিয়ন ইউজারের (এনবিইউ) হেড অব অপারেশন বিকি রাসেল। উদ্ভাবন ও বাণিজ্যিকীকরণ বিষয়ে মেন্টরিং প্রদান করেন তিনি।

এই আয়োজনে অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত থাকবেন ফেসবুক, বিভিন্ন ভেঞ্চর ক্যাপিটাল কোম্পানি, শিল্প প্রতিষ্ঠান সমূহ এবং সরকারের নীতি-নির্ধারণী ব্যক্তি ও প্রতিনিধিরা।

উল্লেখ্য, প্রতি বছর স্নাতক শেষে প্রায় এক মিলিয়ন (১০ লাখ) শিক্ষার্থী চাকরির বাজারে আসেন। নিয়ম অনুযায়ী তাদের প্রত্যেককে কমপক্ষে একটি থিসিস বা অনুরূপ একাডেমিক প্রজেক্ট বাধ্যতামূলকভাবে জমা দিয়ে স্নাতক শেষ করতে হয়, তবে প্রায় সব ক্ষেত্রেই এই প্রজেক্ট বা কনসেপ্ট বা আইডিয়াগুলো একটি রিপোর্টেই সীমাবদ্ধ থেকে যায়। ফলে শিক্ষার্থীরা নতুন কনসেপ্ট বা উদ্ভাবনী আইডিয়া নিয়ে কাজ করার চেয়ে আগের বছরগুলোতে ভালো নম্বর পাওয়া বিষয়গুলো বেছে নিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।

শিক্ষার্থীদের এই একাডেমিক প্রোজেক্ট, কনসেপ্ট বা আইডিয়াগুলোকে বাস্তব জীবনের পণ্য বা সেবায় রূপান্তর করে তাদের নিজস্ব বিজনেস ভেঞ্চার গড়ে তুলতে উৎসাহিত করার উদ্যোগ হিসেবেই ‘ইউনিবেটর’ প্রোগ্রামের আয়োজন।

এইচএস/এসএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]