অত্যাধুনিক মোশন গ্রাফিক্স অ্যানিমেশন ল্যাব স্থাপন করা হবে: পলক

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:২২ পিএম, ২৭ জুন ২০২২
ফাইল ছবি

সনদমুখী নয়, দক্ষতা নির্ভর শিক্ষাকে এগিয়ে নিতে অত্যাধুনিক মোশন গ্রাফিক্স অ্যানিমেশন ল্যাব স্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি বলেন, ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলাতে একটি এবং আইসিটি টাওয়ারে আরেকটি মোশন গ্রাফিক্স অ্যানিমেশন ল্যাব স্থাপন করা হবে। যেখানে সবার অ্যাকসেস থাকবে। ওই ল্যাবে বসে যে কেউ তার স্বপ্নের গেম তৈরি করতে পারবেন।

সোমবার (২৭ জুন) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত ‘মোবাইল গেম ও অ্যাপ্লিকেশন’ প্রকল্পের দক্ষতা উন্নয়নের সার্টিফিকেট প্রদান ও সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা জানান তিনি।

পলক বলেন, খনিজসম্পদ নয়, মেধাবী প্রজন্ম, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ আর উচ্চগতির সুলভ মূল্যের ইন্টারনেট দিয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে কাজ করছে সরকার। এজন্য সৃজনশীলতার সঙ্গে প্রযুক্তির সম্মিলন ঘটিয়ে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলতে তরুণদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করছে আইসিটি বিভাগ।

তিনি বলেন, বিশ্বমানের গেম তৈরি করে বাংলাদেশের তরুণরা যেন গেমিং বিশ্বে নেতৃত্ব দিতে পারে সে জন্য আইসিটি বিভাগ থেকে সবধরনের সহায়তা করা হবে।

গেমিং ইন্ডাস্ট্রি এখন বলিউড ইন্ড্রাস্ট্রি থেকেও বড় হয়ে গেছে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে জনপ্রতি গড় আয় ১২ হাজার ডলারে উন্নীত করতে বাণিজ্য বহুমুখীকরণের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শিল্প হচ্ছে আইসিটি শিল্প। তাই ২০২৫ সালের মধ্যে আইসিটিখাত থেকে ৫ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয় ও ৩০ লাখ তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে আমরা দক্ষতা উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের পাশাপাশি গেমিং ইন্ডাস্ট্রিতে মনোযোগ দিয়েছি। এরই অংশ হিসেবে মোবাইল গেমস অ্যান্ড অ্যাপ ডেভেলপারদের বিশ্বমানের গেম তৈরির সুযোগ করে দিতে ল্যাবগুলো তৈরি করা হচ্ছে। আইসিটি বিভাগের অধীনে ‘খোকা’ নামে ১০ পর্বের অ্যানিমেশন ফিল্ম তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। ‘মুক্তিযুদ্ধ’ নামে পাবজি ঘরনার একটি গেম তৈরির পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ৫০ মিনিটে বাংলাদেশের ৫০ বছরের ইতিহাস নিয়ে একটি অ্যানিমেশন ফিল্ম তৈরি করা হবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ৪ শতাধিক মোবাইল অ্যাপস অ্যান্ড গেম ডেভেলাপারদের মধ্য থেকে ৭০ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে বলে জানানো হয়। এদের মধ্য থেকে অনুষ্ঠানে পাঁচজনের হাতে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরির নিয়োগপত্র তুলে দেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী। সনদপ্রাপ্তদের মধ্যে সারাদেশে বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ে ৮ হাজার ছেলে এবং ২ হাজার মেয়েকে অ্যাপ ও ডেভেলপমেন্টের ওপর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

আইসিটি বিভাগের মোবাইল অ্যাপস অ্যান্ড গেমস প্রকল্প প্রধান আনোয়ারুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ইডেন কলেজের শিক্ষক আতিকুজ্জামান, জেনেক্স ইনফোসিস পরিচালক আয়ূবুর রহমান, প্রিন্স মজুমদার, সার্চ সল্যুশনের নির্বাহী পরিচালক আবু তালিব, মার্সের নিবাস চক্রবর্তী ও হ্যালো গ্রুপ সিইও ফয়াসল আহমেদ বক্তব্য দেন।

এইচএস/এমএএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]