বিশ্বের দীর্ঘতম ঝুলন্ত সেতু পার হওয়া যাবে পায়ে হেঁটেই

ভ্রমণ ডেস্ক
ভ্রমণ ডেস্ক ভ্রমণ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০২:২৪ পিএম, ০৭ মে ২০২১ | আপডেট: ০৩:১২ পিএম, ০৭ মে ২০২১

চালু হলো বিশ্বের সবেচেয়ে দীর্ঘ পায়ে হাঁটা ঝুলন্ত সেতু। প্রায় এক মাইল দীর্ঘ এই ঝুলন্ত সেতুর অবস্থান পর্তুগালের আউরকা শহরে। সেখানকার পেইভা নদীর ৫৭০ ফুট উপরে ঝুলে আছে দীর্ঘতম এই সেতু।

এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘৫১৬ আরোকা’। এই সেতু তৈরিতে খরচ হয়েছে ২.৮ মিলিয়ন ডলার। প্রায় দুই বছর সময় নিয়ে তৈরি করা হয়েছে বিশ্বের চমকপ্রদ এই সেতুটি।

tour

এরই মধ্যে অনেকেই সুযোগ পেলে ঢুঁ মেরে আসছেন দীর্ঘতম এই সেতুতে। দুই পাশে বিশালাকার পাহাড়। তার মাঝে গভীর এক নদী। আর এই নদীর উপরেই ঝুলন্ত অবস্থায় আছে সেতুটি।

স্থানীয় কর্মকর্তারা আশা করছেন, বিশ্বের দীর্ঘতম পেডেস্ট্রাইন এই সেতুটি দেখতে উৎসুক পর্যটকরা ভিড় করবেন সেখানে। ‘৫১৬ আরোকা’ বিশ্বের দীর্ঘতম পথচারী সাসপেনশন ব্রিজ।

tour

সুইজারল্যান্ডের চার্লস কৌনিন সানপেশন ব্রিজের (১,৬২১) চেয়েও ৭০ ফুট লম্বা এটি। অতীতের সব পেডেস্ট্রাইন সেতুর রেকর্ড ভেঙে বর্তমানে বিশ্বের দীর্ঘতম পথচারী সেতু হিসেবে পরিচিত হয়েছে ‘৫১৬ আরোকা’।

আন্ডিস পর্বতমালার উপত্যকায় অবস্থিত ইনকা ব্রিজ দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে তৈরি করা হয়েছে ‘৫১৬ আরোকা’। ইনকা সভ্যতার সময়কালে বিশ্বে কমপক্ষে ছোট-বড় ২০০টি সেতু তৈরি করা হয়েছিল।

tour

ইনকারা দক্ষভাবে সেতু তৈরি করতে পারত। এমনকি বোনা ঘাসের দড়ি দিয়েও তারা টেকসই সেতু তৈরি করেছিল। যা এখনও টিকে আছে। পর্তুগালের নতুন এই সেতুটির বেশিরভাগ অংশই ধাতু দিয়ে তৈরি।

নদীর দুই তীরে বিশাল ভি-আকারের স্তম্ভ আছে। এই স্তম্ভের সঙ্গেই সংযুক্ত আছে স্টিল ও জাল। জানা গেছে, এই সেতুর নকশা অনেকটা তিব্বতের ফুটব্রিজগুলোর মতো।

tour

সেতুর দুইপাশে উঁচু করে রেলিং দেওয়া আছে। আবার উপরেও তার দিয়ে ঘেরাও করা। এই সেতু দিয়ে হাঁটার সময় বাইরে পড়ে যাওয়ার কোনো সম্ভাবনাই নেই।

এমনকি যাদের উঁচুতে ভয় আছে; তারাও সেতুর রেলিং ধরে ধীর পায়ে হেঁটে পার হয়ে যেতে পারবেন নির্দ্বিধায়! পর্যটকরা সেখানকার প্রাকৃতিক পরিবেশও উপভোগ করতে পারবেন।

সূত্র: রয়টার্স

জেএমএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]