ঈদের সময় ভ্রমণে শিশুকে রাখুন সাবধানে

সালাহ উদ্দিন মাহমুদ
সালাহ উদ্দিন মাহমুদ সালাহ উদ্দিন মাহমুদ , লেখক ও সাংবাদিক
প্রকাশিত: ০১:২৬ পিএম, ৩০ জুলাই ২০২০

কারোনাভাইরাস ও বন্যার আতঙ্কের মধ্যেও অনেকেই গ্রামের বাড়িতে ঈদুল আজহা পালন করবেন। ৩১ জুলাই থেকে শুরু হচ্ছে ঈদুল আজহার ছুটি। তাই অনেকেই ইতোমধ্যে গ্রামের বাড়ি চলে গেছেন। আবার অনেকে যাচ্ছেন বা যাবেন। তাদের প্রত্যেককেই সঙ্গে থাকা শিশুর প্রতি নজর দিতে হবে। ভাইরাস কিংবা বন্যার পানি থেকে নিরাপদ রাখতে শিশুর প্রতি আলাদাভাবে খেয়াল রাখতে হবে।

যদিও ঈদের আনন্দ সবাই গ্রামের আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে ভাগাভাগি করতে চান। কিন্তু তাতে বাধ সেধেছে করোনা ও বন্যা। তবুও ঝুঁকিপূর্ণ সময়েই স্বজনের টানে গ্রামে যাচ্ছেন শহরের বেশিরভাগ মানুষ। এছাড়া করোনা দুর্যোগে কর্মহীন হয়ে অনেকেই গ্রামের বাড়িতে অবস্থান করছেন। তাদের শিশুদের নিরাপত্তার জন্য রইল কিছু পরামর্শ-

১. যাত্রাপথে শিশুকে নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে নির্দেশ দিন।
২. কোলের শিশুকে নিরাপদ রাখতে বাবা-মাকে বেশি সতর্ক থাকতে হবে।
৩. বাস-লঞ্চ-ট্রেনে শিশুকে কোনো কিছু ধরতে দেবেন না।
৪. প্রয়োজনে কিছুক্ষণ পর পর শিশুর হাত স্যানিজাইজ করতে পারেন।
৫. ভ্রমণকালে শিশুকে মাস্ক পরতে উৎসাহিত করবেন।
৬. গ্রামের বাড়িতে গিয়েও সবার কোলে তুলে দেবেন না।
৭. কোলে নেওয়ার আগে ব্যক্তির দুই হাত স্যানিজাইজ করবেন।
৮. বাড়িতে বসেও শিশুকে সুরক্ষাসামগ্রী ব্যবহার করতে উদ্বুদ্ধ করুন।
৯. আশেপাশের বন্যার পানি থেকে শিশুকে নিরাপদ দূরত্বে রাখবেন।
১০. পানির কাছে একা একা খেলতে পাঠাবেন না।
১১. পুকুর-খাল-নদী-বিল থেকে শিশুকে নিরাপদ দূরত্বে রাখবেন।
১২. বয়স্ক লোকজন ছাড়া শিশুকে নৌকা ভ্রমণ করতে পাঠাবেন না।
১৩. অতিরিক্ত লোক নিয়ে বিলে, খালে, নদীতে নৌকা ভ্রমণ করবেন না।
১৪. সর্বোপরি নিজেদের সঙ্গে প্রাথমিক চিকিৎসাসামগ্রী রাখবেন।
১৫. করোনার উপসর্গ দেখা গেলে দ্রুত চিকিৎসকের পারমর্শ নিন।

এসইউ/এএ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]