সর্বাধুনিক পর্যটন সুবিধা থাকছে সাবরাং ট্যুরিজম পার্ক

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১:১৫ এএম, ২৫ অক্টোবর ২০২০

কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলার সাবরাং দ্বীপের নয়নাভিরাম পরিবেশে গড়ে উঠছে বাংলাদেশের প্রথম পর্যটননির্ভর অর্থনৈতিক অঞ্চল সাবরাং ট্যুরিজম পার্ক। এটি হবে এশিয়ার মধ্যে সর্বাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংবলিত পর্যটন কেন্দ্র, যা মূলত বিদেশি পর্যটকদের আকৃষ্ট করতেই নির্মাণ করা হচ্ছে।

এ উদ্যোগ বাস্তবায়নে রোববার (২৫ অক্টোবর) রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁ হোটেলে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) এবং সিঙ্গাপুরভিত্তিক ইন্টার-এশিয়া গ্রুপ প্রাইভেট লিমিটেডের মধ্যে ভূমি ইজারা চুক্তি সাক্ষরিত হয়।

ইন্টার-এশিয়া গ্রুপ প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক রিক হক সিকদার এবং বেজার নির্বাহী সদস্য (বিনিয়োগ প্রচার) ও বাংলাদেশ সরকারের অতিরিক্ত সচিব মো. আবদুল মান্নান নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তি সাক্ষর করেন।

চুক্তি স্বাক্ষরের পর ইন্টার-এশিয়া গ্রুপ প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক রিক হক সিকদার বলেন, আমরা সাবরং ট্যুরিজম পার্ককে সত্যিকারার্থে বিশ্বমানের পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলব। এ জন্য আমরা সিঙ্গাপুর, ফিলিপাইনের বিশ্বসেরা প্রতিষ্ঠানকে এ উদ্যোগের সঙ্গে যুক্ত করেছি।

এখানকার প্রকৃতি ও পরিবেশ বিষয়ে তিনি বলেন, এখানকার জীববৈচিত্র্য, দেশের কৃষ্টি, সংস্কৃতি ও পরম্পরাকে রক্ষার পাশাপাশি পর্যটনবান্ধব অঞ্চল গড়ে তোলা এবং কক্সবাজার জেলার আওতাধীন বিভিন্ন পর্যটন এলাকাগুলোর মধ্যে সেতুবন্ধ রচনা করা আমাদের এই উদ্যোগের অন্যতম লক্ষ্য।

এ বছর ১৯ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) আওতায় মহেশখালীতে সোনাদিয়া ইকো-ট্যুরিজম পার্ক এবং টেকনাফ উপজেলায় নাফ ট্যুরিজম পার্ক (এনএএফ) এবং সাবরং ট্যুরিজম পার্কের মাস্টার প্ল্যান উদ্বোধন করেন।

সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বের (পিপিপি) ভিত্তিতে সাবরাং ট্যুরিজম পার্ক গড়ে তোলা হবে। এই পর্যটনকেন্দ্রে কী কী সুযোগ সুবিধা থাকবে সে প্রসঙ্গে বেজা চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী বলেন, বিভিন্ন ক্যাটাগরির রিসোর্ট ও হোটেলের পাশাপাশি গলফ কোর্স, শপিং সেন্টার, ঐতিহ্য ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর, অ্যামফিথিয়েটার, কনভেনশন সেন্টার, আ্যমিউজমেন্ট পার্ক, হাসপাতাল, ফায়ার স্টেশন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কেন্দ্র থাকবে। এছাড়া পয়ঃবর্জ্য পরিশোধন প্ল্যান্ট, কঠিন বর্জ্য ও ই-বর্জ্য পরিশোধন প্ল্যান্ট, পাওয়ার প্ল্যান্ট, বৈদ্যুতিক সাব-স্টেশন, পানি পরিশোধন ও সংরক্ষণাগার, সোলার প্যানেল এবং বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট হবে।

তিনি আরও বলেন, যোগাযোগের জন্য বাস ডিপো, ট্রান্সপোর্টেশন হাব, হেলিপ্যাড ও জেটি স্টেশন করা হবে। রাস্তা, হাঁটার পথ ও বাইসাইকেল লেন রাখা হবে। এছাড়া প্রধান আকর্ষণ সমুদ্রসৈকত, ঝাউবন, লেক ও গ্রিন পার্ক ইত্যাদি অনেক কিছুই করা হবে এখানে।

বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের পাশাপাশি হাজার হাজার তরুণের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করবে সাবরাং ট্যুরিজম পার্ক।

ভূমি চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট অথরিটির নির্বাহী চেয়ারম্যান মো. সিরাজুল ইসলাম, ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী, বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের সচিব জিয়াউল হাসান এবং বিজিমইএ-এর সভাপতি ড. রুবানা হক।

এমএইচএম/এফআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]