শহরের নারীদের দারিদ্র্য দূর করতে সরকার কাজ করছে : প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:১৫ পিএম, ১২ জানুয়ারি ২০২০

দক্ষ ও প্রশিক্ষিত নারীরা ২০৩০ সালের এসডিজি অর্জন ও ২০৪১ সালের উন্নত বাংলাদেশ নির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে জানিয়ে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বেগম ফজিলাতুন নেছা বলেন, নগরভিত্তিক প্রান্তিক নারীদের উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে সরকার শহরের নারীদের দারিদ্র্য দূর করতে কাজ করছে। রোববার রাজধানীর বেইলি রোডে জাতীয় মহিলা সংস্থার অডিটোরিয়ামে নগরভিত্তিক প্রান্তিক মহিলা উন্নয়ন প্রকল্পের প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘সুবিধাবঞ্চিত নারীরা শুধু গ্রামেই নয়। শহরে অনেক নারী আছে যারা এরকম প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সফল উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে উঠতে পারে। নারীরা অর্থনৈতিকভাবে স্বচ্ছল ও স্বাবলম্বী না হলে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা নারী-পুরুষের অর্থনৈতিক, সামাজিক ও পারিবারিক বৈষম্যের অবসান হবে না।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সচিব কাজী রওশন আক্তার বলেন, ‘নারী-পুরুষের সমতা আনতে হলে নারীদের অর্থনৈতিকভাবে পুরুষের সমকক্ষ হতে হবে। এজন্য নারীদের আয়বর্ধক কাজে নিয়োজিত হয়ে অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতা আনতে হবে।’

প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেছা আলোচনা পর্ব শেষে প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করা নারীদের মধ্যে সনদ বিতরণ করেন।

fazilatunnesa

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়, নগরভিত্তিক প্রান্তিক মহিলা উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে ঢাকা মহানগরের ১০টি কেন্দ্রসহ ৬৩টি জেলা ও ২টি উপজেলার ৪৫ হাজার প্রান্তিক নারীকে ১০টি বিভিন্ন ট্রেডে দক্ষতা উন্নয়নমূলক প্রশিক্ষণ দেয়ার মাধ্যমে উৎপাদনমুখী, কর্মক্ষম ও আত্মনির্ভরশীল হিসেবে গড়ে তোলা হবে। ২০১৬ সালে শুরু হওয়া চার বছর মেয়াদের এ প্রকল্পের মাধ্যমে প্রায় ৩৩ হাজার শহরের দরিদ্র, দুঃস্থ ও বিত্তহীন নারীদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। একই প্রকল্পের অধীনে ঢাকায় কর্ণফুলী গার্ডেন সিটিতে ‘সোনার তরী’ নামক কারুশিল্প বিক্রয় ও প্রদর্শনী কেন্দ্র চালু আছে।

জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান অধ্যাপক মমতাজ বেগমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত জাতীয় মহিলা সংস্থার নির্বাহী পরিচালক কাজল ইসলাম ও অতিরিক্ত সচিব ফরিদা পারভীন। স্বাগত বক্তব্য দেন প্রকল্প পরিচালক নুরুন নাহার হেনা।

আরএমএম/এনএফ/জেআইএম