ভ্রমণ

ঢাকার কোন জাদুঘর কখন খোলা থাকে

রাজধানী ঢাকা শহরে বেশকিছু জাদুঘর রয়েছে, যা অতীতের ইতিহাস, ঐতিহ্য, স্মৃতি বহন করে আছে। এসব ইতিহাস-ঐতিহ্য জানার আগ্রহে শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধ পর্যন্ত সব শ্রেণির মানুষ জাদুঘর পরিদর্শন করে। পরিদর্শনের আগে এর সময়সূচি জেনে নেওয়া জরুরি। আসুন জেনে নেই জাদুঘরে প্রবেশের সময়সূচি-

জাতীয় জাদুঘর: ঢাকা শহরের শাহবাগে অবস্থিত জাদুঘরটি আমাদের জাতীয় ও প্রধান জাদুঘর। এটি স্থাপন করা হয়েছে ১৯১৩ সালে। চারতলা জাদুঘরটিতে মোট গ্যালারি ৪৩টি। বৃহস্পতিবার বাদে সপ্তাহের অন্যসব দিন এ সংগ্রহশালা সাধারণ মানুষের জন্য উন্মুক্ত থাকে। সাপ্তাহিক ছুটি ও জাতীয় দিবসে এখানে বেশি ভিড় হয়।

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর: মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে জানাতে ঢাকার সেগুনবাগিচায় ১৯৯৬ সালের ২২ মার্চ প্রতিষ্ঠিত হয় মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর। মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, দলিলপত্র, ছবি ও অস্ত্র দিয়ে সাজানো হয়েছে জাদুঘরটি। এখানে আছে মোট ৬টি গ্যালারি। আটজন ট্রাস্ট্রির উদ্যোগে তিনতলা বিশিষ্ট জাদুঘরটি যাত্রা শুরু করে। গ্রীষ্মকালে সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকে। শীতকালে বিকেল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকে। তবে রোববার বন্ধ থাকে।

বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর: ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কের বাসাটিতে ১৯৯৭ সালে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি রক্ষায় গড়ে তোলা হয় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর। এ বাসায়ই বঙ্গবন্ধু থাকতেন। সেখানে আছে তার ব্যক্তিগত ব্যবহার্য জিনিস আর ছবি। ১৯৭৫ সালে সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিল এ বাসায়ই। তার চিহ্ন বয়ে বেড়াচ্ছে বাসাটি। এর প্রত্যেকটি ঘরেই দেখা যায় সেই কালো রাতের চিহ্ন। বুধবার ছাড়া সপ্তাহের বাকি ৬ দিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকে। সাধারণত শুক্র ও শনিবার ভিড় বেশি হয়।

> আরও পড়ুন- সুলতানি ও মুঘল আমলের কুতুব শাহী মসজিদ

ভাষা আন্দোলন জাদুঘর: বাংলা একাডেমির বর্ধমান হাউসের দ্বিতীয় তলায় ২০১০ সালে এ জাদুঘর গড়ে তোলা হয়। বর্ধমান হাউসের দ্বিতীয় তলার চারটি কক্ষের পুরোটাই ভাষা আন্দোলনের নানা স্মৃতি ও সামগ্রী সাজিয়ে রাখা আছে। ছুটির দিন ছাড়া প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকে। ভাষার মাসে বেলা ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকে। জাদুঘরে প্রবেশের জন্য কোন ফি দিতে হয় না।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর: ১৯৬৬ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার জাদুঘরটি প্রতিষ্ঠা করেছিল। এটি তখন ছিল শাহবাগে। ১৯৮১ সালে আগারগাঁওয়ে নিজ জায়গায় নিজ ভবনে থিতু হয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর। জাদুঘরটিতে এখন গ্যালারি আছে মোট ৫টি। শনি থেকে বুধবার সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকে। প্রতি বৃহস্পতি ও শুক্রবার এবং সরকারি ছুটির দিনগুলোতে বন্ধ থাকে।

টাকা জাদুঘর: বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্যোগে ২০১৩ সালের ৫ অক্টোবর প্রতিষ্ঠিত হয় টাকা জাদুঘর। মিরপুরে বাংলাদেশ ব্যাংক ট্রেনিং একাডেমির দ্বিতীয় তলায় এটি স্থাপিত হয়। এখানে বিভিন্ন দেশের প্রায় ৩ হাজার পুরাতন মুদ্রা সংগ্রহ করা আছে। টাকা জাদুঘরে দুটি গ্যালারি রয়েছে। বেলা ১১টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকে। শুক্রবার বিকেল ৪টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত খোলা থাকে। সাপ্তাহিক বন্ধ বৃহস্পতিবার। এর কোন প্রবেশ মূল্য নেই।

সামরিক জাদুঘর: ১৯৮৭ সালে মিরপুর সেনানিবাসের প্রবেশদ্বারে প্রথম সামরিক জাদুঘরটি প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৯৯ সালে জাদুঘরটি স্থায়ীভাবে ঢাকার বিজয় সরণিতে স্থানান্তর করা হয। জাদুঘরে প্রবেশের জন্য কোন টিকিট লাগে না। সপ্তাহের ৫ দিন জাদুঘর খোলা থাকে। গ্রীষ্মকালে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকে। শীতকালে ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকে। বুধবার এবং শুক্রবার বন্ধ থাকে।

> আরও পড়ুন- গাইবান্ধার যত ঐতিহাসিক স্থাপনা

পুলিশ জাদুঘর: রাজারবাগে পুলিশ অডিটোরিয়াম ভবনের পাশেই নির্মাণ করা হয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর। জাদুঘরে সংরক্ষণ করা প্রত্যেকটি স্মারক সাক্ষ্য দিচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের জানা-অজানা কাহিনি। বুধবার ছাড়া সপ্তাহের বাকি ৬ দিনই খোলা থাকে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকলেও বেলা ১টা থেকে ২টা পর্যন্ত এক ঘণ্টা বিরতি। এ জাদুঘরে প্রবেশ টিকিটের মূল্য ১০ টাকা।

বাংলাদেশ ডাক জাদুঘর: ঢাকা জেনারেল ডাকঘরে (জিপিও) অবস্থিত এটি। ১৯৬৬ সালে প্রতিষ্ঠিত এ জাদুঘরে নানা সময়ে ডাক বিভাগের ব্যবহৃত সরঞ্জামাদি স্থান পেয়েছে। সপ্তাহে ৫ দিন (রবিবার থেকে বৃহস্পতিবার) সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকে। জাদুঘরে প্রবেশ করতে কোন প্রবেশ মূল্য দিতে হবে না।

আহসান মঞ্জিল জাদুঘর: ১৮৩০ সালে বাংলার নবাব খাজা আলিমুল্লাহ ফরাসিদের কাছ থেকে কিনে নেন। ১৮৫৯ সাল থেকে বানানো শুরু করেন আহসান মঞ্জিল। সরকার ১৯৮৫ সালে এটিকে অধিগ্রহণ করে। ১৯৯২ সালে চালু হয় জাদুঘর। গ্রীষ্মকালে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বিকেল সাড়ে ৫টা, শুক্রবার বিকেল ৩টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত খোলা থাকে। শীতকালে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা, শুক্রবার দুপুর আড়াইটা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত খোলা থাকে। বৃহস্পতিবার, সাপ্তাহিক ছুটি ও সরকারি ছুটির দিন জাদুঘর বন্ধ থাকে।

লালবাগ কেল্লা জাদুঘর: লালবাগ কেল্লা পুরান ঢাকার লালবাগে অবস্থিত। সম্রাট আওরঙ্গজেব তার শাসনামলে লালবাগ কেল্লা নির্মাণের ব্যবস্থা করেন। তার ছেলে যুবরাজ শাহজাদা আজম ১৬৭৮ সালে এর নির্মাণ কাজ শুরু করেন। তখন এর নামকরণ করা হয় আওরঙ্গবাদ কেল্লা বা আওরঙ্গবাদ দূর্গ। সুবাদার শায়েস্তা খাঁনের আমলে নির্মাণ কাজ অসমাপ্ত রেখে দূর্গটি পরিত্যক্ত হয়। তখন নতুনভাবে লালবাগ কেল্লা নামকরণ করা হয়। গ্রীষ্মকালে সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকে। শীতকালে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকে। দুপুর ১টা থেকে আধঘণ্টার জন্য বন্ধ থাকে। শুক্রবার জুমার নামাজের জন্য সাড়ে ১২টা থেকে ৩টা পর্যন্ত বন্ধ থাকে। রবিবার সাধারণ ছুটি। সোমবার বেলা ২টা থেকে খোলা থাকে।

এসইউ/জেআইএম