দেশজুড়ে

প্রেমঘটিত বিষয়ে বন্ধুকে গলা কেটে হত্যা, বন্ধুর স্বীকারোক্তি

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় কলেজছাত্র বন্ধুকে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন ঘাতক শুভরায়। প্রেমঘটিত দ্বন্দ্বে তাকে হত্যা করা হয় বলে জবানবন্দিতে উঠে আসে।

Advertisement

বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুরুন্নাহার ইয়াসমিনের আদালতে আসামি শুভর ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।

বুধবার (১২ আগস্ট) দিবাগত রাতে উপজেলার গোপালদী বাজার থেকে শুভকে গ্রেফতার করে পুলিশ। শুভ কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার লাজৈর গ্রামের শংকর চন্দ্র রায়ের ছেলে। তিনি উপজেলার উলুকান্দি গ্রামে মামার বাড়িতে থাকতেন।

নিহত কলেজছাত্র সাইফুল ইসলাম উপজেলার বিশনন্দী এলাকার মালয়েশিয়া প্রবাসী ওসমান গণির ছেলে।

Advertisement

মামলার বাদী ও নিহতের বোন লিজা জানান, মঙ্গলবার (১১ আগস্ট) সন্ধ্যার পর থেকে সাইফুলের মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। রাতে সে বাড়িতে ফেরেনি। পরদিন বিকেল ৪টার দিকে গোপালদী বাজারে তিনতলা মার্কাস মসজিদের ছাদে সাইফুলের মরদেহ পাওয়া যায়

তিনি বলেন, এক মেয়ের সাথে আমার ভাই সাইফুলের প্রেমের সম্পর্কের জেরে শুভ তাকে হত্যা করেছে। আমি হত্যাকারীর ফাঁস চাই।

গোপালদী তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ পরিদর্শক আজাহার জানান, বুধবার বিকেলে গোপালদী মসজিদ মার্কেটের ছাদ থেকে সাইফুলের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ওই রাতেই তার বোন লিজা বাদী হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ সন্দেহভাজন আসামি শুভরায়কে গ্রেফতার করলে জিজ্ঞাসাবাদে সে হত্যার কথা স্বীকার করে।

তিনি আরও জানান, নারীঘটিত ব্যাপার নিয়ে দুইজনের মধ্যে দ্বন্দ্ব ছিল। হত্যাকাণ্ডের আগে দুই বন্ধু একসঙ্গে নাস্তা করে। এরপর ছাদে নিয়ে কথা বলার এক পর্যায়ে ঘাতক শুভ সাইফুলকে গলা কেটে করে।

Advertisement

মো. শাহাদাত হোসেন/বিএ