খেলাধুলা

সেঞ্চুরির জবাবে সেঞ্চুরি, আইরিশদের উড়িয়ে দিল আফগানিস্তান

ইটের জবাবে পাটকেল’ই বলতে হবে একে। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে সেঞ্চুরি করলেন পল স্টার্লিং। তার জবাবে সেঞ্চুরি উপহার দিলেন রহমত শাহ। শেষোক্ত সেঞ্চুরিরই জয় হলো শেষ পর্যন্ত। আয়ারল্যান্ডকে বলতে গেলে উড়িয়েই দিল আফগানরা।

Advertisement

২৮ বল হাতে রেখে ৭ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে তারা। এই জয়ের ফলে ১ ম্যাচ হাতে রেখেই তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ জিতে নিয়েছে আফগানরা। প্রথম ম্যাচে আইরিশদের তারা হারিয়েছিল ১৬ রানের ব্যবধানে।

রোববার আবু ধাবিতে অনুষ্ঠিত হয় এই ম্যাচটি। টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে পল স্টার্লিংয়ের সেঞ্চুরির ওপর ভর করে ৯ উইকেট হারিয়ে ২৫৯ রান করে আয়ারল্যান্ড। জবাবে রহমত শাহর অপরাজিত সেঞ্চুরি এবং হাশমতউল্লাহ শহিদির ৮২ রানের ওপর ভর করে ৩ উইকেট হারিয়ে ৪৫.২ ওভারেই জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায় আফগানরা।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে আইরিশ ওপেনার পল স্টার্লিং অসাধারণ ব্যাটিং উপহার দিলেন। একপ্রান্তে পড়ছিল একের পর এক উইকেট। কেভিন ও’ব্রায়েন ১ রানে আউট হয়ে যান। অ্যান্ডি বালবির্নি আউট হন ৫ রান করে। এরপর হ্যারি ট্যাক্টরকে নিয়ে মাঝারি একটি জুটি গড়ে তোলেন স্টার্লিং। ৮৪ রানের জুটি গড়ার পর ২৪ রান করে আউট হয়ে যান বালবির্নি।

Advertisement

এরপর কার্টিস চ্যাম্পারকে সঙ্গে নিয়ে ১০৬ রানের জুটি গড়ে তোলেন স্টার্লিং। ৪৭ রান করে আউট হয়ে যান চ্যাম্পার। দলীয় ২২৬ রানের মাথায় আউট হন পল স্টার্লিং। ততক্ষণে তিনি ক্যারিয়ারে ১১তম সেঞ্চুরির দেখা পেয়ে গেলেন। আউট হওয়ার সময় তার নামের পাশে শোভা পাচ্ছিল ১৩২ বলে ১২৮ রান।

স্টার্লিং আউট হওয়ার পরই দ্রুত বাকি উইকেটগুলো পড়তে থাকে। যে কারণে শেষ পর্যন্ত ৯ উইকেট হারিয়ে ২৫৯ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হয় আয়ারল্যান্ড। আফগান বোলারদের মধ্যে নাভিন-উল হক নেন ৪ উইকেট। ৩ উইকেট নেন মুজিব-উর রহমান এবং ১টি করে উইকেট নেন গুলবাদিন নাইব ও রশিদ খান।

জবাব দিতে নেমে দুই ওপেনার রাহমানুল্লাহ গুরবাজ এবং জাভেদ আহমাদি মোটামুটি ভালো সূচনা এনে দেন। দলীয় ৪৪ রানের মাথায় ১৬ রান করে আহমাদি আউট হয়ে যান। দলীয় ৪৮ রানের মাথায় ফিরে যান আরেক ওপেনার রাহমানুল্লাহ গুরবাজ। ২৬ বলে ৩১ রান করেন তিনি।

রহমত শাহ এবং হাশমাতুল্লাহ শহিদির জুটিই আফগানিস্তানকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যায়। এই দু’জন মিলে ২১৬ রানের বিশাল জুটি গড়ে তোলেন। ৮২ রান করেন শহিদি আউট হয়ে গেলেও রহমত শাহ অপরাজিত থাকেন এবং ১০৩ রান করেন। ২১ রানে অপরাজিত থেকে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন আসগর আফগান।

Advertisement

আইএইচএস/জেআইএম