রাজনীতি

‘সরকারের সঙ্গে আলেম-ওলামাদের কোনো বিরোধ নেই’

‘সরকারের সঙ্গে এদেশের আলেম-ওলামা, পীর-মাশায়েখদের কোনো বিরোধ বা বিদ্বেষ নেই। যা কিছু হয়েছে এটা ছিল নিছক ভুল বোঝাবুঝি ও শয়তানের ধোঁকা। দেশ ও জনগণের কল্যাণে যারা কাজ করে ও করবে তাদের প্রতি এদেশের সর্বস্তরের আলেম-ওলামাদের সার্বিক সহযোগিতা ও সমর্থন থাকবে।’

Advertisement

শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ ফরায়েজি আন্দোলন আয়োজিত জাতীয় কর্মী সম্মেলন ও দোয়া মাহফিলে সংগঠনটির সভাপতি মাওলানা আবদুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘সরকারের অহেতুক বিরোধিতা না করে সব ভালো কাজে ও দেশের উন্নয়নে সরকারকে সমর্থন ও সহযোগিতা করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। তাই প্রকৃত ইসলামের শাশ্বত বিধানের সৌন্দর্য, ইসলামি জীবন ব্যবস্থার সুফল আন্তরিকতাপূর্ণ আলোচনার মাধ্যমে সরকারের সামনে উপস্থাপন করে ইসলামের সব কার্যক্রমের বাস্তবায়ন সরকারের শক্তিকে কাজে লাগানোর চেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার জন্য আমি দেশের আলেমদের প্রতি অনুরোধ করছি।’

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন , ‘তিনি যেনো অতি উৎসাহী নাস্তিক-মুরতাদদের ইন্ধনে তাদের এজেন্ডা বাস্তবায়নে এদেশ ও জাতির প্রকৃত বন্ধু আলেমদের বিপক্ষে অবস্থান না নেন। কাউকে ক্ষমতায় বসানো বা ক্ষমতা থেকে নামানো এদেশের প্রকৃত আলেম-ওলামা, পীর-মাশায়েখদের মিশন বা উদ্দেশ্য নয়। তাদের মিশন হচ্ছে- এদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও জনগণের অধিকার রক্ষায় দেশে ন্যায়-ইনসাফ প্রতিষ্ঠায় সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাওয়া।’

Advertisement

কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন অবমাননাকারীদের গ্রেফতার করায় প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি। সাম্প্রদায়িক অপশক্তির কোনো চক্রান্তে আমাদের পা দেওয়া চলবে না। আলেম সমাজ কখনো হঠকারী সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। অতীতেও এই সাম্প্রদায়িক অপশক্তির ফাঁদে পা দিয়ে আমাদের কওমি অঙ্গন ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আমাদের এখন সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময়- যেনো আমরা একই ভুল না করি। আমরা সরকারের ওপর পরিপূর্ণ আস্থা রেখে, সরকারের নির্দেশনাগুলো যথাযথভাবে মেনে চলে বর্তমান পরিস্থিতিকে স্থিতিশীল করতে সরকারকে সহযোগিতা করবো।’

‘সাম্প্রদায়িকতার মতো একটি অস্ত্রকে ব্যবহার করে দেশের বিরাজমান শান্তি-শৃঙ্খলা ও উন্নতি-সমৃদ্ধিকে ব্যাহত করার কাজ একমাত্র ইসলামের শত্রুরাই করে আসছে। তারা আরও একবার ভয়ানক কালসাপের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প ছড়াচ্ছে। একজন মুমিন হিসেবে, একজন বাংলাদেশি হিসেবে আমাদের সবার এই অপশক্তিকে প্রতিহত করতে হবে।’

এসময় তিনি প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আবেদন জানান, যেনো প্রতিটি কওমি মাদরাসা ও এতিমখানায় একটি করে এতিম নিবাস ও হিফজুল কুরআন বিভাগের ছাত্রদের জন্য দৃষ্টিনন্দন ভবন করে দেন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য দেন দৈনিক ইনকিলাবের সহকারী সম্পাদক মাওলানা ওবায়দুর রহমান খান নদভী, জামিয়া ইসলামিয়া আজমিয়া মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা ইয়াহইয়া মাহমুদসহ সংগঠনটির নেতারা।

Advertisement

এএএম/এআরএ/জেআইএম