EN
  1. Home/
  2. দেশজুড়ে

ফ্রান্স সরকারকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে

জেলা প্রতিনিধি | শরীয়তপুর | প্রকাশিত: ০৬:০৯ পিএম, ০৪ নভেম্বর ২০২০

মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর অবমাননাকর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের ঘটনায় ফ্রান্স সরকারকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে। সেই সঙ্গে ফ্রান্সের সকল পণ্য বর্জন, কূটনীতিক সম্পর্ক ছিন্নের দাবি জানিয়েছে শরীয়তপুর উলামা পরিষদ।

সংগঠনটির নেতারা বলছেন, এই ঘটনা মুসলিম উম্মাহর হৃদয়ে রক্তক্ষরণ ঘটিয়েছে। এমন জঘন্যতম অন্যায় কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না।

ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় বিশ্বনবী (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে বুধবার (০৪ নভেম্বর) দুপুরে শরীয়তপুর শহরের পালং উত্তর বাজার থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শরীয়তপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে গিয়ে সমাবেশে মিলিত হয়।

সমাবেশে শরীয়তপুর উলামা পরিষদের সভাপতি মাওলানা শফিউল্লাহ খান বলেন, ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় বিশ্ব মানবতার শান্তির দূত হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করে বিশ্বের ২০০ কোটি মুসলমানের কলিজায় আঘাত হেনেছে। মুসলিম উম্মাহর হৃদয়ে রক্তক্ষরণ ঘটিয়েছে। বিন্দুমাত্র ঈমান থাকলে কোনো মুসলমান এ ঘটনায় চুপ করে বসে থাকতে পারে না। বাকস্বাধীনতার নামে এমন জঘন্যতম অন্যায় মেনে নেয়া যায় না।

তিনি বলেন, বিশ্বনবীর অবমাননার ঘটনা অসভ্যতাকেও হার মানিয়েছে। ফ্রান্স সরকারকে এর চরম মূল্য দিতে হবে। প্রকাশ্যে তাদের ক্ষমা চাইতে হবে।

শফিউল্লাহ খান আরও বলেন, এ ঘটনায় ফ্রান্সের সকল পণ্য বর্জন করতে হবে। ফ্রান্স সরকারকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে। যতক্ষণ পর্যন্ত ক্ষমা না চাইবে ততক্ষণ পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলতে থাকবে। আমরা সরকারের কাছে আবেদন করছি সরকার যেন অবিলম্বে সংসদে নিন্দা প্রস্তাব পাশ করে ফ্রান্স সরকারের সঙ্গে সব ধরনের কূটনীতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে।

মাওলানা ইদ্রিস কাসেমী ও মাওলানা মুঈনুদ্দীন কাসেমীর পরিচালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন- শরীয়তপুর উলামা পরিষদের উপদেষ্টা সদস্য মাওলানা আব্দুল বাতেন ফরিদী, হাফেজ মাওলানা শওকত আলী, মাওলানা জিয়াউল হক কাসেমী, মাওলানা জালাল উদ্দীন আহমদ, হাফেজ কেরামত আলী ও সহ-সভাপতি মাওলানা আবু বকর প্রমুখ।

মো. ছগির হোসেন/এএম/এমএস