EN
  1. Home/
  2. দেশজুড়ে

ছাত্রলীগ নেতার ‘সেতু’ বন্ধন গড়ল দুই ওয়ার্ডের

উপজেলা প্রতিনিধি | শ্রীপুর (গাজীপুর) | প্রকাশিত: ০৮:৫৫ পিএম, ১৪ নভেম্বর ২০২০

গাজীপুরের শ্রীপুর পৌরসভার দুটি ওয়ার্ডকে বিভাজন করে রেখেছে ছোক্কার খাল। খালের উভয় পাশে চলাচলের সড়ক থাকলেও খাল পারাপারে কোনো সাঁকো ছিল না। ফলে আশপাশের ওয়ার্ড দুটির সাধারণ মানুষ প্রায় দুই কিলোমিটার ঘুরে দৈন্দদিন কাজ করতো। বিশেষ করে শিল্প কারখানার শ্রমিকদের এ দুর্ভোগ পোহাতে হতো প্রতিদিন।

সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ বিবেচনা করে কয়েক বছর আগে স্থানীয়রা চাঁদা তুলে একটি কাঠের সাঁকো নির্মাণ করেন।

jagonews24

স্থানীয়রা জানান, খালটির দুই পাশে পৌরসভার দুটি ওয়ার্ডের সীমান্ত এলাকা। খালের পূর্ব পাশে পৌরসভার ৩নং এবং পশ্চিম পাশে ৪নং ওয়ার্ড। সীমানা জটিলতার কারণে কোনো কাউন্সিলর এ সাঁকো নির্মাণে এগিয়ে আসেননি। পরে চাঁদা তুলে কাঠের সেতু তৈরি করে। দীর্ঘদিন ব্যবহারের ফলে সেতুর কাঠের পাটাতন নষ্ট হয়ে যায়, যা সম্প্রতি একেবারেই ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়েছিল। সাঁকোতে উঠলেই থরথর করে কাঁপতো। রাতে পার হতে গিয়ে অনেকে খালের পানিতেও পড়েছে।

তারা আরও জানান, সেতু দিয়ে বনরূপা, লোহাগাছ, খাসপাড়াসহ তিন-চার গ্রামের মানুষ পারাপার হয়। নিরূপায় হয়ে ভয়ে ভাঙা সেতু দিয়েই পারাপার হতো সবাই। ঝুঁকি নিয়ে সাঁকোটি ব্যবহার করতে গিয়ে অনেকে পা পিছলে পড়ে গুরুতর আহতও হয়েছেন।

jagonews24

দীর্ঘদিন পর এ দুর্ভোগ লাগবে এগিয়ে আসেন গাজীপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল আলম রবিন। তিনি নিজ উদ্যোগে খালের ওপর প্রায় ৫০ ফুট দীর্ঘ লোহার একটি সেতু নির্মাণ করেন।

স্থানীয় বাসিন্দা শ্রীপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম বলেন, খালটির এক পাশে খাসপাড়া এলাকা। সেখানে বহু দরিদ্র মানুষ বসবাস করে। যাদের অধিকাংশই শিল্প কারখানার শ্রমিক। প্রতিদিন জীবিকার প্রয়োজনে তাদের খাল পার হয়ে কারখানায় যেতে হয়। স্থানীয়রা বিভিন্ন সময় জনপ্রতিনিধিসহ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তারা কোনো উদ্যোগ নেয়নি। ছোট এই সেতুটি নির্মাণের ফলে দুই হাজার লোকের ভোগান্তি লাঘব হলো।

jagonews24

গাজীপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল আলম রবিন বলেন, দেশকে নিজের মতো করে ভালোবাসতে হবে। প্রত্যেকেরই সামাজিক দায়িত্ববোধও রয়েছে। এ থেকেই লোহার ব্রিজটি তৈরি করেছি। যাতে জনদুর্ভোগ কিছুটা হলেও কমবে।

শিহাব খান/এএইচ/জেআইএম