EN
  1. Home/
  2. দেশজুড়ে

সিজারের সময় হার্ট অ্যাটাক করে মারা গেলেন প্রসূতি

জেলা প্রতিনিধি | টাঙ্গাইল | প্রকাশিত: ০৯:৩৯ পিএম, ২৬ নভেম্বর ২০২০

টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার মডার্ন ডক্টরস হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনের সময় হার্ট অ্যাটাক করে এক প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় হাসপাতালে ভাঙচুর চালিয়েছেন মৃতের স্বজনরা। বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) বিকেলে মডার্ন ডক্টরস হাসপাতালে এ প্রসূতির মৃত্যু হয়।

মৃতের স্বজনরা জানান, বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সখীপুরের মডার্ন ডক্টরস হাসপাতালে রুনা লায়লা নামে এক প্রসূতিকে নিয়ে আসেন স্বজনরা।

দুপুর ২টার দিকে প্রসবব্যথা উঠলে সিজারিয়ান অপারেশনের জন্য তাকে নিয়ে যান চিকিৎসক আনোয়ার হোসেন। অপারেশন চলাকালীন প্রসূতি মারা যান। তার মৃত্যুর খবরে স্বজনরা হাসপাতাল ঘেরাও করে ভাঙচুর চালান।

মৃতের স্বজনদের অভিযোগ, এটি একটি হত্যাকাণ্ড। অভিযুক্ত চিকিৎসকের বিচার চাই। এভাবে যেন আর কোনো মানুষ মারা না যায়।

jagonews24

ওটিতে রোগীর মৃত্যুর বিষয়ে মডার্ন ডক্টরস হাসপাতালের মালিক চিকিৎসক আনোয়ার হোসেন বলেন, অপারেশনের সময় হার্ট অ্যাটাক করে রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

তবে রোগীর মৃত্যুর বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক শাহিনুর রহমান।

সখীপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমীর হোসেন জানান, প্রসূতির মৃত্যু ও হাসপাতালে ভাঙচুরের তথ্য পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃতের স্বজনদের শান্ত করা হয়। এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ছিলেন।

jagonews24

পরে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাসে মৃত নারীর নবজাতককে বাড়িতে নিয়ে যান স্বজনরা। তবে এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান ওসি।

সখীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) চিত্রা শিকারী বলেন, প্রসূতির মৃত্যু ও হাসপাতাল ভাঙচুরের সংবাদ পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। নন-মেডিকেল হওয়ায় মৃত্যুর বিষয়টি আমরা নিশ্চিত করে বলতে পারছি না। এ কারণে তদন্ত করে মৃত্যুর রহস্য উৎঘাটন ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেয়া হয় মৃতের স্বজনদের। পরে নিহতের পরিবার নবজাতক ও নারীর মরদেহ বাড়িতে নিয়ে যান। এ ঘটনায় স্বজনরা থানায় মামলা করতে চাইলে পুলিশকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলা হয়েছে।

আরিফ উর রহমান টগর/এএম/জেআইএম