দেশজুড়ে

চাকরির প্রলোভনে ডেকে নিয়ে গণধর্ষণ, যৌনপল্লীতে বিক্রির চেষ্টা

ভালো চাকরির আশ্বাসে বন্ধুদের সঙ্গে বের হয়েছিলেন এক তরুণী (১৯)। পরে তাকে আটকে রেখে টানা পাঁচদিন তার ওপর পাশবিক নির্যাতন চালিয়েছেন তার বন্ধুরা। শুধু তাই নয়, ওই তরুণীকে বানীশান্তা পতিতা পল্লীতে বিক্রি করে দেয়ার চেষ্টা করা হয়।

Advertisement

এ ঘটনায় সুমন শরিফ (২৫) ও মেহেদী হাসান (৩০) নামের দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার (২৫ নভেম্বর) রাতে মোংলার শেলাবুনিয়া থেকে তাদের আটক করা হয়। পরে পুলিশ মামলা দিয়ে গ্রেফতার দেখিয়ে বৃহস্পতিবার বাগেরহাট আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে পাঠায়।

পুলিশ জানায়, চট্রগ্রাম ইপিজেডে চাকরির সুবাদে খাগড়াছড়ির মহলছড়ির কালাপাহাড় এলাকার এক তরুণীর সঙ্গে পরিচয় হয় মোংলার শেহলাবুনিয়ার সুমন শরিফ ও মেহেদী হাসানের। পরিচয় ও বন্ধুত্বের সুবাদে তাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয়। গত সপ্তাহে ওই তরুণীকে ভালো চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে তাকে ঝিনাইদহের সদরে নিয়ে যান এই দুই যুবক। সেখানে অপর এক বন্ধুর বাড়িতে তিন দিন থাকার পর গত মঙ্গলবার তরুণীকে মোংলার শেলাবুনিয়ায় মেহেদী হাসানের বাড়িতে আনা হয়।

সেখানে মেহেদীর স্ত্রী পরিচয় দিয়ে দুই দিন থাকার পর বুধবার বিকেলে ওই তরুণীকে ট্রলারে বানিশান্তা পতিতা পল্লীতে পাচারের চেষ্টাকালে খবর পেয়ে মোংলা থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে।

Advertisement

বুধবার রাতে এ ঘটনায় মামলা দায়ের শেষে আটক যুবকদেরকে বাগেরহাট কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আর ওই তরুণীর ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্নের পর তাকে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও) তুহিন মণ্ডল বলেন, প্রতারণার মাধ্যমে ফুসলিয়ে আনা ওই তরুণীকে বিভিন্নস্থানে আটকে রেখে ধর্ষণ করেন আটক দুই যুবক। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় তাদেরকে আটকসহ তরুণীকে উদ্ধার করা হয়।

এরশাদ হোসেন রনি/এসআর/এমকেএইচ

Advertisement