দেশজুড়ে

নিজ চরের পরিচিতি বাড়াতে ৫ ঘণ্টা যমুনায় সাঁতরালেন ৫ যুবক

মানিকগঞ্জে ২৭ কিলোমিটার সাঁতার কেটে যমুনা নদী পাড়ি দিয়েছেন পাঁচ যুবক। এ দীর্ঘপথ তাদের পাড়ি দিতে সময় লাগে পাঁচ ঘণ্টা। নিজের এলাকা ও নিজেদের ভিন্নভাবে পরিচিত করতেই এই সাঁতারের আয়োজন করে দৌলতপুরের দুর্গম চর বাঘুটিয়া ইউনিয়নের যুবসমাজ।

Advertisement

সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় টাঙ্গাইল ও মানিকগঞ্জ জেলার কালীগঙ্গা নদীর মোহনা থেকে এই প্রতিযোগিতা শুরু হয়। দুপুর আড়াইটার দিকে শিবালয় উপজেলার আরিচা ঘাটে গিয়ে শেষ হয়।

সাঁতার প্রতিযোগিতার অন্যতম উদ্যোক্তা আরিফুল ইসলাম বলেন, কতজনতো কতভাবেই নিজের এলাকা এবং নিজেদের তুলে ধরছে। আমরা যমুনার দুর্গম চর বাঘুটিয়া এলাকায় বসবাস করি। আমরা চিন্তা করলাম আমাদের এই চরকে ভিন্নভাবে পরিচিত করাবো। নিজেরা নতুন কিছু উপহার দেবো। এজন্য এই সাঁতারের আয়োজন করা হয়।

আরিফুল ইসলাম ছাড়াও এতে অংশ নেন একই এলাকার আলী আকবর, বায়েজিদ, নুরুল্লাহ ও মনোয়ার হোসেন। মাঝ পথে আরও কয়েকজন তাদের সঙ্গে অংশ নিলেও গন্তব্যে পৌঁছার আগেই নদী থেকে তারা উঠে আসেন।

Advertisement

সাঁতারের সময় তাদের সঙ্গে সঙ্গে একটি ইঞ্জিন চালিত ট্রলার ছিলো। কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাৎক্ষণিক চিকিৎসার জন্য একজন পল্লী চিকিৎসককেও রাখা হয়েছিলো ট্রলারে।

আরিফুল ইসলাম আরও বলেন, চরের মানুষ হিসাবে নদী সাতঁরানোর অভ্যাস আমাদের সবারই ছিলো। তবে দীর্ঘপথ পাড়ি দেওয়ার অভিজ্ঞতাটা অন্যরকম। সবাই ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলাম। দীর্ঘসময়ে নৌকা থেকে ছুড়ে দেওয়া কয়েকটি কলা খেয়েছি আমরা। যখন আরিচা ঘাটে গিয়ে পৌঁছাই, তখন দেখি তীরে অনেক মানুষ ভিড় করছে আমাদের দেখতে। তখন ভালো লেগেছিলো। ক্লান্ত হয়ে পড়লেও আমরা সবাই সুস্থ আছি।

দুপুরের পর থেকে মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলার বাঘুটিয়া চরের যুবকদের এই সাঁতারের ছবি ও ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। মানিকগঞ্জের বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপে ভিডিওটি ভাইরাল হয়। নেটিজেনরা তাদের এই সাহসিকতার প্রশংসা করে নানা মন্তব্য করেন।

বি.এম খোরশেদ/এসজে/এমএস

Advertisement