EN
  1. Home/
  2. আন্তর্জাতিক

স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত, আইসোলেশনে অরবিন্দ কেজরিওয়াল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | প্রকাশিত: ০৫:৫৭ পিএম, ২০ এপ্রিল ২০২১

ভারতের রাজধানী দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে এবার করোনার হানা। কোভিড আক্রান্ত হয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের স্ত্রী সুনীতা কেজরিওয়াল। মঙ্গলবার তার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে বলে জানা গেছে।

এদিকে, স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পরপরই সেলফ আইসোলেশনে গেছেন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। মঙ্গলবার সকালে সুনীতা কেজরিওয়ালের করোনা পজিটিভ হওয়ার খবর আসতেই দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

জানা গেছে, তার দেহে করোনার মৃদু উপসর্গ থাকায় বাড়িতে কোয়ারেন্টাইনে রেখেই চিকিৎসা চলছে। গত কয়েক দিন টানা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে দিল্লি।

করোনার লাগাম টানতে সোমবার ছয়দিনের লকডাউন জারি করে রাজ্যবাসীকে বাড়ি থেকে বের হতে নিষেধ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। সোমবার রাত ১০ থেকেই জারি হয়েছে লকডাউন, শেষ হবে আগামী সোমবার ভোর ৬টায়।

রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে দিল্লির ভয়াবহ পরিস্থিতি জানাতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল বলেন, পুরো দিল্লিতে আর মাত্র ১০০ আইসিইউ বেড খালি রয়েছে। পর্যাপ্ত অক্সিজেনের অভাবও দেখা দিয়েছে।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হতেই একের পর এক বিশিষ্ট লোকজনের সংক্রমণের খবর সামনে আসছে। মঙ্গলবার ভারতের কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। এক টুইট বার্তায় তিনি জানিয়েছিলেন, তার দেহে করোনার কিছু কিছু লক্ষণ দেখা দিয়েছে। তার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

কংগ্রেসের লোকসভার এই সাংসদ অনুরোধ করেছেন, গত কয়েক দিনে যারা তার সংস্পর্শে এসেছেন, তারা যেন সব রকম সুরক্ষাবিধি মেনে চলেন।

মাত্র একদিন আগেই ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের করোনায় আক্রান্তের খবর সামনে আসে। সোমবার করোনায় আক্রান্ত মনমোহনকে দিল্লির এইমস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বর্তমানে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দলের পর্যবেক্ষণ রয়েছেন এই কংগ্রেস নেতা। তার অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। এর আগে গত শনিবার ভারতের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে কয়েকদফা পরামর্শ দিয়ে একটি চিঠি লিখেছিলেন মনমোহন সিং।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে ১৭৬১ জনের মৃত্যু হয়েছে, মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে এখন পর্যন্ত একদিনে সর্বোচ্চ রেকর্ড। এই সময়ের মধ্যে ২ লাখ ৫৯ হাজার মানুষের শরীরে সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।

আক্রান্ত ও মৃত্যুর এই সংখ্যা থেকে করোনাভাইরাস মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশটির বিপর্যস্ত অবস্থার চিত্র সম্পর্কে ধারণা করা যায়। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন দেড় কোটিরও বেশি মানুষ।

টিটিএন/জিকেএস