দেশজুড়ে

চিকিৎসার প্রলোভন দেখিয়ে বাকপ্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণ

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে চিকিৎসার প্রলোভন দেখিয়ে বাকপ্রতিবন্ধী এক বিধবা নারীকে (৩৫) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। গত ২১ জুন উপজেলার ধোপাখালী বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে ওই নারীর ভাসুর বাদী হয়ে মিনহাজ উদ্দিন মিনু নামের একজনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। পরে বুধবার ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওই নারীকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়।

অভিযুক্ত মিনু উপজেলার কদমতলী গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য হযরত আলীর ছেলে।

মামলার বাদী জানান, গত শুক্রবার (২১ জুন) দুপুরে বৃষ্টির সময় ধোপাখালী বাজারে গিয়েছিলেন তার মৃত ছোট ভাইয়ের বিধবা স্ত্রী। এসময় চিকিৎসার প্রলোভন দেখিয়ে দোকানের ভেতর নিয়ে লম্পট মিনু বাকপ্রতিবন্ধী ওই নারীকে ধর্ষণ করে। পরে ওই নারী বাড়িতে এসে বিষয়টি পরিবারের সদস্যদের জানায়। এছাড়াও ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হয়ে যায়। এক পর্যায়ে মিনুর বিরুদ্ধে স্থানীয় ধোপাখালী ইউপি চেয়ারম্যান ও মাতাব্বরদের কাছে বিচার চান ওই নারীর পরিবারের সদস্যরা। গত সোমবার (২৪ জুন) বিকেলে ধোপাখালী ইউনিয়ন পরিষদে এ নিয়ে সালিশ বসলেও কোনো মীমাংসা হয়নি।

তিনি আরও জানান, অবশেষে মঙ্গলবার (২৫ জুন) দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফা সিদ্দিকাকে বিষয়টি অবহিত করে বিধবার পরিবার। পরে থানায় মামলাটি দায়ের করা হয়।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে ধনবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মজিবর রহমান জানান, অভিযুক্ত আসামি মিনহাজ উদ্দিন মিনুকে এখনও গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তবে তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। এছাড়া ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওই নারীকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে ২২ ধারার জবানবন্দির জন্য আদালতে পাঠানো হয়। তবে ওই নারী বাকপ্রতিবন্ধী হওয়ায় আজ জবানবন্দি নেয়া সম্ভব হয়নি। আগামী ১ জুলাই প্রতিবন্ধী স্কুলের শিক্ষকের সহায়তায় তার জবানবন্দি গ্রহণের দিন ধার্য করেছেন আদালত।

আরিফ উর রহমান টগর/এমবিআর/এমএস