ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে ফুল কিনে বিপাকে

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি সাতক্ষীরা
প্রকাশিত: ০৩:৪১ পিএম, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০

বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে অতিরিক্ত ফুল কিনে বিপাকে পড়েছেন সাতক্ষীরায় ফুল ব্যবসায়ীরা। শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) ছুটির দিনে ভালোবাসা দিবস হওয়ায় ব্যবসায়ীরা তাদের কাঙ্ক্ষিত ফুল বিক্রি করতে পারেননি। সাতক্ষীরা শহর, পাটকেঘাটা ও তালা এলাকার ফুল ব্যবসায়ীরা এবারের ভালোবাসা দিবসে ফুল বিক্রি নিয়ে হতাশা প্রকাশ করছেন।

সাতক্ষীরা শহরের মিনি মার্কেট এলাকায় বড় ফুলের দোকান ফুলশয্যা। তবে দোকানে কোনো বেচাকেনা নেই। দোকান মালিক মিকাইল ইসলাম বলেন, ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে ২৫ হাজার টাকার ফুল কিনে করে রেখেছি। এখন পর্যন্ত ৮-১০ হাজার টাকার ফুল বিক্রি করেছি। বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে একটু বেশি ফুল বিক্রি হয়েছিল। কিন্তু আজ ভালোবাসা দিবসের দিন ফুল বিক্রি হচ্ছে না।

satkhira04.jpg

ফুল বিক্রি না হওয়ার কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন, ভালোবাসা দিবসের দিনে মূলত বিভিন্ন স্কুল-কলেজের ছেলেমেয়েরা ফুল বেশি কেনে। আজ শুক্রবার ছুটির দিন হওয়ায় স্কুল-কলেজের ছেলেমেয়েরা বাসা থেকে বের হতে পারেনি। যার কারণে ফুলও বিক্রি হচ্ছে না। আশা করেছিলাম ভালোবাসা দিবসের দিনে ৫০ হাজার টাকার ফুল বিক্রি করতে পারবো। এখন ফুল কিনে বিপাকে পড়েছি।

অন্যদিকে জেলার পাটকেলঘাটা থানার পাঁচরাস্তা মোড় এলাকায় ভালোবাসা দিবসকে সামনে রেখে লাভের আশায় ফুল বিক্রি করছেন মারুফ হোসেন। তবে তিনিও পড়েছেন বিপাকে।

satkhira04.jpg

পাটকেলঘাটা থানা সদরের শেখ আব্দুর রউফের ছেলে মারুফ হোসেন বলেন, ভালোবাসা দিবসকে সামনে রেখে ১৫ হাজার টাকার ফুল কিনেছি বিক্রির জন্য। শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ২০০ টাকার ফুলও বিক্রি হয়নি। অনেক টাকা লোকসান হয়ে গেল।

পাটকেলঘাটা ওভার ব্রিজের পাশে স্যানাল ফুলঘর। সেখানে ৯ বছর ধরে ফুলের ব্যবসা করছেন প্রদীপ স্যানাল। ৫৫ হাজার টাকার ফুল কিনে রেখেছেন এই ফুল ব্যবসায়ী।

satkhira04.jpg

ফুল ব্যবসায়ী প্রদীপ স্যানাল জানান, যশোরের গদখালী এলাকা ফুলের জন্য বিখ্যাত। তবে এ বছর গদখালীর গোলাপ ফুলের মান ভালো না। যে কারণে আমি ভারত থেকে ৩০ হাজার টাকার গোলাপ আমদানি করেছি। মোট ৫৫ হাজার টাকার গোলাপ, রজনীগন্ধা, গাদা ও বিভিন্ন ধরনের ফুল এনেছি। কিন্তু বেচাকেনা নেই।

অপরদিকে তালা সদরের মরিয়ম ফুলশয্যার দোকান মালিক হাসান মুন্সিও পড়েছেন বিপাকে। ফুল বিক্রি নেই তারও। তিনি বলেন, ফুল কিনে বিপাকে পড়েছি। এবার বিক্রি নেই। ভালোবাসা দিবসে আমার ১৫ হাজার টাকা লোকসান হয়ে গেল।

আকরামুল ইসলাম/আরএআর/এমএস