মাগুরায় গলায় ফাঁস লাগিয়ে দুইজনের আত্মহত্যা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মাগুরা
প্রকাশিত: ০৩:৫৬ এএম, ০৫ আগস্ট ২০২০

মাগুরায় মঙ্গলবার আসমা সুলতানা (৫৫) এবং রিয়া বিশ্বাস (১১) নামে দুইজন গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। আসমা সুলতানা মাগুরা জজকোর্টের আইনজীবী মিনহাজ উদ্দিনের শাশুড়ি এবং রিয়া মহম্মদপুর উপজেলার বৃহষনগর গ্রামের দরিদ্র ভূমিহীন প্রশান্ত বিশ্বাসের মেয়ে।

মাগুরা সদর থানার এসআই আল এমরান বিপিএম জানান, আসমা সুলতানা খুলনার রূপসা উপজেলার নৈহাটা গ্রামের মৃত গাজী মনিরুল ইসলামের স্ত্রী। স্বামীর মৃত্যুর পর থেকেই তিনি মেয়ে জামাইয়ের বাড়ি মাগুরা শহরের দোয়ারপাড়ায় বসবাস করতেন।

মঙ্গলবার সকালে মেয়ে গোসল করছেন এমন সময় আসমা সুলতানা অ্যাডভোকেট মিনহাজের দুটি শিশু সন্তানকে নিয়ে একটি ঘরের মধ্যে ঢুকে গলায় ফাঁস দেন। ঘরের মধ্যে আটকেপড়া শিশু দুটি কান্নাকাটি শুরু করলে বাড়ির অন্যান্যরা বিষয়টি জানতে পেরে পুলিশকে খবর দেয়। পরে দরজা ভেঙে মৃত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করা হয়।

নিজের সন্তান এবং শ্বশুর বাড়ির নানা বিষয় নিয়ে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত থাকায় আসমা সুলতানা আত্মহত্যা করেছেন বলে তিনি উল্লেখ করেন। অপরদিকে দুপুরে মহম্মদপুর উপজেলার বাবুখালি ইউনিয়নের বৃহষনগর গ্রামে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী রিয়া (১১) পেটের ব্যথা সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করেছে বলে জানা গেছে।

প্রতিবেশিরা জানায়, ভূমিহীন দরিদ্র পরিবারের এই মেয়েটি বেশ কিছুদিন ধরে শারীরিক সমস্যায় ভুগছিল। প্রায়ই সে পেটের ব্যথায় অসুস্থ পড়ত। দুপুরে অন্যান্যরা বাড়ির বাইরে গেলে মেয়েটি ঘরের আড়ার সঙ্গে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে।

মহম্মদপুর থানার ওসি তারক বিশ্বাস মেয়েটির শারীরিক অসুস্থতার কথা নিশ্চিত করেছেন। উভয় ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থানায় পৃথক পৃথক দুটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে।

মো. আরাফাত হোসেন/এমআরএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]