মোরেলগঞ্জে বিষাক্ত খাবার খেয়ে বৃদ্ধের মৃত্যু, ৪ জন হাসপাতালে

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি বাগেরহাট
প্রকাশিত: ০৯:৪৬ পিএম, ২০ মে ২০২১

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে বিষাক্ত খাবার খেয়ে সুবোধ দাস (৭৯) নামে এক বৃদ্ধ মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার (২০ মে) দুপুরে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। তিনি মোরেলগঞ্জ উপজেলার বলভাদ্রপুর গ্রামের কেশব লাল দাসের ছেলে।

এর আগে বুধবার (১৯) রাতে খাবার খাওয়ার পর সুবোধ দাস, তার স্ত্রী সীমা দাস (৭০), পুত্রবধূ রুনু দাস (৩৫), নাতি সঞ্জিব দাস (১২) এবং প্রতিবেশী বাসচালক মহাদেব দাস (৫০) অসুস্থ হয়ে পড়েন। হাসপাতালে নেয়ার পথে সুবোধ দাসের মৃত্যু হয়। বাকিরা বাগেরহাট সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

সুবোধ দাসের স্বজন ও বনগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রিপন দাস বলেন, বুধবার রাতে সুবোধ দাসের ছেলে বিদ্যুৎ দাস বলভাদ্রপুর বাজারে ছিলেন। বাড়ি ফিরতে দেরি হওয়ায় সুবোধ দাস, তার স্ত্রী, পুত্রবধূ ও নাতি সঞ্জিব দাস একসঙ্গে রাতের খাবার খান। খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাদের বমি শুরু হয়। ধীরে ধীরে অচেতন হয়ে পড়তে শুরু করেন তারা। প্রতিবেশীরা টের পেয়ে বিদ্যুৎকে খবর দেন। পরে তাদের হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসা শেষে খুলনা নেয়ার পথে সুবোধ দাস মারা যান।

তিনি আরও জানান, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সুবোধ দাসের নাতি ও পুত্রবধূর জ্ঞান ফিরেছে। তবে তার স্ত্রীর এখনও জ্ঞান ফেরেনি। বাসচালক মহাদেব হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। যেসব দুষ্কৃতকারী চুরি বা ডাকাতির উদ্দেশ্যে খাবারের সাথে বিষ মেশায়, তাদের ধিক্কার জানাই। তাদের চিহ্নিত করে শাস্তি দিতে হবে।

মহাদেব দাসের ভাগনে চন্দন দাস বলেন, বুধবার রাতে সবার আগে মামা খাবার খান। খাবার খেয়েই তার বমি শুরু হয়। ধীরে ধীরে আরও বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েন মামা। পরে আমরা তাকে হাসপাতালে ভর্তি করি। ওই রাতে বাড়িতে আর কেউ খাবার খায়নি।

বাগেরহাট সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মো. মিরাজুল করিম বলেন, বিষাক্ত খাবার খেয়ে অসুস্থ অবস্থায় প্রথমে চারজন এবং পরে আরও একজন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। তাদের মধ্যে বয়স্ক এক ব্যক্তির অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। অন্য চারজন এখনও হাসপাতালে ভর্তি। তাদের পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

মোরেলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, খুলনায় নেয়ার পথে সুবোধ দাস নামের এক ব্যক্তি মারা গেছেন। আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে। রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। রাতের খাবার খাওয়ার পরই অসুস্থ হয়ে পড়েন তারা। তবে সুবোধের বাড়ি থেকে কোনো মালামাল চুরি বা খোয়া যায়নি।

এমএসএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]