মেয়ের উত্ত্যক্তের বিচার চাইতে গিয়ে বাবার মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বগুড়া
প্রকাশিত: ০৯:০৯ পিএম, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১
ফাইল ছবি

বগুড়ার শাজাহানপুরে মেয়ের উত্ত্যক্তের বিচার চাইতে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কাছে যাওয়ার পথে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ইয়াছিন আলী (৫৫) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে বগুড়া পৌরসভার মাদলা তিনমাথা এলাকায় চাতালের সামনে এ ঘটনা ঘটে। সন্ধ্যায় নিহতের ছেলে আবুল কালাম আজাদ বাদী মামলা করেছেন।

নিহত ইয়াছিন আলী পৌরসভার ২১ নম্বর ওয়ার্ডের মাদলা পূর্বপাড়ার মৃত কাসেম আলীর ছেলে। তিনি পেশায় একজন কৃষক।

মামলার বাদী আবুল কালাম বলেন, বসতবাড়ির পাশে একটি পুকুরে আমি মাছ চাষ করি। কিন্তু ওই পুকুরে যাওয়ার রাস্তায় প্রতিবেশী জাহিদুল ইসলাম (২৮) ও তার মামা বুলু প্রামাণিক ওরফে নারু (৬০) বাঁশের বেড়া দেন। এনিয়ে দ্বন্দ্ব শুরু হয়। এর জেরে জাহিদুল ও তার সহযোগীরা রোববার বিকেলে আমার বড় বোনকে রাস্তায় উত্ত্যক্ত করেন। প্রতিবাদ করলে জাহিদুল ও তার সহযোগীরা তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেন। এনিয়ে বাবা ইয়াছিন আলী আতঙ্কগ্রস্ত ছিলেন। সোমবার সকালেও উত্ত্যক্তকারীরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আবারও বাবাকে ভয়ভীতি দেখান। পরে তিনি স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কাছে বিচার দেওয়ার জন্য বাইসাইকেল নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। পথে মাদলা তিনমাথা এলাকায় চাতালের সামনে রাস্তার ওপর মাথা ঘুরে পড়ে যান।

খবর পেয়ে স্থানীয়রা তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। উত্ত্যক্তকারীদের ভয়ভীতির কারণেই বাবা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

এ বিষয়ে বগুড়া পৌরসভার ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল কুদ্দুস ডিলু জানান, পুকুর নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব রয়েছে। স্থানীয়ভাবে মীমাংসার চেষ্টাও করা হয়েছে। উত্ত্যক্তের বিষয়ে তাকে কিছু জানানো হয়নি। তবে লোকমুখে শুনেছেন।

শাজাহানপুর থানার ওসি (তদন্ত) নান্নু খান বলেন, অভিযোগ হয়েছে। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শজিমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]