পীরগঞ্জের ঘটনায় শিবিরকর্মীসহ গ্রেফতার আরও দুই

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি রংপুর
প্রকাশিত: ০৪:৩৯ পিএম, ২৫ অক্টোবর ২০২১
প্রতীকী ছবি

রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দুপল্লীতে সহিংসতার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে শিবিরকর্মীসহ দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার (২৪ অক্টোবর) দিনগত রাতে একজনকে গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর ধাপের হাট থেকে অন্যজনকে পীরগঞ্জের রামনাথপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গ্রেফতাররা হলেন- আবদুল্লাহ আল মামুন (২৩) ও ওমর ফারুক ওরফে টনেট (২৪)। আবদুল্লাহ আল মামুন গাইবান্ধার সাদুল্যাপুরের ধাপের হাট এলাকার জাবেদ আলী মণ্ডলের ছেলে। ওমর ফারুক পীরগঞ্জের রামনাথপুর এলাকার আব্দুল খালেক মিয়ার ছেলে।

রংপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) বিপ্লব কুমার সরকার জানান,২০১২ সাল থেকে আবদুল্লাহ আল মামুন সাদুল্লাহপুরে শিবিরের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। পরে কিছুদিন মালয়েশিয়ায় ছিলেন। আর ওমর ফারুক পীরগঞ্জ দক্ষিণ বাসস্ট্যান্ড এলাকার একটি মসজিদের ইমাম। ঘটনার রাতে পেট্রোল নিয়ে মোটরসাইকেলে করে তারা সাদুল্যাপুর থেকে পীরগঞ্জে এসে হামলায় অংশ নেন।

এদিকে পীরগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সরেষ চন্দ্র জানান, পীরগঞ্জের বড় করিমপুর মাঝিপাড়া গ্রামে সংঘটিত সহিংসতার ঘটনায় চারটি মামলা হয়েছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তিনটি ও হামলা-ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় এখন পর্যন্ত ৬৬ জন গ্রেফতার হয়েছেন।

এদের মধ্যে ফেসবুকে আপত্তিকর পোস্ট দেওয়া ও সহিংসতার ঘটনা উসকে দেওয়ার অন্যতম হোতা পরিতোষ সরকার, উজ্জ্বল হোসেন, বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেতা সৈকত মণ্ডল ও মসজিদের ইমাম রবিউল ইসলামসহ অনেকেই রয়েছেন। তারা আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

এর আগে ১৭ অক্টোবর (রোববার) রাতে ফেসবুকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে পীরগঞ্জের রামনাথপুর ইউনিয়নের বড়করিমপুর মাঝিপাড়া গ্রামে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে হামলা-ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। এতে অন্তত ৫০ বাড়িঘরে ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়েছে।

জিতু কবীর/আরএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]