লক্ষ্মীপুরে দুই মাদক কারবারির ২২ বছরের কারাদণ্ড

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি লক্ষ্মীপুর
প্রকাশিত: ০৩:০৮ পিএম, ২৭ জুন ২০২২

লক্ষ্মীপুরে দুই মাদক কারবারির ২২ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের পৃথক জরিমানা ও অনাদায়ে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

সোমবার (২৭ জুন) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ রহিবুল ইসলাম পৃথক মামলায় এ আদেশ দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- রহমত উল্যা ও মাহবুব আলম। আদালত রহমত উল্যাকে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। একই সঙ্গে তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক ছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়। অপরদিকে মাহবুব আলমকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

দণ্ডপ্রাপ্ত রহমত উল্যা রামগঞ্জ উপজেলার সোনাপুর গ্রামের মৃত লাল মিয়ার ছেলে ও মাহবুব সদর উপজেলার দক্ষিণ হামছাদী ইউনিয়নের গোপীনাথপুর গ্রামের মৃত আবদুল মান্নানের ছেলে।

আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) জসিম উদ্দিন জানান, ২০১৮ সালের ২৩ জুন রামগঞ্জ থানার এসআই পঙ্কজ কুমার সাহা সিএনজি অটোরিকশাযোগে টহল দিচ্ছিলেন। এসময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার উত্তর শ্রীরামপুর গ্রাম থেকে ৭০০ পিস ইয়াবাসহ রহমত উল্যাকে আটক করা হয়। একইদিন এসআই পঙ্কজ কুমার সাহা বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। পরদিন তাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়। একই বছর ১৪ আগস্ট তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মুহাম্মদ কাওসারুজ্জামান তার বিরুদ্ধে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন। ৫ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ ও দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত তাকে ১৫ বছর কারাদণ্ড দেয়।

অন্যদিকে ২০১৮ সালের ৩ সেপ্টেম্বর বিকেলে র‌্যাব-১১ এর টহল টিম সদর উপজেলার পালেরহাট এলাকা থেকে মাদক ব্যবসায়ী মাহবুবকে ৮৭ পিস ইয়াবাসহ আটক করে। একইদিন র‌্যাবের লক্ষ্মীপুর ক্যাম্পের নায়েব সুবেদার (ডিএডি) মো. মিরাজ উদ্দিন বাদী হয়ে সদর মডেল থানায় তার বিরুদ্ধে মামালা করেন। ৩০ সেপ্টেম্বর তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবদুল আলীম আদালতে মাহবুবের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করে। ১০ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ ও দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত তাকে সাত বছর কারাদণ্ড দেন।

কাজল কায়েস/আরএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]