৩০ মাস ধরে বন্ধ সোনা মসজিদ ইমিগ্রেশন

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি চাঁপাইনবাবগঞ্জ
প্রকাশিত: ০৬:৫৩ পিএম, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২

করোনার পর সড়ক পথে ট্যুরিস্ট ভিসা চালু হলেও চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থলবন্দর দিয়ে প্রায় ৩০ মাস ধরে ভারত যেতে পারছে না পাসপোর্টধারীরা। এতে একদিকে যেমন সময় ও অর্থ ব্যয় হচ্ছে, অন্যদিকে বেড়েছে ভোগান্তিও।

বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে এ তথ্য জানিয়েছেন সোনামসজিদ স্থলবন্দর ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাফর ইকবাল।

তিনি জানান, করোনাভাইরাসের কারণে ২০২০ সালের ১৫ মার্চ সোনামসজিদ ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে যাত্রী পারাপার বন্ধ রাখা হয়। সেই থেকে আর চালু হয়নি। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে অনেকে।

ইমিগ্রেশন চালু করতে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের পূর্ণ প্রস্তুতি রয়েছে। তবে ভারতীয় বিদেশ মন্ত্রণালয়ের কোনো কিছু না জানানোয় সোনামসজিদ-মহদিপুর ইমিগ্রেশন চালু হয়নি। ফলে এ এলাকার মানুষ ভোগান্তি নিয়ে বেনাপোল দিয়েই ভারত যাচ্ছে।

তবে বিশেষ সুপারিশ নিয়ে ভারত থেকে এ বন্দর ব্যবহার করে বাংলাদেশে আসতে পারছেন যাত্রীরা। কিন্তু ভারতে যেতে পারছেন না কেউ।

রাফিকুল নামে এক পাসপোর্টধারী জাগো নিউজকে জানান, যোগাযোগ সুবিধার কারণে সোনামসজিদ-মহদিপুর পথে চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ আশপাশের জেলার যাত্রীরা সহজেই ভারতে আসা-যাওয়া করতো। কিন্তু এ রুট বন্ধ থাকায় তারা ভোগান্তিতে পাড়েছেন না। দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে বেনাপোল হয়ে ভারতে যেতে হচ্ছে। এতে সময় ও অর্থ নষ্ট হচ্ছে।

সোনামসজিদ স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ড অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ জানান, করোনার সময় থেকেই সোনামসজিদ ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে যাত্রী যাতায়াত বন্ধ রয়েছে। তবে মাঝে মাঝে ভারত থেকে বাংলাদেশে কিছু যাত্রী আসতে দেখা যায়। তবে এ রুটে ভারত থেকে পণ্য আমদানি চলমান রয়েছে।

২০২০ সালের ১৫ মার্চ সারাদেশে করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় সোনামসজিদ ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে যাত্রী যাতায়াত বন্ধ করা হয়। সে হিসেবে প্রায় দুইবছর ছয়মাস ১৪ দিন থেকে বন্ধ রয়েছে এ চেকপোস্ট।

সোহান মাহমুদ/এএইচ/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।