দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ কোনটি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি বান্দরবান
প্রকাশিত: ০৫:৩১ পিএম, ২৪ নভেম্বর ২০২২

দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ নির্ধারণ করবে জরিপ অধিদপ্তর। শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) থেকে অধিদপ্তরের ৩৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল কাজ শুরু করবে।

পাহাড়ে ভ্রমণকারীরা দীর্ঘদিন ধরে দাবি করে আসছেন তাজিংডং নয়, সাকা হাফং বা মদক তং দেশের সবচেয়ে উঁচু পর্বতশৃঙ্গ। এ বিতর্ক নিরসনে জরিপ অধিদপ্তর থেকে দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ নির্ণয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বান্দরবানের দুর্গম রুমা উপজেলায় অবস্থিত কেওক্রাডংকে এক সময় দেশের সর্বোচ্চ পাহাড় হিসেবে ধরা হতো। বর্তমানে তাজিংডং পাহাড়কে সর্বোচ্চ বলা হচ্ছে।

প্রশাসন সূত্র জানায়, জরিপ দলের সদস্যরা ৪০ দিন ধরে বান্দরবানের রুমা ও থানচি উপজেলার পাহাড়গুলো পরিমাপ করে সর্বোচ্চ পাহাড়ের শীর্ষ বিন্দু নির্ণয় করবেন। দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ বান্দরবানের তাজিংডং নাকি সাকা হাফং জরিপের মধ্য দিয়ে সে বিতর্কও নিরসন হবে।

jagonews24

সূত্র আরও জানায়, দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ নির্ধারণ ও সরকারিভাবে পর্বতের উচ্চতা পরিমাপের জন্য ২০২২ সালের ১৭ মে বান্দরবানের জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি জরিপ অধিদপ্তরের সার্ভেয়ার জেনারেল অব বাংলাদেশের কাছে একটি চিঠি পাঠান। ওই পত্রে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ নির্ধারণ ও অন্যান্য পর্বতগুলোকে সরকারিভাবে পরিমাপ করে গেজেট প্রণয়নের জন্য অনুরোধ জানানো হয়। পত্রের পরিপ্রেক্ষিতে সম্মতি প্রকাশ করে সম্প্রতি জরিপ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (জরিপ) দেবাশীষ সরকার বান্দরবানের জেলা প্রশাসককে একটি পত্র পাঠান এবং বান্দরবানে এসে থানচি ও রুমা এলাকার পাহাড়সহ দুর্গম এলাকায় অবস্থিত পাহাড়গুলো পরিমাপের কথা জানান।

ওই চিঠিতে জরিপ দলের সদস্যরা প্রিসিশন টোটাল স্টেশন, আরটিকে-জিপিএস, স্ট্যাটিক জিপিএস, হ্যান্ড হেল্ড জিপিএস, আরটিকে রেডিও লিংক লেভেল মেশিনসহ উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে পাহাড়ের গড় উচ্চতা নির্ণয় করবেন।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সুরাইয়া আক্তার সুইটি জানান, জরিপ অধিদপ্তরের উপ-সহকারী তত্ত্বাবধায়ক এরশাদুল হক মণ্ডলের নেতৃত্বে ৩৫ জনের একটি দল থানচি ও রুমায় বিভিন্ন পাহাড়ের উচ্চতা পরিমাপ করবেন।

নয়ন চক্রবর্তী/আরএইচ/জিকেএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।