ট্রান্সশিপমেন্টে কমবে রফতানি বাণিজ্য, শঙ্কা ব্যবসায়ীদের

আজিজুল সঞ্চয়
আজিজুল সঞ্চয় আজিজুল সঞ্চয় ব্রাহ্মণবাড়িয়া
প্রকাশিত: ১০:০৪ পিএম, ০১ আগস্ট ২০২০

দেশের অন্যতম বৃহৎ ও রফতানিমুখী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দর রফতানি বাণিজ্যে বারবার হোঁচট খাচ্ছে। ভারত থেকে পণ্য আমদানি না হওয়ায় এই স্থলবন্দর দিয়ে সরকারের রাজস্ব আদায় নেই বললেই চলে। তবে রফতানি করা পণ্যের বিপরীতে বৈদেশিক মুদ্রার রেমিট্যান্স পায় সরকার।

প্রাণঘাতী করোনা মহামারির প্রভাবে বর্তমানে এই বন্দর দিয়ে রফতানি কার্যক্রম প্রায় বন্ধ। এছাড়া ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোর মধ্যকার যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি হওয়ায় গত তিন-চার বছর ধরে বাংলাদেশ থেকে পণ্য আমদানির পরিমাণও কমেছে দেশটি। নতুন করে তাদের ট্রান্সশিপমেন্ট সুবিধা দেয়ায় বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের কপালে চিন্তার ভাঁজ দেখা দিয়েছে।

তাদের শঙ্কা, ভারতকে ট্রান্সশিপমেন্ট সুবিধা দেয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হবেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। এই বন্দর দিয়ে রফতানি বাণিজ্যে নতুন করে সংকট দেখা দেবে। কারণ ব্যাখা করে তারা বলেন, বাংলাদেশের বন্দর ব্যবহার করে নিজেদের উচ্চ চাহিদাসম্পন্ন পণ্য সহজে নিজ দেশে পরিবহন করতে পারবেন ভারতীয় ব্যবসায়ীরা।

Akhaura-Land-Port

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নব্বইয়ের দশকে প্রথম আখাউড়া স্থল শুল্ক স্টেশন দিয়ে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের রাজধানী আগরতলায় পণ্য রফতানি শুরু করেন বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা। এরপর ২০১০ সালের ১৩ আগস্ট পূর্ণাঙ্গ স্থলবন্দর হিসেবে আত্মপ্রকাশের পর প্রতিদিন কয়েক কোটি টাকার রড, সিমেন্ট, পাথর, কয়লা, প্লাস্টিক, মাছ, শুঁটকি, তুলা ও ভোজ্যতেলসহ অর্ধশতাধিক পণ্য রফতানি হয় ভারতে। তখন প্রতিদিন প্রায় ৩০০ পণ্যবোঝাই ট্রাক প্রবেশ করতো আগরতলা দিয়ে। এসব পণ্য আগরতলা থেকে দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোতে সরবরাহ করা হতো।

তবে গত তিন-চার বছর ধরে আখাউড়া স্থলবন্দরের রফতানি বাণিজ্যে ধস নেমেছে। ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোতে সড়ক ও রেলপথে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির ফলে ধীরে ধীরে পণ্য আমদানি কমিয়ে দেয় সেখানকার ব্যবসায়ীরা। বড় ব্যবসায়ীরা এখন বাংলাদেশ থেকে পাথর আমদানি করেন না। শিলং থেকে ট্রেনে পাথর সরবরাহ করছেন তারা। শুধুমাত্র ছোট ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশ থেকে পাথর আমদানি করেন।

Akhaura-Land-Port

এছাড়া করোনাভাইরাসের নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে স্থলবন্দরের রফতানি বাণিজ্যে। করোনার প্রাদুর্ভাব শুরুর আগে প্রতিদিন গড়ে এক-দেড়শ পণ্যবোঝাই ট্রাক আগরতলায় প্রবেশ করলেও করোনাভাইরাসের প্রকোপ শুরু হওয়ার পর দুই দফায় কয়েকদিন করে আমদানি কার্যক্রম বন্ধ রেখে গড়ে ৪০টি পণ্যবোঝাই ট্রাক প্রবেশের অনুমতি দেয় আগরতলা স্থলবন্দর ও কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। তবে এখন বর্ষা মৌসুম হওয়ায় এবং করোনাভাইরাসের প্রভাবে ভারতে কন্সট্রাকশন কাজ বন্ধ থাকায় পণ্যের চাহিদা কমেছে। এখন গড়ে প্রতিদিন ২০-২৫ ট্রাক পণ্য যাচ্ছে আগরতলায়।

রড, পাথর ও মাছ রফতানি কার্যক্রম একেবারে বন্ধ রয়েছে এখন। সিমেন্টসহ অন্যান্য পণ্য রফতানিও কমে গেছে। এখন ভোজ্যতেল, খাদ্যসামগ্রী, প্লাস্টিক ও তুলাসহ কিছু পণ্য স্বল্প পরিমাণে রফতানি হচ্ছে।

আখাউড়া স্থলবন্দরের কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, ভারতের বাজারে বাংলাদেশি রড-সিমেন্টের চাহিদা সবচেয়ে বেশি। রফতানি বাণিজ্যে ধস নামার পরও প্রতি মাসে ৩০০ টন রড ও এক লাখ বস্তা সিমেন্ট রফতানি হতো ভারতে। প্রতি মাসে গড়ে ১৫ লাখ ডলার মূল্যের ভোজ্যতেল, ১০ লাখ ডলারের মাছ, ৫০-৬০ হাজার ডলারের প্লাস্টিক যেত আগরতলায়। এখন রড, কয়লা ও মাছ রফতানি বন্ধ। সিমেন্টও যাচ্ছে আগের চেয়ে অর্ধেক।

Akhaura-Land-Port

আখাউড়া স্থল শুল্ক স্টেশনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে দুই লাখ ১১ হাজার ৫১৭ টন পণ্য রফতানি হয়। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে রফতানি হয় দুই লাখ নয় হাজার ৯৬২ টন পণ্য আর ২০১৯-২০ অর্থবছরে ভারতে গেছে এক লাখ ৪১ হাজার ৬৪৭ টন পণ্য।

এদিকে, বাংলাদেশের বন্দর ব্যবহার করে গত ২৩ জুলাই ট্রান্সশিপমেন্টের প্রথম চালান গেছে আগরতলায়। আসামের গৌহাটি ও আগরতলার দুটি প্রতিষ্ঠানের জন্য প্রথম চালানে ৫৩.২৫ মেট্রিক টন রড ও ৪৯.৮৩ মেট্রিক টন ডাল পরিবহন করা হয়।

বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের মতে, ট্রান্সশিপমেন্টের মাধ্যমে ভারতকে যদি রড ও সিমেন্টের মতো উচ্চ চাহিদাসম্পন্ন পণ্য সরবরাহের সুযোগ দেয়া হয় তাহলে আখাউড়া স্থলবন্দরের রফতানি বাণিজ্যে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। স্থলবন্দরকে আগের মতো চাঙা করতে ভারত থেকে নিষিদ্ধ পণ্য ব্যতীত সবধরনের পণ্য আমদানির অনুমতি দেয়ার দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ী নেতারা।

আখাউড়া স্থলবন্দরের কাস্টমস ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরওয়ার্ডিং (সিঅ্যান্ডএফ) এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ফোরকান আহমেদ খলিফা বলেন, আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে সরাসরি পণ্য রফতানি হতো। এখন কলকাতা থেকে ট্রান্সশিপমেন্টের মাধ্যমে নেয়া হচ্ছে। সেদিক বিবেচনা করলে বন্দরের রফতানি বাণিজ্যে কিছুটা প্রভাব পড়ে। রফতানি করলে আমাদের রেমিট্যান্স আসে। এখন সরাসরি নিজেরা নিয়ে যাচ্ছে। এতে আমাদের ক্ষতি হলো।

Akhaura-Land-Port

আখাউড়া স্থলবন্দরের আমদানি-রফতানিকারক অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম বলেন, যদি ট্রান্সশিপমেন্টের মাধ্যমে রড ও সিমেন্ট পরিবহন কার্যক্রম অব্যাহত থাকে তাহলে স্থলবন্দরের রফতানি বাণিজ্যে ব্যাঘাত ঘটবে। যেহেতু পরীক্ষামূলক চালান, তাই আমরা পর্যবেক্ষণ করছি বিষয়টি।

তিনি আরও বলেন, করোনাভাইরাস এবং বর্ষা মৌসুমের কারণে পণ্যের চাহিদা অর্ধেকের কম। এখন গড়ে ৬০-৭০ হাজার ডলার মূল্যের পণ্য রফতানি হচ্ছে। বন্দর টিকিয়ে রাখতে আমরা নিষিদ্ধ পণ্য ব্যতীত সবধরনের পণ্য আমদানির অনুমতি চাই।

এ ব্যাপারে আখাউড়া স্থল শুল্ক স্টেশনের উপ-কমিশনার কাজী ইরাজ ইশতিয়াক বলেন, এখন ভারত থেকে ৩০টির মতো পণ্য আমদানির সুযোগ আছে। ব্যবসায়ীরা আরও কিছু পণ্য আমদানির অনুমতি চান। চাহিদা অনুযায়ী পণ্য আমদানির অনুমতি চেয়ে ব্যবসায়ীরা সরকারের উচ্চপর্যায়ে যোগাযোগ করেছেন। আমাদের কাছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড থেকে এখানকার সামগ্রিক বিষয়ে মতামত জানতে চাওয়া হয়েছে। বর্তমানে বন্দরের যে অবকাঠামো আছে, সেটি দিয়ে আমরা কতটুকু কাভার করতে পারব বা আমাদের কোনো সমস্যা হবে কি-না, আমরা সেই মতামত জানিয়েছি। পণ্য আমদানির অনুমতি সরকারের উচ্চপর্যায় থেকে আসবে। তবে আগের চেয়ে আরও কিছু পণ্য আমদানির অনুমতি দেয়া হয়েছে।

আজিজুল সঞ্চয়/এএম/এমএআর/পিআর

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

১১,৫৭,২৫,৯৯১
আক্রান্ত

২৫,৭০,০৩৯
মৃত

৯,১৩,৭৫,৯২০
সুস্থ

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ
বাংলাদেশ ৫,৪৭,৯৩০ ৮,৪২৮ ৪,৯৯,৬২৭
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ২,৯৪,৪৬,২২৩ ৫,৩১,৪০৭ ১,৯৯,৯৭,৯৮৩
ভারত ১,১১,৫৬,৭৪৮ ১,৫৭,৪৭১ ১,০৮,২৪,২৩৩
ব্রাজিল ১,০৭,১৮,৬৩০ ২,৫৯,২৭১ ৯৫,২৭,১৭৩
রাশিয়া ৪২,৭৮,৭৫০ ৮৭,৩৪৮ ৩৮,৫৩,৭৩৪
যুক্তরাজ্য ৪১,৯৪,৭৮৫ ১,২৩,৭৮৩ ৩০,০৫,৭২০
ফ্রান্স ৩৮,১০,৩১৬ ৮৭,৫৪২ ২,৬১,২৮৯
স্পেন ৩২,০৪,৫৩১ ৭০,২৪৭ ২৭,২২,৩০৪
ইতালি ২৯,৭৬,২৭৪ ৯৮,৬৩৫ ২৪,৪০,২১৮
১০ তুরস্ক ২৭,৩৪,৮৩৬ ২৮,৭৭১ ২৫,৯৩,২৬৪
১১ জার্মানি ২৪,৭২,৮৩৬ ৭১,৭১১ ২২,৭৪,৪০০
১২ কলম্বিয়া ২২,৬২,৬৪৬ ৬০,০৮২ ২১,৬০,৫৫৫
১৩ আর্জেন্টিনা ২১,২৬,৫৩১ ৫২,৪৫৩ ১৯,২১,৫৮৯
১৪ মেক্সিকো ২০,৯৭,১৯৪ ১,৮৭,১৮৭ ১৬,৪৫,৩১২
১৫ পোল্যান্ড ১৭,৩৫,৪০৬ ৪৪,৩৬০ ১৪,৪১,৪৭৯
১৬ ইরান ১৬,৫৬,৬৯৯ ৬০,৩৫৩ ১৪,১৩,৭১৭
১৭ দক্ষিণ আফ্রিকা ১৫,১৬,২৬২ ৫০,৩৬৬ ১৪,৩৪,৭৭২
১৮ ইউক্রেন ১৩,৬৪,৭০৫ ২৬,৩৯৭ ১১,৮২,০৩৬
১৯ ইন্দোনেশিয়া ১৩,৫৩,৮৩৪ ৩৬,৭২১ ১১,৬৯,৯১৬
২০ পেরু ১৩,৩৮,২৯৭ ৪৬,৮৯৪ ১২,৪৪,০২৯
২১ চেক প্রজাতন্ত্র ১২,৬৯,০৫৮ ২০,৯৪১ ১০,৯৩,৫৩৭
২২ নেদারল্যান্ডস ১১,০১,৪৩০ ১৫,৬৯৭ ২৫০
২৩ কানাডা ৮,৭৪,৬১৫ ২২,০৮৬ ৮,২২,৫৮৭
২৪ চিলি ৮,৩৫,৫৫২ ২০,৭০৪ ৭,৯০,৫২৮
২৫ রোমানিয়া ৮,১২,৩১৮ ২০,৫৮৬ ৭,৪৬,৭৭৯
২৬ পর্তুগাল ৮,০৬,৬২৬ ১৬,৪৩০ ৭,২৫,৩৯৯
২৭ ইসরায়েল ৭,৮৯,৪৮৫ ৫,৮০৩ ৭,৪১,১৬৭
২৮ বেলজিয়াম ৭,৭৪,৩৪৪ ২২,১৪১ ৫২,৬৩৭
২৯ ইরাক ৭,০৮,৯৫১ ১৩,৪৮৩ ৬,৪৬,৬১৯
৩০ সুইডেন ৬,৭৫,২৯২ ১২,৯৬৪ ৪,৯৭১
৩১ পাকিস্তান ৫,৮৩,৯১৬ ১৩,০১৩ ৫,৫৪,২২৫
৩২ ফিলিপাইন ৫,৮২,২২৩ ১২,৩৮৯ ৫,৩৪,৭৭৮
৩৩ সুইজারল্যান্ড ৫,৫৯,৮৪৫ ১০,০১৪ ৫,১৫,১৮৮
৩৪ মরক্কো ৪,৮৪,৭৫৩ ৮,৬৫৩ ৪,৭০,৪২৫
৩৫ সার্বিয়া ৪,৭০,৯৪১ ৪,৪৯১ ৪,০০,৩৪৭
৩৬ অস্ট্রিয়া ৪,৬৫,৩২২ ৮,৬২৫ ৪,৩৫,৬৬৯
৩৭ হাঙ্গেরি ৪,৩৯,৯০০ ১৫,৩২৪ ৩,২৬,২১৫
৩৮ জাপান ৪,৩৪,৩৫৬ ৭,৯৮৪ ৪,১৩,৩৩৪
৩৯ জর্ডান ৪,০৭,৬১৭ ৪,৭৯৩ ৩,৫৫,৭৮১
৪০ সংযুক্ত আরব আমিরাত ৩,৯৯,৪৬৩ ১,২৬৯ ৩,৮৫,৫৮৭
৪১ লেবানন ৩,৮৩,৪৯৯ ৪,৮৬৬ ২,৯৮,৪০৬
৪২ সৌদি আরব ৩,৭৮,৩৩৩ ৬,৫১০ ৩,৬৯,২৭৭
৪৩ পানামা ৩,৪২,০১৯ ৫,৮৭১ ৩,২৮,১০০
৪৪ স্লোভাকিয়া ৩,১৪,৩৫৯ ৭,৪৮৯ ২,৫৫,৩০০
৪৫ মালয়েশিয়া ৩,০৫,৮৮০ ১,১৪৮ ২,৮০,৭০৭
৪৬ বেলারুশ ২,৯০,৪৪৭ ২,০০২ ২,৮০,৭৬৬
৪৭ ইকুয়েডর ২,৮৯,৪৭২ ১৫,৯২১ ২,৪৭,৮৯৮
৪৮ নেপাল ২,৭৪,৩৮১ ২,৭৭৮ ২,৭০,৬০৫
৪৯ জর্জিয়া ২,৭১,৭৩৯ ৩,৫৪১ ২,৬৫,৮০৫
৫০ বুলগেরিয়া ২,৫২,০২৯ ১০,৩৯১ ২,০৮,৪১১
৫১ বলিভিয়া ২,৫০,৫৫৭ ১১,৭০৩ ১,৯৪,৩৭০
৫২ ক্রোয়েশিয়া ২,৪৪,২০৫ ৫,৫৫৫ ২,৩৫,৩২৮
৫৩ ডোমিনিকান আইল্যান্ড ২,৪০,৭৭৩ ৩,১৩০ ১,৯৩,৪৩৩
৫৪ আজারবাইজান ২,৩৫,৩৩৩ ৩,২৩০ ২,২৯,১৪৩
৫৫ তিউনিশিয়া ২,৩৫,০০৮ ৮,০৭৪ ২,০০,২২৯
৫৬ আয়ারল্যান্ড ২,২১,১৮৯ ৪,৩৫৭ ২৩,৩৬৪
৫৭ কাজাখস্তান ২,১৪,৮০৬ ২,৫৪০ ১,৯৮,৭২৬
৫৮ ডেনমার্ক ২,১২,৭৯৮ ২,৩৭০ ২,০৩,৪৩৩
৫৯ কোস্টারিকা ২,০৫,৫১৪ ২,৮২০ ১,৮৩,৯১১
৬০ লিথুনিয়া ২,০০,৩৪৯ ৩,২৮১ ১,৮৬,২০৯
৬১ গ্রীস ১,৯৭,২৭৯ ৬,৫৯৭ ১,৬৯,৫২৫
৬২ কুয়েত ১,৯৪,৭৮১ ১,০৯৭ ১,৮২,১৯৬
৬৩ স্লোভেনিয়া ১,৯২,২৬৬ ৩,৮৭৪ ১,৭৭,৬৪১
৬৪ মলদোভা ১,৮৯,৩৯৭ ৪,০২৬ ১,৬৮,১৪৩
৬৫ ফিলিস্তিন ১,৮৯,৩২৬ ২,০৭৮ ১,৬৯,৯১৫
৬৬ মিসর ১,৮৩,৫৯১ ১০,৭৭৮ ১,৪১,৬৫৫
৬৭ গুয়াতেমালা ১,৭৬,২৫০ ৬,৪২৭ ১,৬৩,০০৯
৬৮ আর্মেনিয়া ১,৭২,৮১৬ ৩,২০২ ১,৬৩,৯০৬
৬৯ হন্ডুরাস ১,৭১,৭৫৮ ৪,১৮৭ ৬৬,৯০৩
৭০ কাতার ১,৬৫,০৭১ ২৬০ ১,৫৪,৭৫২
৭১ ইথিওপিয়া ১,৬১,৯৭৪ ২,৩৯১ ১,৩৬,৪৪৩
৭২ প্যারাগুয়ে ১,৬১,৫৩০ ৩,২১৮ ১,৩৫,৩৭৩
৭৩ নাইজেরিয়া ১,৫৬,৪৯৬ ১,৯২৩ ১,৩৪,৫৫১
৭৪ ওমান ১,৪২,৫২৭ ১,৫৮৩ ১,৩৩,১৩৮
৭৫ মায়ানমার ১,৪১,৯৮৪ ৩,১৯৯ ১,৩১,৫৩৯
৭৬ ভেনেজুয়েলা ১,৩৯,৯৩৪ ১,৩৫৩ ১,৩২,০৫২
৭৭ লিবিয়া ১,৩৫,৫৮৫ ২,২১৯ ১,২৩,০০৩
৭৮ বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ১,৩৩,৯৮২ ৫,১৭৪ ১,১৭,৩৯৬
৭৯ বাহরাইন ১,২৪,২৬৯ ৪৫৮ ১,১৭,০২৬
৮০ আলজেরিয়া ১,১৩,৫৯৩ ২,৯৯৬ ৭৮,৫২৪
৮১ আলবেনিয়া ১,০৯,৬৭৪ ১,৮৫৬ ৭২,০৭৬
৮২ কেনিয়া ১,০৬,৮০১ ১,৮৬৬ ৮৬,৯১৪
৮৩ উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ১,০৪,৫৪৮ ৩,১৫৬ ৯২,১৮৯
৮৪ দক্ষিণ কোরিয়া ৯০,৮১৬ ১,৬১২ ৮১,৭০০
৮৫ চীন ৮৯,৯৩৩ ৪,৬৩৬ ৮৫,১১১
৮৬ লাটভিয়া ৮৮,০২২ ১,৬৫৪ ৭৭,১৩৫
৮৭ কিরগিজস্তান ৮৬,৩৫৬ ১,৪৯৮ ৮৩,৩১৮
৮৮ ঘানা ৮৪,৩৪৯ ৬১১ ৭৮,৪৪৩
৮৯ শ্রীলংকা ৮৪,২২৬ ৪৮৪ ৮০,৪৩৭
৯০ জাম্বিয়া ৮০,০৯০ ১,১০৮ ৭৬,২৯৯
৯১ উজবেকিস্তান ৮০,০০৬ ৬২২ ৭৮,৫৪৯
৯২ মন্টিনিগ্রো ৭৭,৪৯৩ ১,০৩১ ৬৭,৬৮৭
৯৩ নরওয়ে ৭২,৬৫৩ ৬৩২ ৬৬,০১৪
৯৪ এস্তোনিয়া ৬৯,১৯৩ ৬১৫ ৫০,৬৪০
৯৫ এল সালভাদর ৬০,৪৯১ ১,৮৭৮ ৫৬,৩৩৯
৯৬ মোজাম্বিক ৬০,৩৯৫ ৬৬৮ ৪৪,০০২
৯৭ সিঙ্গাপুর ৫৯,৯৭৯ ২৯ ৫৯,৮৪৯
৯৮ ফিনল্যাণ্ড ৫৯,৪৪২ ৭৫৯ ৪৬,০০০
৯৯ উরুগুয়ে ৫৯,১৭১ ৬১৭ ৫১,৩৬৫
১০০ লুক্সেমবার্গ ৫৫,৯০২ ৬৪৩ ৫২,১৮৫
১০১ আফগানিস্তান ৫৫,৭৯৭ ২,৪৪৭ ৪৯,৩৫৯
১০২ কিউবা ৫২,৫০১ ৩৩৩ ৪৭,৬২৬
১০৩ উগান্ডা ৪০,৪০৮ ৩৩৪ ১৫,০৪৯
১০৪ নামিবিয়া ৩৯,২৯৭ ৪৩৪ ৩৬,৯৮০
১০৫ জিম্বাবুয়ে ৩৬,১৭৯ ১,৪৭৮ ৩৩,৩৯২
১০৬ ক্যামেরুন ৩৫,৭১৪ ৫৫১ ৩২,৫৯৪
১০৭ সাইপ্রাস ৩৫,২৯৭ ২৩২ ২,০৫৭
১০৮ সেনেগাল ৩৫,০৩৭ ৮৯৬ ২৯,৬২০
১০৯ আইভরি কোস্ট ৩৩,২৮৫ ১৯৪ ৩২,৬২৪
১১০ মালাউই ৩২,২২৯ ১,০৫৬ ২০,২০৪
১১১ বতসোয়ানা ৩০,৭২৭ ৩৩২ ২৪,৮৮৪
১১২ অস্ট্রেলিয়া ২৮,৯৯৬ ৯০৯ ২৬,১৮৩
১১৩ সুদান ২৮,৫৪৫ ১,৮৯৫ ২৩,০৮৪
১১৪ ড্যানিশ রিফিউজি কাউন্সিল ২৬,২৪৭ ৭১১ ২০,৬০১
১১৫ থাইল্যান্ড ২৬,১০৮ ৮৪ ২৫,৪৮৩
১১৬ জ্যামাইকা ২৪,১০৩ ৪৩৫ ১৩,৭৪৫
১১৭ মালটা ২৩,২২৬ ৩২১ ১৯,৯০৫
১১৮ অ্যাঙ্গোলা ২০,৯২৩ ৫১০ ১৯,৫০৯
১১৯ মালদ্বীপ ২০,২৮০ ৬৩ ১৭,৫৯৫
১২০ মাদাগাস্কার ১৯,৮৩১ ২৯৭ ১৯,২৯৬
১২১ রুয়ান্ডা ১৯,১৯৮ ২৬৫ ১৭,৫৬৯
১২২ ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া ১৮,৪২৯ ১৪০ ৪,৮৪২
১২৩ মায়োত্তে ১৭,৬০০ ১১২ ২,৯৬৪
১২৪ মৌরিতানিয়া ১৭,২৩৫ ৪৪১ ১৬,৬০৬
১২৫ ইসওয়াতিনি ১৭,০৮৬ ৬৫২ ১৪,৮৯৮
১২৬ ফ্রেঞ্চ গায়ানা ১৬,৬২৭ ৮৫ ৯,৯৯৫
১২৭ গিনি ১৬,১৫৪ ৯১ ১৫,০৩৩
১২৮ সিরিয়া ১৫,৭৫৩ ১,০৪৫ ১০,০৩৯
১২৯ কেপ ভার্দে ১৫,৫৫৮ ১৫০ ১৪,৯২১
১৩০ গ্যাবন ১৫,২৫৪ ৮৮ ১৩,৪৯৫
১৩১ তাজিকিস্তান ১৩,৩০৮ ৯০ ১৩,২১৮
১৩২ রিইউনিয়ন ১৩,১২৫ ৫৯ ১১,৯৫৬
১৩৩ হাইতি ১২,৫৩১ ২৫০ ৯,৮২৮
১৩৪ বেলিজ ১২,৩২০ ৩১৫ ১১,৮৭০
১৩৫ বুর্কিনা ফাঁসো ১২,০৪৭ ১৪৩ ১১,৬৩৫
১৩৬ হংকং ১১,০৪৭ ২০০ ১০,৫৭৮
১৩৭ এনডোরা ১০,৯৪৮ ১১২ ১০,৫৬০
১৩৮ লেসোথো ১০,৫২১ ৩০৫ ৩,৮৮৮
১৩৯ গুয়াদেলৌপ ১০,১৪৯ ১৬২ ২,২৪২
১৪০ সুরিনাম ৮,৯৩৯ ১৭৩ ৮,৪২৬
১৪১ কঙ্গো ৮,৮২০ ১২৮ ৭,০১৯
১৪২ গায়ানা ৮,৬৪৮ ১৯৯ ৮,০৪৩
১৪৩ বাহামা ৮,৫৭৩ ১৮১ ৭,৩৯৮
১৪৪ মালি ৮,৪৪৬ ৩৫৭ ৬,৪১৮
১৪৫ দক্ষিণ সুদান ৮,৩০৫ ৯৭ ৪,২১৭
১৪৬ আরুবা ৭,৯৩৮ ৭৪ ৭,৬৯৫
১৪৭ সোমালিয়া ৭,৭২৭ ২৬০ ৩,৮৬৭
১৪৮ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ৭,৭২৩ ১৩৯ ৭,৪৮৫
১৪৯ টোগো ৭,১৮৮ ৮৫ ৫,৯১৮
১৫০ মার্টিনিক ৬,৮১৮ ৪৬ ৯৮
১৫১ নিকারাগুয়া ৬,৪৮৯ ১৭৪ ৪,২২৫
১৫২ ইকোয়েটরিয়াল গিনি ৬,২১০ ৯৩ ৫,৬৯০
১৫৩ জিবুতি ৬,১০২ ৬৩ ৫,৯২০
১৫৪ বেনিন ৬,০৭১ ৭৫ ৪,৯৬৩
১৫৫ আইসল্যান্ড ৬,০৫৮ ২৯ ৬,০১৮
১৫৬ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক ৫,০০৪ ৬৩ ৪,৯২০
১৫৭ নাইজার ৪,৭৪০ ১৭২ ৪,২৫০
১৫৮ কিউরাসাও ৪,৭৪০ ২২ ৪,৬৫৮
১৫৯ গাম্বিয়া ৪,৭৩৫ ১৫১ ৪,১১১
১৬০ জিব্রাল্টার ৪,২৪৩ ৯৩ ৪,১২৭
১৬১ চাদ ৪,০৫৬ ১৪০ ৩,৫৪২
১৬২ চ্যানেল আইল্যান্ড ৪,০৩৯ ৮৬ ৩,৯৩৯
১৬৩ সিয়েরা লিওন ৩,৯০০ ৭৯ ২,৬৫২
১৬৪ সান ম্যারিনো ৩,৮২৯ ৭৫ ৩,৩৪৫
১৬৫ সেন্ট লুসিয়া ৩,৭৭৯ ৩৭ ৩,০৬৭
১৬৬ কমোরস ৩,৫৮০ ১৪৪ ৩,৩৬৯
১৬৭ গিনি বিসাউ ৩,২৮২ ৪৮ ২,৬২৪
১৬৮ বার্বাডোস ৩,১৬৩ ৩৭ ২,৬০৬
১৬৯ মঙ্গোলিয়া ৩,০৩২ ২,৩৬০
১৭০ ইরিত্রিয়া ২,৮৯২ ২,৩৮৪
১৭১ সিসিলি ২,৮৯০ ১৩ ২,৫৩২
১৭২ লিচেনস্টেইন ২,৫৭৭ ৫৪ ২,৪৮৬
১৭৩ ভিয়েতনাম ২,৪৮২ ৩৫ ১,৮৯৮
১৭৪ ইয়েমেন ২,৪৩৬ ৬৬০ ১,৫৮০
১৭৫ নিউজিল্যান্ড ২,৩৮৪ ২৬ ২,২৯৬
১৭৬ বুরুন্ডি ২,২৪০ ৭৭৩
১৭৭ টার্কস্ ও কেইকোস আইল্যান্ড ২,১৩২ ১৪ ১,৯৪০
১৭৮ সিন্ট মার্টেন ২,০৬১ ২৭ ২,০০৭
১৭৯ লাইবেরিয়া ২,০১৭ ৮৫ ১,৮৮৪
১৮০ মোনাকো ১,৯৮১ ২৬ ১,৭৫৪
১৮১ সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন আইল্যান্ড ১,৬৪৫ ৯৪৯
১৮২ সেন্ট মার্টিন ১,৫৪৪ ১২ ১,৩৯৯
১৮৩ পাপুয়া নিউ গিনি ১,৩৬৫ ১৪ ৮৪৬
১৮৪ তাইওয়ান ৯৫৮ ৯২৬
১৮৫ কম্বোডিয়া ৮৭৮ ৪৮২
১৮৬ ভুটান ৮৬৭ ৮৬৫
১৮৭ অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা ৭৬৯ ১৪ ৩০৭
১৮৮ বারমুডা ৭১৩ ১২ ৬৮২
১৮৯ ডায়মন্ড প্রিন্সেস (প্রমোদ তরী) ৭১২ ১৩ ৬৯৯
১৯০ ফারে আইল্যান্ড ৬৫৮ ৬৫৭
১৯১ মরিশাস ৬১৯ ১০ ৫৮৮
১৯২ সেন্ট বারথেলিমি ৫৭৩ ৪৬২
১৯৩ আইল অফ ম্যান ৫১১ ২৫ ৪৫১
১৯৪ তানজানিয়া ৫০৯ ২১ ১৮৩
১৯৫ কেম্যান আইল্যান্ড ৪৪৭ ৪১৫
১৯৬ ক্যারিবিয়ান নেদারল্যান্ডস ৪২৯ ৪০২
১৯৭ ব্রুনাই ১৮৭ ১৮১
১৯৮ ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ ১৫৩ ১৩১
১৯৯ গ্রেনাডা ১৪৮ ১৪৭
২০০ ডোমিনিকা ১৪৪ ১৩০
২০১ পূর্ব তিমুর ১১৩ ৯০
২০২ ফিজি ৬৩ ৫৪
২০৩ নিউ ক্যালেডোনিয়া ৫৮ ৫৮
২০৪ ফকল্যান্ড আইল্যান্ড ৫৪ ৪৬
২০৫ ম্যাকাও ৪৮ ৪৭
২০৬ লাওস ৪৫ ৪২
২০৭ সেন্ট কিটস ও নেভিস ৪১ ৪০
২০৮ গ্রীনল্যাণ্ড ৩০ ৩০
২০৯ ভ্যাটিকান সিটি ২৭ ১৫
২১০ সেন্ট পিয়ের এন্ড মিকেলন ২৪ ১৬
২১১ মন্টসেরাট ২০ ১৩
২১২ এ্যাঙ্গুইলা ১৮ ১৮
২১৩ সলোমান আইল্যান্ড ১৮ ১৪
২১৪ পশ্চিম সাহারা ১০
২১৫ জান্ডাম (জাহাজ)
২১৬ ওয়ালিস ও ফুটুনা
২১৭ মার্শাল আইল্যান্ড
২১৮ সামোয়া
২১৯ ভানুয়াতু
তথ্যসূত্র: চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন (সিএনএইচসি) ও অন্যান্য।
করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]