কিশোর-কিশোরীর জন্য যে ব্যায়াম জরুরি

ফিচার ডেস্ক
ফিচার ডেস্ক ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:১৮ এএম, ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

করোনা জীবনের সবক্ষেত্রে অনিশ্চয়তা ডেকে এনেছে। প্রাপ্তবয়স্করা ভারসাম্য বজায় রাখতে পারলেও কিশোর-কিশোরীরা লড়াই করতে করতে ক্লান্ত। তারা বিভিন্ন দুশ্চিন্তা-দুর্ভাবনায় মানসিকভাবে সমস্যায় পড়ছে। ধারণা করা হয়, প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা, কাজের সংকট মানসিক চাপ বাড়িয়ে তুলছে। ফলে ধূমপান ও মাদকের ব্যবহার বেড়ে যাচ্ছে। যা শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলছে।

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথের তথ্য অনুযায়ী, প্রতি তিন জন কিশোর-কিশোরীর মধ্যে ১ জন মানসিক ব্যাধিতে ভুগছে। যা দিনদিন বাড়ছে। বর্তমানে কিশোর-কিশোরীর মানসিক ব্যাধি বেড়েছে ২০ শতাংশ। তাদের মধ্যে উচ্চাশা, চাপ, সোশ্যাল মিডিয়ায় আসক্তি, ভবিষ্যৎ সম্পর্কে উদ্বিগ্নতা প্রভৃতি দিনদিন বাড়ছে। ফলে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ছে।

এর থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় সম্পর্কে শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. হিমানি খান্না বলেছেন, ‘কিছু সাধারণ মানসিক অনুশীলন রয়েছে, যা তাদের মানসিক ব্যাধি দূর করবে। তাদের শান্ত করতে সক্ষম হবে। বিভিন্ন কারণে সৃষ্ট দুশ্চিন্তা দূর করতেও ভূমিকা রাখবে।’

এসব মানসিক চাপ এবং উদ্বেগ দূর করতে করণীয় ব্যায়াম হলো-

শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম: অনেকেই শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়ামকে অবহেলা করেন। অথচ এর জন্য সময় ব্যয় করলে মন ও শরীর শান্ত থাকে। এর জন্য রুটিন করা উচিত। যেকোনো কিছুর কারণে উদ্বিগ্ন বা অস্থির হলে শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম করতে পারেন।

ধাঁধা সমাধান: ধাঁধা বা রুবিক্স কিউব সমাধান কিশোর-কিশোরীর সমস্যা সমাধানের দক্ষতা বাড়াতে সহায়তা করতে পারে। এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এতে সমস্যা সমাধানের সাথে সাথে দৃষ্টিভঙ্গিও পরিবর্তিত হয়।

রং: রং নিয়ে খেলা করা বাচ্চাদের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। তবে এখন প্রাপ্তবয়স্ক এবং কিশোর-কিশোরীরাও তা করতে পারেন। কেননা রং মস্তিষ্ককে শান্ত করে। চাপ সৃষ্টিকারী কারণগুলো থেকেও দূরে থাকতে সাহায্য করে। রঙের ব্যবহার সৃজনশীলতাও বাড়ায়।

ডুডলিং: সময় কাটানো ও নিজেকে সৃজনশীলভাবে প্রকাশ করার একটি জনপ্রিয় উপায় এটি। তাই শুধু একটি কলম ও কাগজ হাতে নিন। নিজের স্বাচ্ছন্দ্য ফিরিয়ে আনার জন্য ডুডল করুন।

সূত্র: টাইমস নাও নিউজ।

সালমান/এসইউ/এএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]