জনধন ও মুদ্রা যোজনায় ত্রিপুরার ধলাই জেলার প্রশংসা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:২২ এএম, ২৬ অক্টোবর ২০২১

আগরতলা সংবাদদাতা

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নির্দেশনা অনুযায়ী পিছিয়ে পড়া অঞ্চলগুলো চিহ্নিত করা হয় অনেক আগেই। সেই অনুযায়ী এই তালিকায় স্থান পেয়েছে ত্রিপুরা রাজ্যের একটি জেলা। জেলাটির নাম ধলাই ত্রিপুরা। কেন্দ্রীয় সরকারের রিপোর্ট অনুযায়ী, গত কয়েক মাসে দারুণ সফলতা পেয়েছে জেলাটি।

সোমবার ত্রিপুরা প্রদেশ বিজেপি কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের অর্থ প্রতিমন্ত্রী ড. ভাগবত কিশানরাও কারাদ এসব তথ্য জানান।

কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশে ১১২টি পিছিয়ে পড়া জেলা রয়েছে। এর মধ্যেই ত্রিপুরার ধলাই জেলা অন্যতম। সেখানে জনধন ও মুদ্রা যোজনায় দারুণ সফলতা নথিভুক্ত হয়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী এমন তথ্য জানা গেছে। এরই ধারাবাহিকতায় তিনি খোয়াই, ঊনকোটি ও সিপাহীজলা জেলায়ও একই সাফল্য অর্জনের নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, এরই মধ্যে আগামী ডিসেম্বরের ভেতরে খোয়াই, ঊনকোটি ও সিপাহীজলা জেলায় একই সাফল্য অর্জনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মুদ্রা যোজনা ও জনধন যোজনায় দেশের মানুষ দারুণভাবে উপকৃত হয়েছেন। সারাদেশে এখন পর্যন্ত ৪৩.৫০ কোটি জনধন অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। এতে ১ লাখ ৫০ হাজার কোটি টাকা জমা রয়েছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে গোটা উত্তর-পূর্বাঞ্চলে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রয়েছে। ত্রিপুরা সফরে এসে রাজ্যস্তরের ব্যাংকার্স কমিটির বৈঠকেও তিনি অংশ নিয়েছেন। বৈঠকে চলতি অর্থবছরের আর্থিক গতিবিধির খোঁজখবর নেন তিনি।

তিনি বলেন, গরিবের ঘরে অর্থ পৌঁছে দেওয়াই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর একমাত্র লক্ষ্য। তাদের বিভিন্ন স্কিমে অন্তর্ভুক্ত করতে সব ধরনের প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। এর আগে তিনি ত্রিপুরা গ্রামীণ ব্যাংকের উদ্যোগে হাপানিয়াস্থ আল্ট্রা স্মল শাখার উদ্বোধন করেন।

উদ্বোধনের পর তিনি বলেন, এ উদ্যোগ নেওয়ার জন্য ত্রিপুরা গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান মহেন্দ্র মোহন গোস্বামীকে শুভেচ্ছা। আল্ট্রা স্মল শাখার ফলে গ্রাহকরা উপকৃত হবেন।

রাজ্য সফরে এসে ব্যাংক আধিকারিকদের সঙ্গে কথা বলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী। মুদ্রা-ঋণসহ অন্যান্য যোজনা সম্পর্কেও ব্যাংক আধিকারিকদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। এতে ব্যাংক আধিকারিকদের গ্রাহকদের সেবাদানে সব ধরনের উদ্যোগ নেওয়ার কথা বলেন তিনি।

এআরএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]