সাংবাদিক গৌতম দাস হত্যা : হাইকোর্টের রায় ৩০ জানুয়ারি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:০৯ পিএম, ০৯ জানুয়ারি ২০১৯

ফরিদপুরের সাংবাদিক গৌতম দাস হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের আপিলের রায় ঘোষণার জন্য আগামী ৩০ জানুয়ারি দিন ঠিক করেছেন হাইকোর্ট। রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের শুনানি শেষে বুধবার হাইকোর্টের বিচারপতি একেএম আবদুল হাকিম ও বিচারপতি ফাতেমা নজীবের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ রায়ের জন্য এ দিন ধার্য করেন।

আদালতে আজ দুই আসামি সিদ্দিকুর রহমান মিয়া ও আবু তাহের মো. মোস্তফা ওরফে অ্যাপোলো বিশ্বাসের পক্ষে আইনজীবী হেলালউদ্দিন মোল্লা, এক আসামি তানজীর হোসেন বাবুর পক্ষে আইনজীবী আওলাদ হোসেন, চার আসামি আসিফ ইমরান, আসিফ ইমতিয়াজ বুলু, কামরুল ইসলাম আপন ও রাজীব হাসান মনার পক্ষে আইনজীবী সৈয়দ আলী মোকাররম, আসাদ বিন কাদিরের পক্ষে আইনজীবী মো. আব্দুর রশীদ ও ওমর ফারুক এবং আসামি কাজী মুরাদের পক্ষে আইনজীবী শেখ বাহারুল ইসলাম শুনানি করেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল হারুন-অর-রশীদ।

চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকাণ্ডের মামলায় ২০১৩ সালের ২৭ জুন ঢাকার ১-নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন ৯ আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। মামলার ১০ আসামির মধ্যে একজন আগেই মারা গেছেন।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত অপর আসামিরা হলেন- আসিফ ইমরান, আসিফ ইমতিয়াজ বুলু, কাজী মুরাদ, কামরুল ইসলাম আপন, সিদ্দিকুর রহমান মিয়া, রাজিব হোসেন মনা, আসাদ বিন কাদির, আবু তাহের মো. মোস্তফা ওরফে অ্যাপোল বিশ্বাস ও তামজিদ হোসেন বাবু। রায়ে আসামিদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন বিচারিক আদালত।

ওই রায়ের বিরুদ্ধে আসামিরা হাইকোর্টে ফৌজদারি আপিল দায়ের করেন। উভয়পক্ষের আপিল আবেদনের ওপর দীর্ঘ শুনানি আজ বুধবার শেষ হলো।

জানা গেছে, ফরিদপুর শহরের মুজিব সড়কের সংস্কার ও পুনঃনির্মাণ কাজের অনিয়ম ও দুর্নীতির সংবাদ পরিবেশন করায় দৈনিক সমকালের ফরিদপুর ব্যুরো প্রধান গৌতম দাসের ওপর ক্ষুব্ধ ঠিকাদারগোষ্ঠী ও তাদের সহযোগী সন্ত্রাসী চক্র। ২০০৫ সালের ১৭ নভেম্বর ভোরে চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা সাংবাদিক গৌতমকে নির্যাতন ও শ্বাসরোধে হত্যা করে।

এফএইচ/জেডএ/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :