বর্ষার আগেই ঢাকায় মশা নিধনের নির্দেশ হাইকোর্টের

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:২৮ পিএম, ১৫ মে ২০১৯

রাজধানীর মশা নিয়ন্ত্রণে দুই সিটি কর্পোরেশনের নেয়া কার্যক্রমে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে মহানগরীতে দ্রুত মশা নিয়ন্ত্রণে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী কর্মকর্তাকে (সিইও) নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

ঢাকা মহানগরীর বায়ুদূষণ রোধে উচ্চ আদালতের আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে সকাল-বিকেল পানি ছিটানোর সঠিক তথ্য প্রতিবেদনে ব্যাখ্যা না করায় গত ৫ মে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) সিইও মোস্তাফিজুর রহমান ও উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএরসিসি) সিইও আবদুল হাঁইকে বুধবার (১৫ মে) আদালতে উপস্থিত হওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।

সেই নির্দেশ মতো আজ তারা আদালতে উপস্থিত হলে বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান এবং বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

এ সময় আদালত আরও বলেন, এটা আমার, আপনার সবার দেশ। ২০ তলা ভবনেও মশা আছে। সামনে বর্ষাকাল আসছে, চিকুন গুনিয়া এবং ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব রয়েছে। আপনারা মশা নিধনে যথাযথ পদক্ষেপ নেন।

আদালতে আজ এ সংক্রান্ত রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনজিল মোরশেদ। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার এবিএম আব্দুল্লা আল মাহমুদ বাশার।

পরে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার এবিএম আব্দুল্লা আল মাহমুদ বাশার জানান, ঢাকা মহানগরীর বায়ুদূষণ রোধে হাইকোর্টের আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে সকাল-বিকেল রাস্তায় সঠিকভাবে পানি ছিটানো হচ্ছে কি না তার ব্যাখ্যা দিতে নির্ধারিত সময় বুধবার সকালে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ দুই সিটি কর্পোরেশনের সিইও আবদুল হাঁই ও মোস্তাফিজুর রহমান হাইকোর্টে উপস্থিত হন।

এ সময় আদালত তাদের রাজধানীর ধুলা নিয়ন্ত্রণ ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনার বিষয়ে পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন দিতে আরও একমাস সময় দিয়ে এ বিষয়ে আগামী ২৬ জুন পরবর্তী শুনানির দিন ঠিক করেন।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আরও জানান, সিটি কর্পোরেশনের কাজের বিষয়ে দুই সিইওকে বিভিন্ন প্রশ্ন করে আদালত বলেন, একটু বৃষ্টি হলেই হাঁটু পানি জমে যায়, নিষ্কাশনে সু-ব্যবস্থা নেই।

ধুলা, পানি নিষ্কাশন ও মশা নিধনের বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে হাইকোর্ট বলেন, রাজধানীতে অনেক মশা। ঠিকমতো ওষুধ ছিটানো হয় না। যদিও ওষুধ ছিটায় তা দুই নম্বর। মশার কারণে নগরীর শিক্ষার্থীসহ অনেকের সমস্যা হচ্ছে। বিশেষ করে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে (ডিএনসিসি) অ্যাম্বাসেডররা থাকেন, বিদেশি ক্রেতারা থাকেন। তাদের যাতে মশার কারণে কোনো সমস্যা না হয় সে বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

ডিএনসিসির সিইওকে উদ্দেশ করে হাইকোর্ট বলেন, আপনাদের দিকে অনেক দেশের অ্যাম্বাসেডর বসবাস করেন। আগের মেয়র আনিসুল হক অনেকগুলো ভালো কাজ করেছিলেন। আশা করি বর্তমান মেয়রও ওই সব কাজ বজায় রাখবেন।

এফএইচ/এআর/এমএমজেড/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]