অব্যবস্থাপনা-সমন্বয়হীনতা সঙ্কটকে গভীরতর করছে : আর্টিকেল নাইনটিন

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৩০ পিএম, ০৩ মে ২০২০

‘মহামারি মোকাবেলায় নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ে সমন্বয়হীনতা, কর্মপরিকল্পনায় অস্বচ্ছতা ও জবাবদিহির প্রকট অভাব বাংলাদেশে এই সঙ্কটকে গভীরতর করছে। একইসঙ্গে তথ্যের অধিকার ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা শিকার হচ্ছে নজিরবিহীন দমন-পীড়নের। কোভিড-১৯ এর চিকিৎসা ব্যবস্থাপনায় অস্বচ্ছতা ও এর মান নিয়ে প্রশ্ন তোলায় খোদ স্বাস্থ্যসেবা কর্মীরাই প্রশাসনিক হেনস্তার শিকার হচ্ছেন।’

‘বাংলাদেশে কোভিড-১৯: তথ্যের অধিকার ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা পরিস্থিতির বিশ্লেষণ’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে এমনটি উল্লেখ করা হয়েছে। প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা আর্টিকেল নাইনটিন। বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস (৩ মে) উপলক্ষে গত শনিবার (২ মে) অনলাইনে আয়োজিত ’ইন্টারন্যাশনাল মিডিয়া ফোরাম’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে আর্টিকেল নাইনটিন বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ফারুখ ফয়সল ওই প্রতিবেদেনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ব্রাজিল, যুক্তরাজ্য ও বাংলাদেশ থেকে মানবাধিকার কর্মী, সাংবাদিক ও গণমাধ্যম বিশেষজ্ঞরা যুক্ত ছিলেন। এতে আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্যে আর্টিকেল নাইনটিনের আন্তর্জাতিক কার্যালয়ের আইন ও নীতি বিভাগের জ্যেষ্ঠ পরিচালক বারবোরা বোকুভস্কা, আর্টিকেল নাইনটিন ব্রাজিলের আঞ্চলিক পরিচালক ডেনিস ডোরা, বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক ও প্রথম আলোর যুগ্ম-সম্পাদক মিজানুর রহমান খান।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘একদিকে সাংবাদিকরা যখন ত্রাণ বিতরণে ব্যাপক অনিয়মের খবর তুলে ধরছেন, অন্যদিকে সরকার তখন করোনা সংক্রান্ত তথ্য জানার সুযোগ সাংবাদিকদের জন্য আরও সীমিত করছে। উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবিলার নামে সমালোচনাকারীদের কণ্ঠরোধে ব্যবহার করা হচ্ছে বিতর্কিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন। প্রকৃত গুজব প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের পরিবর্তে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিন্নমত প্রকাশকারীদের ওপর খড়গহস্ত হচ্ছে সরকার।’

অনুষ্ঠানে বলা হয়, আর্টিকেল নাইনটিন বাংলাদেশে করোনা প্রস্তুতির শুরু থেকে এ সংক্রান্ত পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। দেশে করোনা ভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ শনাক্ত হয় ৮ মার্চ। আর্টিকেল নাইনটিনের প্রতিবেদনে ৮ মার্চ থেকে ৮ এপ্রিল পর্যন্ত এক মাসের করোনা পরিস্থিতির মূল্যায়ন করা হয়েছে। এসময়ের মধ্যে মতপ্রকাশ, তথ্যের অধিকার ও স্বচ্ছতা, ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম, সাংবাদিকদের প্রতি সহিংসতাসহ ২০টি ক্যাটাগরিতে মোট ১৫৭টি ঘটনা পর্যবেক্ষণ ও রেকর্ড করা হয়। এসব ঘটনায় আক্রান্ত বা ভুক্তভোগী অথবা অধিকার লঙ্ঘনের শিকার হয়েছেন মোট ১৭৪ জন। শুধু মতপ্রকাশজনিত অধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটেছে ৪১টি। এসব ঘটনায় আক্রান্ত বা ভুক্তভোগীর সংখ্যা ১৩৯ জন, যাদের বেশিরভাগই সাধারণ ফেসবুক ব্যবহারকারী।

অনুষ্ঠানে ফারুখ ফয়সল বলেন, ‘এটা ইতোমধ্যে স্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে, স্বচ্ছতার অভাব, স্বাধীন মতপ্রকাশে বাধা ও তথ্যের অবাধ প্রবাহে নিয়ন্ত্রণ করোনাভাইরাসকে বিশ্বজুড়ে দ্রুত ছড়িয়ে দিতে সাহায্য করেছে এবং কোটি মানুষের জীবনকে হুমকির মধ্যে ফেলে দিয়েছে। বাংলাদেশে এই সঙ্কটের শুরু থেকেও আমরা একই চিত্র দেখছি। করোনা ইস্যুতে স্বাধীন মতের দমন, তথ্য গোপনের মানসিকতা, সংক্রমণ প্রতিরোধে করণীয় বিষয়ে নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ে অদূরদর্শিতা, অস্বচ্ছতা ও সমন্বয়হীনতা এবং কোভিড-১৯ চিকিৎসায় চরম অব্যবস্থাপনা এর কারণ বলে আমরা মনে করছি।’

স্বাস্থ্য অধিদফতরের দৈনন্দিন ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্ন করার সুযোগ বন্ধ করার সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করে ফারুখ ফয়সল বলেন, ‘এটি দিন শেষে কোনো ভালো ফল বয়ে আনবে না। এতে সাধারণ মানুষের উদ্বেগ বাড়ছে।’

তিনি ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্ন করার সুযোগ দেয়া, করোনা শনাক্তকরণ কিটের তথ্য, কেন্দ্রভিত্তিক নমুনা পরীক্ষার দৈনিক হিসাব, পিপিইর মজুদ ও বিতরণসহ সমস্ত তথ্য উন্মুক্ত করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

ডিজিটাল অধিকারের ওপর গুরুত্বারোপ করে বারবোরা বুকোভস্কা বলেন, ‘এই সময়ে, কেবল তথ্য জানার জন্যই নয়, মানুষে মানুষে যোগাযোগ ও মিথস্ক্রিয়া বাড়ানোর জন্যও ইন্টারনেটে প্রবেশগম্যতা থাকা প্রয়োজন। শিক্ষা, স্বাস্থ্যের মতো মৌলিক অধিকার ভোগের জন্যও এটা এখন জরুরি। বাংলাদেশের মতো দেশে যেখানে ইন্টারনেট সেবা ততটা উন্নত নয় এবং পল্লী এলাকাগুলো মানসম্মত ইন্টারনেট সেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে বৈষম্যের শিকার- সেখানে ডিজিটাল অধিকার নিশ্চিত করা অত্যাবশ্যক।’

কার্যকরভাবে কোভিড-১৯ মোকাবিলার জন্য ডেনিস ডোরা পাঁচটি বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দিতে সব সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। এগুলো হলো- সব ধরনের তথ্যে সাধারণ মানুষের প্রবেশগম্যতা নিশ্চিত করা, আইনের শাসন, কার্যকর জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থা, পৃষ্ঠপোষকতাসহ বৈজ্ঞানিক ও সামাজিক গবেষণার স্বাধীনতা এবং উন্নত জীবনমান নিশ্চিত করা। তিনি বলেন, নানা চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও ব্রাজিলের জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থাটি এখনো কার্যকর। তবে অন্য চারটি ক্ষেত্রে বর্তমান সরকার উল্টোপথে চলছে।

কাজী রিয়াজুল হক মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করার বিষয়ে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সনদ, আইন ও সংবিধানে যে বিধানের উল্লেখ আছে তার প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘বিদ্যমান নীতি-কৌশলের ত্রুটি বের করার সুযোগ না দিলে সমাজ এগোতে পারবে না। সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে যেসব সহিংসতা হচ্ছে তা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য না।’

সাধারণ ছুটির মধ্যে সব গার্মেন্টস চালু করার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ‘জীবিকার জন্য অর্থনীতিও সচল রাখতে হবে, তবে তা করতে হবে ধীরে ধীরে।’

মিজানুর রহমান খান বিদ্যমান শ্রম আইনের আওতায় ’কোভিড-১৯’কে পেশাগত রোগ ঘোষণা করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘এটি করা হলে গার্মেন্টস শ্রমিক, অন্য পেশাজীবী ও কর্মরত সাংবাদিকরা পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় স্বাস্থ্য সুরক্ষার আইনগত অধিকার পাবেন, রোগাক্রান্ত হলে ছুটি, চিকিৎসা ও ক্ষতিপূরণ পাবেন।’

বক্তারা সবাই একমত পোষণ করেন যে, নৃতাত্ত্বিক, ধর্মীয়, জেন্ডার, পেশা ইত্যাদি বিবেচনায় সকল সংখ্যালঘু ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠী এই মহামারির সময়ে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকি, বৈষম্য ও বিদ্বেষমূলক বক্তব্যের শিকার। এই বৈশ্বিক মহামারি মোকাবিলায় অন্তর্ভূক্তিমূলক ও সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নের জন্য তারা সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

৮ মার্চ থেকে ৮ এপ্রিল পর্যন্ত এক মাসে ২০টি ক্যাটাগরিতে ১৫৭টি ঘটনা রেকর্ডের ভিত্তিতে প্রতিবেদনে তুলে ধরা উল্লেখযোগ্য দিক হলো-
>> এসব ঘটনায় আক্রান্ত বা ভুক্তভোগী বা অধিকার লঙ্ঘনের শিকার হয়েছেন মোট ১৭৪ জন।
>> শুধু মতপ্রকাশজনিত অধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটেছে ৪১টি। এসব ঘটনায় আক্রান্ত বা ভুক্তভোগীর সংখ্যা ১৩৯ জন, যাদের বেশিরভাগই সাধারণ ফেসবুক ব্যবহারকারী।
>> ত্রাণ বিতরণে দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে উঠেছে- আলোচিত এমন ২৬টি ঘটনায় জড়িত ছিলেন ৪৫ জন, যাদের সিংহভাগেরই সরকারি দলের সাথে সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে।
>> সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মতপ্রকাশের জন্য মামলা হয়েছে ২৫ জনের নামে। ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে ‘গুজব’ ছড়ানের অভিযোগে গ্রেফতার ও জরিমানা করা হয়েছে ৫৪ জনকে।
>> করোনা সংক্রমণের শুরুর দিকে এর প্রাদুর্ভাব এবং বিপদ সম্পর্কে সর্তক করা ১১ জন ‘হুইসেল ব্লোয়ারকে’ গ্রেফতার ও হেনস্থার শিকার হতে হয়েছে।
>> ২৫টি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে সরকার। আরও ৫০টি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধের জন্য বিটিআরসিকে অনুরোধ করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এছাড়া নজরদারির মধ্যে রয়েছে ১০০ অ্যাকাউন্টসহ ফেসবুক।
>> সুনির্দিষ্ট সংখ্যা উল্লেখ না করেই ‘গুজব’ ছড়ানো ও ’অপপ্রচারের’ অভিযোগে অনেকগুলো অনলাইন নিউজ পোর্টাল ও ওয়েবসাইট বন্ধের কথা জানায় সরকার। বন্ধ হওয়া পোর্টালগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল- ‘বেনারনিউজ, ‘এখনসময়’, ’নেত্রনিউজ’ ও ‘বিডিকরোনাডটওয়ার্ডপ্রেস’।
>> ত্রাণ বিতরণে হওয়া অনিয়ম নিয়ে প্রতিবেদন করায় ও করোনা সংশ্লিষ্ট সংবাদ সংগ্রহকালে আটটি ঘটনায় মোট ১১ জন সাংবাদিক হামলা, মামলা ও সহিংসতার শিকার হয়েছেন।
>> বিভিন্ন অনলাইন পোর্টাল ও ফেসবুক আইডি ব্যবহার করে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে কমপক্ষে ১৩ ধরনের ভুয়া খবর বা ফেক নিউজ প্রচার করা হয়েছে। ভুয়া খবর, ভুল ও বিভ্রান্তিকর তথ্য মোকাবিলায় সরকারের কার্যকর কোনো উদ্যোগ দৃশ্যমান ছিল না
>> করোনা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে আছেন রোহিঙ্গা শরণার্থীরা। মোবাইল ও ইন্টারনেট ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞার কারণে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে গুজব, ভুল ও বিভ্রান্তিমূলক তথ্য ছড়িয়ে পড়ছে।
>> করোনার প্রাদুর্ভাবে ২১টির বেশি জাতীয় ও আঞ্চলিক দৈনিক সংবাদপত্রের মুদ্রণ সংস্করণ বন্ধ হয়ে গেছে। এছাড়া সিলেট, যশোর, হবিগঞ্জ ও রংপুরের প্রায় সব স্থানীয় পত্রিকার প্রকাশনা স্থগিত করা হয়েছে।

জেপি/এইচএ/এমএস

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

৬,০১,৫৮,৮৭৮
আক্রান্ত

১৪,১৫,৯২৩
মৃত

৪,১৫,৯৭,৯৩০
সুস্থ

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ
বাংলাদেশ ৪,৫১,৯৯০ ৬,৪৪৮ ৩,৬৬,৮৭৭
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১,২৯,৫৬,৭৮৩ ২,৬৫,৯৪৩ ৭৬,৩৯,০৮৪
ভারত ৯২,২২,২১৬ ১,৩৪,৭৪৩ ৮৬,৪২,৭৭১
ব্রাজিল ৬১,২১,৪৪৯ ১,৭০,১৭৯ ৫৪,৭৬,০১৮
রাশিয়া ২১,৬২,৫০৩ ৩৭,৫৩৮ ১৬,৬০,৪১৯
ফ্রান্স ২১,৫৩,৮১৫ ৫০,২৩৭ ১,৫৪,৬৭৯
স্পেন ১৬,১৪,১২৬ ৪৩,৬৬৮ ১,৯৬,৯৫৮
যুক্তরাজ্য ১৫,৩৮,৭৯৪ ৫৫,৮৩৮ ৩৪৪
ইতালি ১৪,৫৫,০২২ ৫১,৩০৬ ৬,০৫,৩৩০
১০ আর্জেন্টিনা ১৩,৮১,৭৯৫ ৩৭,৪৩২ ১২,১০,৬৩৪
১১ কলম্বিয়া ১২,৬২,৪৯৪ ৩৫,৬৭৭ ১১,৬৭,৮৫৭
১২ মেক্সিকো ১০,৬০,১৫২ ১,০২,৭৩৯ ৭,৯১,৫১৬
১৩ জার্মানি ৯,৬২,৯০৬ ১৪,৯৬৫ ৬,৩৬,৭০০
১৪ পেরু ৯,৫২,৪৩৯ ৩৫,৬৮৫ ৮,৮২,৬০০
১৫ পোল্যান্ড ৯,০৯,০৬৬ ১৪,৩১৪ ৪,৫৪,৭১৭
১৬ ইরান ৮,৮০,৫৪২ ৪৫,৭৩৮ ৬,১৭,৭১৫
১৭ দক্ষিণ আফ্রিকা ৭,৭২,২৫২ ২১,০৮৩ ৭,১৬,৪৪৪
১৮ ইউক্রেন ৬,৬১,৮৫৮ ১১,৪৯২ ৩,০৭,৭৭৮
১৯ বেলজিয়াম ৫,৬১,৮০৩ ১৫,৯৩৮ ৩৬,৫৬৯
২০ চিলি ৫,৪৩,০৮৭ ১৫,১৩১ ৫,১৮,৮৩৪
২১ ইরাক ৫,৩৯,৭৪৯ ১২,০৩১ ৪,৬৯,৭৮৪
২২ ইন্দোনেশিয়া ৫,০৬,৩০২ ১৬,১১১ ৪,২৫,৩১৩
২৩ চেক প্রজাতন্ত্র ৫,০২,৫৩৪ ৭,৪৯৯ ৪,১৬,৮৩২
২৪ নেদারল্যান্ডস ৪,৯৩,৭৪৪ ৯,০৩৫ ২৫০
২৫ তুরস্ক ৪,৬০,৯১৬ ১২,৬৭২ ৩,৮১,৫৬৯
২৬ রোমানিয়া ৪,৩০,৬০৫ ১০,৩৭৩ ৩,০৪,১৮৮
২৭ ফিলিপাইন ৪,২২,৯১৫ ৮,২১৫ ৩,৮৬,৯৫৫
২৮ পাকিস্তান ৩,৮২,৮৯২ ৭,৮০৩ ৩,৩২,৯৭৪
২৯ সৌদি আরব ৩,৫৫,৭৪১ ৫,৮১১ ৩,৪৪,৩১১
৩০ কানাডা ৩,৪২,৪৪৪ ১১,৬১৮ ২,৭৩,৩৯১
৩১ মরক্কো ৩,৩১,৫২৭ ৫,৪৬৯ ২,৭৯,২৭৬
৩২ ইসরায়েল ৩,৩১,১৭৯ ২,৮২২ ৩,১৯,২৯৩
৩৩ সুইজারল্যান্ড ৩,০৪,৫৯৩ ৪,৩০৮ ২,১১,৫০০
৩৪ পর্তুগাল ২,৬৮,৭২১ ৪,০৫৬ ১,৮৪,২৩৩
৩৫ অস্ট্রিয়া ২,৫৪,৭১০ ২,৫৭৭ ১,৮২,৬২০
৩৬ সুইডেন ২,২৫,৫৬০ ৬,৫০০ ৪,৯৭১
৩৭ নেপাল ২,২৪,০৭৮ ১,৩৬১ ২,০৪,৮৫৮
৩৮ জর্ডান ১,৯২,৯৯৬ ২,৩৮০ ১,২৫,৪৩৩
৩৯ ইকুয়েডর ১,৮৬,৪৩৬ ১৩,২৬৪ ১,৬৪,০০৯
৪০ হাঙ্গেরি ১,৮৫,৬৮৭ ৪,১১৪ ৪৪,০২০
৪১ সংযুক্ত আরব আমিরাত ১,৬১,৩৬৫ ৫৫৯ ১,৫০,২৬১
৪২ পানামা ১,৫৬,৯৩০ ২,৯৮৬ ১,৩৮,০০৭
৪৩ বলিভিয়া ১,৪৪,১৪৭ ৮,৯২৮ ১,১৯,৮৩৫
৪৪ কুয়েত ১,৪০,৭৯৫ ৮৭০ ১,৩৩,৪০৭
৪৫ ডোমিনিকান আইল্যান্ড ১,৩৯,১১১ ২,৩১৩ ১,১৩,১৩৪
৪৬ কাতার ১,৩৭,৬৪২ ২৩৬ ১,৩৪,৬৯৮
৪৭ জাপান ১,৩৩,৯২৯ ১,৯৮৯ ১,১৩,৩৪০
৪৮ কোস্টারিকা ১,৩৩,১৯০ ১,৬৬২ ৮১,৯৭৩
৪৯ সার্বিয়া ১,৩৩,০২৯ ১,২৭৪ ৩১,৫৩৬
৫০ বুলগেরিয়া ১,২৯,৩৪৮ ৩,২২৬ ৪০,১০২
৫১ আর্মেনিয়া ১,২৯,০৮৫ ২,০৪০ ১,০০,৯১৩
৫২ কাজাখস্তান ১,২৭,৫৮০ ১,৯৪৫ ১,১৪,৩৪৭
৫৩ বেলারুশ ১,২৬,৯৫৩ ১,১১২ ১,০৫,৮৩৫
৫৪ ওমান ১,২২,৫৭৯ ১,৩৯১ ১,১৩,৮৫৬
৫৫ গুয়াতেমালা ১,১৯,৩৪৯ ৪,০৯৯ ১,০৮,৩৩৮
৫৬ লেবানন ১,১৮,৭০৫ ৯৩৪ ৭০,৫৫৫
৫৭ জর্জিয়া ১,১৪,৮৮৯ ১,০৮৫ ৯৫,৫৮১
৫৮ মিসর ১,১৩,৭৪২ ৬,৫৭৩ ১,০২,১০৩
৫৯ ক্রোয়েশিয়া ১,০৮,০১৪ ১,৪৪৫ ৮৭,৪০৮
৬০ ইথিওপিয়া ১,০৬,৫৯১ ১,৬৬১ ৬৬,০১৮
৬১ হন্ডুরাস ১,০৫,২১১ ২,৮৬৯ ৪৬,৬১৬
৬২ ভেনেজুয়েলা ১,০০,৪৯৮ ৮৭৬ ৯৫,৩৪৪
৬৩ মলদোভা ৯৯,৬৩৩ ২,১৮৮ ৮২,৩৩৫
৬৪ আজারবাইজান ৯৮,৯২৭ ১,১৯৪ ৬৫,৭৩৪
৬৫ স্লোভাকিয়া ৯৭,৪৯৩ ৭০৯ ৫০,৭৩৮
৬৬ গ্রীস ৯৫,১৩৭ ১,৮১৫ ৯,৯৮৯
৬৭ তিউনিশিয়া ৯০,২১৩ ২,৯৩৫ ৬৫,৩০৩
৬৮ চীন ৮৬,৪৬৯ ৪,৬৩৪ ৮১,৫৩০
৬৯ বাহরাইন ৮৬,০১৬ ৩৪০ ৮৪,১৬৬
৭০ মায়ানমার ৮২,২৩৬ ১,৭৮৪ ৬০,৯৬৫
৭১ বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ৮১,৭৩৯ ২,৩৯৪ ৪৭,৫২৫
৭২ লিবিয়া ৭৯,৭৯৭ ১,১২৫ ৫০,৯১৪
৭৩ কেনিয়া ৭৮,৫১২ ১,৪০৯ ৫২,৭০৯
৭৪ প্যারাগুয়ে ৭৭,৮৯১ ১,৬৭৭ ৫৫,৫৩১
৭৫ আলজেরিয়া ৭৭,০০০ ২,৩০৯ ৫০,০৭০
৭৬ ফিলিস্তিন ৭৫,০০৭ ৬৫৬ ৬০,০০৯
৭৭ ডেনমার্ক ৭৩,০২১ ৭৯৭ ৫৭,০৭৫
৭৮ উজবেকিস্তান ৭২,০৩৯ ৬০৫ ৬৯,৩০২
৭৯ আয়ারল্যান্ড ৭০,৯৩০ ২,০২৮ ২৩,৩৬৪
৮০ কিরগিজস্তান ৭০,৭৪৪ ১,৪৯৮ ৬২,০৪৮
৮১ স্লোভেনিয়া ৬৭,০৮০ ১,১৫৬ ৪৫,৫৮৭
৮২ নাইজেরিয়া ৬৬,৬০৭ ১,১৬৯ ৬২,৩১১
৮৩ মালয়েশিয়া ৫৮,৮৪৭ ৩৪১ ৪৪,১৫৩
৮৪ সিঙ্গাপুর ৫৮,১৯০ ২৮ ৫৮,০৭৯
৮৫ উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ৫৬,১৬৪ ১,৫৬১ ৩৩,৮৯২
৮৬ লিথুনিয়া ৫১,৬৫৫ ৪৩২ ১২,২৮২
৮৭ ঘানা ৫১,১৮৪ ৩২৩ ৫০,০২৯
৮৮ আফগানিস্তান ৪৫,৪৯০ ১,৭২৫ ৩৬,১৪৫
৮৯ এল সালভাদর ৩৭,৮৮৪ ১,০৮৬ ৩৪,৫৯৫
৯০ আলবেনিয়া ৩৪,৩০০ ৭৩৫ ১৬,৬৬৬
৯১ নরওয়ে ৩৩,৭১৭ ৩১৪ ২০,৯৫৬
৯২ মন্টিনিগ্রো ৩২,১৮৮ ৪৫০ ২০,৬২৭
৯৩ দক্ষিণ কোরিয়া ৩১,৭৩৫ ৫১৩ ২৬,৮২৫
৯৪ লুক্সেমবার্গ ৩১,৪৮৪ ২৮৩ ২২,১৮৯
৯৫ অস্ট্রেলিয়া ২৭,৮৫৪ ৯০৭ ২৫,৫৩৮
৯৬ ক্যামেরুন ২৩,৮৬৯ ৪৩৬ ২২,১৭৭
৯৭ ফিনল্যাণ্ড ২২,২৮৯ ৩৮৪ ১৫,৩০০
৯৮ আইভরি কোস্ট ২১,১৫৬ ১৩১ ২০,৮৩৩
৯৯ শ্রীলংকা ২০,৯৬৭ ৯৪ ১৪,৯৬২
১০০ উগান্ডা ১৮,৪০৬ ১৮৬ ৮,৭৬৪
১০১ জাম্বিয়া ১৭,৪৬৬ ৩৫৭ ১৬,৭০৭
১০২ মাদাগাস্কার ১৭,৩৪১ ২৫১ ১৬,৬৫৭
১০৩ সুদান ১৬,৪৩১ ১,২০২ ৯,৮৫৪
১০৪ সেনেগাল ১৫,৯০৮ ৩৩১ ১৫,৫২৭
১০৫ মোজাম্বিক ১৫,২৩১ ১২৭ ১৩,৪০৮
১০৬ অ্যাঙ্গোলা ১৪,৭৪২ ৩৩৮ ৭,৪৪৪
১০৭ নামিবিয়া ১৩,৯৩৮ ১৪৫ ১৩,২৭২
১০৮ লাটভিয়া ১৩,৬৯৩ ১৭৫ ১,৬৫১
১০৯ ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া ১৩,৫১৭ ৭০ ৪,৮৪২
১১০ গিনি ১২,৮৬৩ ৭৫ ১১,৮৭৭
১১১ মালদ্বীপ ১২,৮১০ ৪৬ ১১,৬৬০
১১২ ড্যানিশ রিফিউজি কাউন্সিল ১২,৩১০ ৩৩১ ১১,৪৩৩
১১৩ তাজিকিস্তান ১১,৯৭১ ৮৬ ১১,৩৫৫
১১৪ ফ্রেঞ্চ গায়ানা ১১,০৭৯ ৭০ ৯,৯৯৫
১১৫ এস্তোনিয়া ১০,৫৪১ ৯৭ ৬,০৫২
১১৬ জ্যামাইকা ১০,৪২২ ২৪৩ ৫,৫৭২
১১৭ কেপ ভার্দে ১০,৪০০ ১০৪ ৯,৮৩৩
১১৮ বতসোয়ানা ৯,৯৯২ ৩১ ৭,৬৯২
১১৯ জিম্বাবুয়ে ৯,৩৯৮ ২৭৪ ৮,২৯৭
১২০ হাইতি ৯,২২৯ ২৩২ ৭,৮৮৬
১২১ সাইপ্রাস ৯,১৯৯ ৪৬ ২,০৫৫
১২২ গ্যাবন ৯,১৫০ ৫৯ ৮,৯৯৯
১২৩ মালটা ৯,১৩৭ ১১৭ ৬,৯৩৮
১২৪ গুয়াদেলৌপ ৮,৩৪৪ ১৪৯ ২,২৪২
১২৫ মৌরিতানিয়া ৮,১৯৩ ১৬৯ ৭,৬৩৬
১২৬ কিউবা ৭,৯৫০ ১৩৩ ৭,৪২৮
১২৭ রিইউনিয়ন ৭,৬৮৯ ৩৫ ৬,৬৬০
১২৮ বাহামা ৭,৪৬০ ১৬৩ ৫,৭০৮
১২৯ সিরিয়া ৭,৩৬৯ ৩৮৫ ৩,২১৩
১৩০ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ৬,৪৮৮ ১১৫ ৫,৬৩৯
১৩১ এনডোরা ৬,৩৫১ ৭৬ ৫,৫০৩
১৩২ ইসওয়াতিনি ৬,২৪৭ ১২০ ৫,৮৭৮
১৩৩ মালাউই ৬,০১৭ ১৮৫ ৫,৪৪৫
১৩৪ নিকারাগুয়া ৫,৭৮৪ ১৬০ ৪,২২৫
১৩৫ হংকং ৫,৭৮২ ১০৮ ৫,২৭৪
১৩৬ রুয়ান্ডা ৫,৭৫০ ৪৭ ৫,২৪১
১৩৭ জিবুতি ৫,৬৬৯ ৬১ ৫,৫৬৯
১৩৮ কঙ্গো ৫,৬৩২ ১১৪ ৪,৯৮৮
১৩৯ মার্টিনিক ৫,৪১৩ ৩৭ ৯৮
১৪০ বেলিজ ৫,৩৩৫ ১২৫ ২,৮৯৯
১৪১ সুরিনাম ৫,৩০০ ১১৭ ৫,১৭৭
১৪২ আইসল্যান্ড ৫,২৯৮ ২৬ ৫,০৮৬
১৪৩ গায়ানা ৫,১৮৯ ১৪৭ ৪,২০৪
১৪৪ ইকোয়েটরিয়াল গিনি ৫,১৩৭ ৮৫ ৫,০০৫
১৪৫ মায়োত্তে ৫,১২২ ৪৯ ২,৯৬৪
১৪৬ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক ৪,৯১১ ৬৩ ১,৯২৪
১৪৭ উরুগুয়ে ৪,৮৭০ ৭২ ৩,৮২৭
১৪৮ আরুবা ৪,৭৫১ ৪৫ ৪,৬১৮
১৪৯ সোমালিয়া ৪,৪৪৫ ১১৩ ৩,৪১২
১৫০ মালি ৪,৪১৭ ১৪৮ ৩,০৫৪
১৫১ থাইল্যান্ড ৩,৯২৬ ৬০ ৩,৭৮০
১৫২ গাম্বিয়া ৩,৭২৬ ১২৩ ৩,৫৮৫
১৫৩ দক্ষিণ সুদান ৩,০৬৯ ৬১ ২,৯৩৮
১৫৪ বেনিন ২,৯১৬ ৪৩ ২,৫৭৯
১৫৫ টোগো ২,৮৭২ ৬৪ ২,২৯৫
১৫৬ বুর্কিনা ফাঁসো ২,৭৫৭ ৬৮ ২,৫৫৭
১৫৭ গিনি বিসাউ ২,৪২২ ৪৩ ২,৩০৯
১৫৮ সিয়েরা লিওন ২,৪০৬ ৭৪ ১,৮২৯
১৫৯ ইয়েমেন ২,১১৪ ৬০৯ ১,৪৬৭
১৬০ লেসোথো ২,০৯২ ৪৪ ১,২৭৭
১৬১ নিউজিল্যান্ড ২,০৩৯ ২৫ ১,৯৫৫
১৬২ কিউরাসাও ১,৮২৭ ১,০৪৩
১৬৩ চাদ ১,৬৪৯ ১০১ ১,৪৯৩
১৬৪ লাইবেরিয়া ১,৫৫১ ৮২ ১,৩৩১
১৬৫ সান ম্যারিনো ১,৪২৮ ৪৫ ১,১৪৯
১৬৬ নাইজার ১,৪০৬ ৭০ ১,১৬৯
১৬৭ ভিয়েতনাম ১,৩১৬ ৩৫ ১,১৫৩
১৬৮ লিচেনস্টেইন ১,১৫৮ ১৩ ৯৫২
১৬৯ চ্যানেল আইল্যান্ড ১,১২৪ ৪৮ ৯৩৭
১৭০ সিন্ট মার্টেন ১,০২০ ২৫ ৯০৬
১৭১ জিব্রাল্টার ৯৮১ ৮৮৫
১৭২ টার্কস্ ও কেইকোস আইল্যান্ড ৭৪৬ ৭০০
১৭৩ ডায়মন্ড প্রিন্সেস (প্রমোদ তরী) ৭১২ ১৩ ৬৫৯
১৭৪ মঙ্গোলিয়া ৬৯৯ ৩৪২
১৭৫ সেন্ট মার্টিন ৬৯০ ১২ ৫৯৮
১৭৬ বুরুন্ডি ৬৭৩ ৫৭৫
১৭৭ পাপুয়া নিউ গিনি ৬৩০ ৫৮৮
১৭৮ তাইওয়ান ৬২৩ ৫৫৩
১৭৯ কমোরস ৬০৭ ৫৭৯
১৮০ মোনাকো ৫৮৭ ৫২৩
১৮১ ইরিত্রিয়া ৫৫৮ ৪৭৩
১৮২ তানজানিয়া ৫০৯ ২১ ১৮৩
১৮৩ ফারে আইল্যান্ড ৫০০ ৪৯৮
১৮৪ মরিশাস ৪৯৪ ১০ ৪৩৩
১৮৫ ভুটান ৩৮৬ ৩৬৩
১৮৬ আইল অফ ম্যান ৩৬৯ ২৫ ৩৩৬
১৮৭ কম্বোডিয়া ৩০৭ ২৯৮
১৮৮ কেম্যান আইল্যান্ড ২৬৬ ২৪৯
১৮৯ বার্বাডোস ২৬২ ২৪২
১৯০ বারমুডা ২৩৯ ২০৫
১৯১ সেন্ট লুসিয়া ২২৬ ১০৯
১৯২ সিসিলি ১৬৬ ১৫৯
১৯৩ ক্যারিবিয়ান নেদারল্যান্ডস ১৬১ ১৫৫
১৯৪ ব্রুনাই ১৫০ ১৪৫
১৯৫ অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা ১৩৯ ১২৮
১৯৬ সেন্ট বারথেলিমি ১২৭ ৯৪
১৯৭ সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন আইল্যান্ড ৮৪ ৭৮
১৯৮ ডোমিনিকা ৭৭ ৬৩
১৯৯ ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ ৭১ ৭০
২০০ ম্যাকাও ৪৬ ৪৬
২০১ গ্রেনাডা ৪১ ৩০
২০২ লাওস ৩৯ ২৪
২০৩ ফিজি ৩৮ ৩৩
২০৪ নিউ ক্যালেডোনিয়া ৩২ ৩২
২০৫ পূর্ব তিমুর ৩০ ৩১
২০৬ ভ্যাটিকান সিটি ২৭ ১৫
২০৭ সেন্ট কিটস ও নেভিস ২২ ১৯
২০৮ গ্রীনল্যাণ্ড ১৮ ১৮
২০৯ সলোমান আইল্যান্ড ১৭
২১০ ফকল্যান্ড আইল্যান্ড ১৬ ১৩
২১১ সেন্ট পিয়ের এন্ড মিকেলন ১৬ ১২
২১২ মন্টসেরাট ১৩ ১৩
২১৩ পশ্চিম সাহারা ১০
২১৪ জান্ডাম (জাহাজ)
২১৫ এ্যাঙ্গুইলা
২১৬ মার্শাল আইল্যান্ড
২১৭ ওয়ালিস ও ফুটুনা
২১৮ ভানুয়াতু
২১৯ সামোয়া
তথ্যসূত্র: চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন (সিএনএইচসি) ও অন্যান্য।
করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]