চলাচলের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে হাতিরঝিলের ওয়াটার ট্যাক্সি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৩৩ পিএম, ২৯ মে ২০২০

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ পরিস্থিতির মধ্যে চলমান সাধারণ ছুটি আর না বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সীমিতভাবে গণপরিবহন (বাস, নৌযান ও ট্রেন) চালু হতে যাচ্ছে। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী ৩১ মে (রোববার) থেকে সীমিত সংখ্যক যাত্রী নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সড়কে গণপরিবহন চলাচল করতে পারবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাত্রীবাহী নৌযান ও ট্রেনও চলাচল করবে।

মোটকথা স্বাস্থ্যবিধি মেনে, স্বল্প সংখ্যক যাত্রী নিয়ে গণপরিবহন চলবে। সেক্ষেত্রে গণপরিবহন চালালে ঠাসাঠাসি করে চালানো যাবে না; সামাজিক দূরত্ব মেনেই চালাতে হবে। অবশ্যই যাত্রীদের মাস্ক ও হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহার করতে হবে। এগুলো নিশ্চিত করেই মালিকদের গণপরিবহন চালানোর অনুমতি দেয়া হয়েছে।

Taxi-(3).jpg

এ অবস্থায় হাতিরঝিলে ওয়াটার ট্যাক্সি চলাচলেও প্রস্তুতি নিচ্ছে সংশ্লিষ্টরা। এরই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার (২৯ মে) গুলশান সংলগ্ন গুদারাঘাটে ধোয়া মোছার কাজ চলছে। ইতোমধ্যে টিকিট কাউন্টার থেকে শুরু করে ঘাটে যাত্রীদের উঠানামার স্থানসহ পুরো জায়গায় ধোয়া-মোছার কাজ শুরু করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, করোনার আগে হাতিরঝিলে ১৫টি ওয়াটার ট্যাক্সি চলাচল করত। যার ফলে ভোর ৬টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত যাত্রীদের ভিড় লেগে থাকত। কিন্তু করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ পরিস্থিতির মধ্যে দেশে চলমান সাধারণ ছুটিতে অন্য সব যানবাহনের পাশাপাশি হাতিরঝিলের ওয়াটার ট্যাক্সি চলাচলও বন্ধ রয়েছে।

Taxi-(3).jpg

শুক্রবার গুদারাঘাট পরিচ্ছন্নতার কাজে নিয়োজিত ওয়াটার ট্যাক্সি ঘাটের কর্মী শহিদুল ইসলাম বলেন, কয়েকজন পরিচ্ছন্নকর্মী মিলে ওয়াটার ট্যাক্সির সবগুলো ঘাট ধুয়ে-মুছে পরিচ্ছন্নতার কাজ শুরু করেছি। যাত্রী চলাচলের জন্য সার্বিকভাবে আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি। অন্যসব গণপরিবহন চালু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ওয়াটার ট্যাক্সিও চলাচলা শুরু হবে।

ওয়ারটার ট্যাক্সি সার্ভিসটি চালু হওয়ার পর থেকে গুদারঘাট-রামপুরা ব্রিজ-এফডিসি-এবং পুলিশ প্লাজার ঘাটের মধ্যে চলাচল করে ওয়াটার ট্যাক্সিগুলো। সেখানে রামপুরা ব্রিজ সংলগ্ন ঘাট থেকে গুলশান-১ নম্বর গুদারাঘাট পর্যন্ত ২৫ টাকা, এফডিসি মোড় সংলগ্ন ঘাট পর্যন্ত ৩০ টাকা, পুলিশ প্লাজা পর্যন্ত ১৫ টাকা ভাড়া। অন্যদিকে গুদারাঘাট থেকে এফডিসি পর্যন্ত ৩০ টাকা, রামপুরা পর্যন্ত ২৫ টাকা ভাড়ায় যাত্রীরা যাতায়াত করতে পারতেন।

এএস/এসআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]