নারীর প্রতি সহিংসতার ধরন-মাত্রা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:০৫ পিএম, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২

নারীর প্রতি সহিংসতা একটি বৈশ্বিক সমস্যা। বর্তমানে নারীর প্রতি সহিংসতার ধরন ও মাত্রা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। পরিবার থেকে শুরু করে সমাজের সর্বক্ষেত্রে নারীকে বৈষম্য ও নির্যাতন-নিপীড়নের শিকার হতে হচ্ছেন। বিশ্বের প্রতিটি দেশে নারীর প্রতি সহিংসতা উদ্বেগজনক হারে বেড়েই চলেছে।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) রাজধানীর সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে বেসরকারি এনজিও লাইট হাউসের আয়োজনে ও ইউএসএআইডি সুখী জীবন প্রকল্প, পাথফাইন্ডার ইন্টারন্যাশনালের সহযোগিতায় মিডিয়া অ্যাডভোকেসি সভায় এ অভিমত তুলে ধরা হয়।

বক্তারা বলেন, বৈষম্যমূলক আচরণ পরিবর্তন, আইন ও পরিষেবার উন্নয়ন করতে সর্বোপরি নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ করার জন্য বাংলাদেশসহ বিশ্বব্যাপী পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি। একই সঙ্গে সরকারের পাশাপাশি সমাজের সর্বস্তরে সার্বিক সচেতনতা বৃদ্ধি, সবার সম্পৃক্তকরণ ও সবাইকে স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ প্রয়োজন।

লাইট হাউসের নির্বাহী প্রধান মো. হারুন অর রশিদের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আয়েশা নার্গিস। এছাড়া বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ সম্পাদক ফোরামের সদস্য সচিব ফারুক আহমেদ তালুকদারসহ লাইট হাউজের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের ওয়েব সাইটে সম্প্রতি প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, দেশে চলতি বছরের জানুয়ারি-অক্টোবর মধ্যে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন ৮৩০ জন নারী, ১৪৮টি যৌন নির্যাতন, ৯৭৫টি শিশু নির্যাতন, ১৭৫ জন নারী স্বামীর হাতে খুন, ১২টি অ্যাসিড নিক্ষেপ, শিশু হত্যা ৪৩৯টি এবং ২২ গৃহকর্মী ও ১১৬টি যৌতুক সংক্রান্ত নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। যার মধ্যে ৭২টি খুনের ঘটনা রয়েছে।

নারী নির্যাতনের ঘটনাগুলো বিশ্লেষণে দেখা যায়, নির্যাতন থেকে রেহাই পায়নি দুই বছরের শিশু থেকে ৭৫ বছরের বৃদ্ধা পর্যন্ত। ১৪ থেকে ১৮ বছর বয়সী মেয়েরাই সবচেয়ে বেশি ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। আরও আতঙ্কের বিষয় হচ্ছে যুব ও তরুণরাই এসব ঘটনায় অভিযুক্ত হচ্ছেন।

এমন অবস্থায় নারী ও শিশুসহ সব জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতা প্রতিরোধে ‘জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতা প্রতিরোধ পক্ষ পালনে গত ২৫ নভেম্বর থেকে আগামী ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ‘সবার মাঝে ঐক্য গড়ি নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধ করি’ স্লোগানে নারী ও শিশুসহ সব জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতার বিরুদ্ধে ১৬ দিনব্যাপী প্রচারাভিযান কর্মসূচি বাস্তবায়নে করবে বেসরকারি এনজিও লাইট হাউস।

সভায় জানানো হয়, ১৬ দিনের এ কর্মসূচি জাতিসংঘ কর্তৃক স্বীকৃত। এটি ২৫ নভেম্বর শুরু হয় এবং তা ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত আন্তর্জাতিকভাবে পালিত হয় (আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবসসহ)।

১৬ দিনের প্রচারণায় নারী ও শিশুসহ সব জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতা ও অপব্যবহারের নেতিবাচক প্রভাব এবং আমাদের সামাজিক কাঠামোর জন্য যে নেতিবাচক মনোভাব রয়েছে তা পরিবর্তনের জন্য ব্যাপক জনসচেতনতা বাড়ানোর প্রতি দৃষ্টি দেওয়া হয়েছে। এ কার্যক্রমের মাধ্যমে দেশে লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা, নারী ও শিশুদের ওপর সহিংসতা, বৈষম্যমূলক মনোভাব পরিবর্তন, প্রয়োজনীয় আইন ও পরিষেবা উন্নত করার জন্য সংশ্লিষ্টদের আহ্বান জানানো হয়েছে।

অনুষ্ঠানে তৃতীয় লিঙ্গের সদস্যরা অভিযোগ করে বলেন, তাদের ওপর যে নির্যাতন হয়, তা নারী ও শিশুদের চেয়েও বেশি। তাছাড়া নারী শিশুরা প্রতিকারের জন্য বিভিন্ন জায়গাতে অভিযোগ করতে পারেন। কিন্তু তৃতীয় লিঙ্গের সদস্যরা এ ধরনের সুবিধা থেকে একেবারেই বঞ্চিত। তারা এ বিষয়ে সরকারের গুরুত্ব দেওয়ার আহ্বান জানান।

লাইট হাউজ একটি স্বেচ্ছাব্রতী ও সমাজ সেবামূলক প্রতিষ্ঠান। ১৯৮৮ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে গ্রামীণ ও শহুরে দরিদ্র, প্রান্তিক ও উচ্চ ঝুঁকির জনগোষ্ঠী, যৌন সংখ্যালঘু, তৃতীয় লিঙ্গ, যৌনকর্মী, রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী এবং অন্যান্য পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর বর্তমান অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য কার্যক্রম পরিচালনা করে।

এমএএস/আরএডি/জিকেএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।