করোনা টিকার বিজয় কিন্তু মানুষের অনীহা ও বঞ্চনা

সম্পাদকীয় ডেস্ক সম্পাদকীয় ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:০৯ এএম, ২৩ ডিসেম্বর ২০২০

ড. মো. হাসিনুর রহমান খান

খাদ্য, বাসস্থান, শিক্ষা ও চিকিৎসার মৌলিক অধিকারের মতো করোনার টিকা পাওয়া একটি মৌলিক ও মানবিক অধিকারে পরিণত হয়েছে প্রতিটি দেশ ও জাতির কাছে। প্রতিটি ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্র করোনা মহামারির ভয়াল প্রকোপে অতিষ্ঠ ও পর্যুদস্ত । ঠিক এমন একটি সময়ে করোনার কার্যকরী একাধিক টিকা আবিষ্কার বিদ্যমান মানবিক বিপর্যয় রোধে বিশ্ববাসীর কাছে একটি বিজয় হাতিয়ার হিসেবে দেখা দিয়েছে । কিছু কিছু জাতি রাষ্ট্র এই হাতিয়ার ইতিমধ্যে ব্যবহার করতে শুরু করেছে । কিন্তু অধিকাংশ রাষ্ট্র বিশেষ করে দুর্বল ও পেশি শক্তিহীন রাষ্ট্রের কাছে কবে তা আসবে সেটি নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না । মোড়ল রাষ্ট্রের অতিমাত্রায় হাতিয়ার সংরক্ষণের নীতি সাধারণ রাষ্ট্রের মানুষদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার প্রধান অন্তরায় হিসেবে দেখা দিচ্ছে । মানুষদের একটা বড় অংশ এই টিকা নিতে অনীহা প্রকাশ করা সত্বেও মোড়ল রাষ্ট্রগুলির এই অশুভ দৌরাত্ম্য তাদের মুখোশধারী মানবিকতারই পরিচয় বহন করে ।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা আর বিজ্ঞানীদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ফলে সাত হতে কুড়ি বছরের কর্মযজ্ঞ এক বছরের কম সময়ে সাফল্য লাভ করছে । দুটি টিকা ইতিমধ্যেই পূর্ণ ব্যবহারের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের এফডিসি এর অনুমোদন লাভ করেছে । ফাইজার- বায়োএনটেক টিকা এবং মর্ডানার টিকা । এছাড়াও সিনোফার্ম- বেইজিং টিকা আরব আমিরাত, বাহরাইনে ব্যবহারের জন্য অনুমোদিত হয়েছে । এর বাইরেও আরও পাঁচটি টিকা একেবারেই সীমিত পরিসরে ব্যবহার হচ্ছে । এগুলি হল- চীনের ক্যানসিনো, সিনোফার্ম- উহান ও সিনোভাক এবং রাশিয়ার ভেক্টর ইনস্টিটিউট ও গামালিয়া এর টিকা । এছাড়াও ১৮ টি টিকা ফেইজ-৩ তে রয়েছে, যেখানে টিকা গুলির কার্যকারিতা প্রমাণের জন্য ব্যাপক ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে । এছাড়াও বর্তমানে মানুষের উপর প্রয়োগ করা হচ্ছে ফেইজ ১ এবং ২ অন্তর্ভুক্ত প্রায় ৬৩ টি টিকা । তা বাদেও ৮৫ টি টিকা প্রাথমিক ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের পর্যায়ে রয়েছে যেগুলি এনিমেল এর উপর প্রয়োগ করা হচ্ছে । ট্রায়ালের অন্তর্ভুক্ত এইসব টিকার অনেকগুলি হয়তো ফাইজার বা মর্ডানার মত কার্যকরী হবে এবং সেজন্য হয়তো আমাদেরকে অনেক দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে ।

ফাইজার- বায়োএনটেকের টিকা ৯৫ % কার্যকরী, অন্যদিকে মর্ডানার টিকা ৯৫.৫% কার্যকর পাওয়া গেছে। অক্সফোর্ড- এসট্রাজেনেকার টিকা সীমিত পরিসরে ব্যবহারের জন্য অনুমোদিত না হলেও প্রাথমিক তথ্য ও উপাত্ত বিশ্লেষণ করে ৯০% কার্যকর প্রমাণিত হয়েছে । কার্যকারিতা ও চূড়ান্ত পরিমাপের উদ্দেশ্যে অতিরিক্ত তথ্য-উপাত্তের জন্য এই টিকার আনুষ্ঠানিক অনুমোদন পেতে সময় লাগছে । কেননা এই টিকাটি রাশিয়ার স্পটনিক ভি টিকার সাথে যৌথ একটি ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে যাওয়ার কথা এ মাসের শেষের দিকে । বাংলাদেশও এই টিকা পাবে অতি শীঘ্রই এমনটি বলা হচ্ছে ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট এর মাধ্যমে । তবে এটি সম্ভব হতে পারে যদি প্রাথমিক তথ্যের ফলাফলের ভিত্তিতে ভারত এই টিকাটিকে অনুমোদন দেয়, যেটির জন্য ইতিমধ্যে আবেদন করা হয়েছে । এবং বাংলাদেশেও যদি একই পথ অনুসরণ করে ।

নানান দেশ উদ্ভাবিত ও ভবিষ্যৎ উদ্ভাবিত টিকা পাওয়ার জন্য ব্যাপক দৌড়ঝাঁপ শুরু করলেও বড় একটা প্রশ্ন দেখা দিচ্ছে যে টিকা সরবরাহ শুরু হলে সব লোক টিকা নিতে আগ্রহী হবেন কিনা। এ ব্যাপারে ইতিমধ্যেই কিছু কিছু দেশ জরিপ চালিয়ে তা বুঝার চেষ্টা করেছে । কিন্তু উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশে এমনটি প্রত্যাশিত না হলেও বাংলাদেশে টিকা নিতে কত মানুষ অনাগ্রহী এ ব্যাপারে আমার জানামতে কোন জরিপ হয়নি । তবে এ ধরনের জরিপ করা দরকার কোন অনুমিত হারকে প্রমাণ করার জন্য, বিশেষ করে করোনার টিকার ক্ষেত্রে। শিশুদের টিকা দানের হারের দিক থেকে বাংলাদেশের অবিস্মরণীয় সাফল্য আছে আমরা তা জানি কিন্তু করোনার টিকার ক্ষেত্রে সেটা নাও ঘটতে পারে ।

টিকার অনাগ্রহের ব্যাপারটা অবশ্য নতুন কিছু নয় । টিকা শুরুর দিন থেকেই ধনী দেশগুলোতে এটি দেখা দেয়। মোটাদাগে এটি নির্ভর করে সামাজিক, অর্থনৈতিক, জ্ঞানভিত্তিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় ও ঐতিহাসিকভাবে সংক্রামক রোগের ক্ষেত্রে টিকার প্রতি মানুষের ধ্যান ধারণার উপর । মানুষের কিছু বদ্ধমূল ভুল ধারণা রয়েছে যেমন এম এম আর (মিজলেস, মামপ, রুবেলা) টিকার সাথে অটিজমের যোগসূত্র আছে যেটি যেকোনো টিকা নেওয়া ক্ষেত্রে অনাগ্রহের অন্যতম কারণ এখনও বিদ্যমান আছে অনেক দেশে । সামাজিক মাধ্যমে এই ধরনের ভুল তথ্য ব্যাপকভাবে ভাইরাল ও প্রচারের কারণে টিকা বিরোধী বিভিন্ন সংগঠনের অস্তিত্ব দেখা যায় ধনী দেশগুলোতে । মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক ভাবেও টিকা বিরোধী মনোভাবকে উসকে দিতে দেখা গেছে সম্প্রতি । এছাড়াও টিকার কার্যকারিতা ও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া টিকা নেওয়ার গ্রহণযোগ্যতার সরাসরি পরিমাপক হিসেবে অনেকে বিবেচনা করে টিকা নেওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেন ।

করোনার টিকা নেওয়ার ক্ষেত্রেও অনাগ্রহের পরিমাণ ধনী দেশ গুলিতে অনেক বেশি দেখা যাচ্ছে । সম্প্রতি আমেরিকার হার্ট রিসার্চ অ্যাসোসিয়েটস ২০০৫ জন প্রাপ্তবয়স্ক লোকের উপর জরিপ চালিয়ে করোনার টিকার অনাগ্রহের মাত্রা জানার চেষ্টা করেছে । সেপ্টেম্বরে চালিত এই জরিপে ৩৫ শতাংশ মানুষ অবশ্যই করোনার টিকা নিবে বলেছে, অন্যদিকে ৩৬ শতাংশ মানুষ বলেছে তারা কোন টিকাকেই বিশ্বাস করে না । আবার ৬১% মানুষ অপেক্ষা ও অন্যেরা কি করে তা দেখে সিদ্ধান্ত নেওয়ার পক্ষে । এক-তৃতীয়াংশ মানুষ টিকা না নেওয়ার পক্ষে মত দিলেও আমেরিকা এ নিয়ে বিচলিত নয়- এমনটি বলেছেন অ্যান্থনি ফাউসি যিনি একজন আমেরিকার শীর্ষস্থানীয় সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ । এর কারণ হিসেবে তিনি বলেছেন যে হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করার জন্য ৩৫% বা ৭০% মানুষকে টিকা দিলেই চলবে ।

টিকা নেওয়ার অনীহা দূর করার জন্য অনেকগুলি কার্যকর পদ্ধতি রয়েছে । যেমন মানুষের আস্থা বৃদ্ধি করা । টিকা উদ্ভাবনের প্রতিটি স্তরের স্বচ্ছতা, অতিমাত্রায় কার্যকারিতা ও ন্যূনতম প্রতিক্রিয়া সরাসরি মানুষের আস্থা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে । ফাইজার ও মর্ডানার দুটি টিকার ক্ষেত্রে উপরোক্ত সব গুণাবলী পরিলক্ষিত হয়েছে । কিন্তু দুর্ভাগ্য বাংলাদেশের মতো দেশে এই টিকা গুলি নিয়ে আসার কোন সরল পথ এখন আর খোলা নেই । তাছাড়া ফাইজারের টিকার ক্ষেত্রে না হলেও মর্ডানার টিকা সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনা অনুকূলে থাকলেও তা আমরা পাচ্ছি না । তবে অক্সফোর্ডেরও টিকার এসব গুণাবলী থাকবে এবং সহজলভ্য ও সাশ্রয়ী হওয়ার কারণে তা আমাদের দেশের জন্য অধিক মানানসই হবে এটা ধারণা করা যায় সহজেই ।

করোনার টিকার গ্রহণযোগ্যতা অবশ্য সরকার কিভাবে করোনা মহামারিকে মোকাবেলা করেছে বা কতটুকু ব্যর্থ হয়েছে, সাধারণ মানুষের মনোভাবের ওপর তা কি পরিবর্তন এনেছে, সর্বোপরি ঐ দেশের বিদ্যমান জনস্বাস্থ্যের কাঠামো কেমন ছিল বা স্বাস্থ্য সুরক্ষার প্রতি মানুষ কতটা নিবেদিত ছিল তার ওপর নির্ভর করে । শিশুদের মধ্যে টিকা দানের ক্ষেত্রে জনস্বাস্থ্যের অত্যন্ত শক্তিশালী কাঠামো বাংলাদেশে বিরাজমান থাকলেও মাস্ক না পড়া ও স্বাস্থ্য সুরক্ষার প্রতি উদাসীনতা করোনার টিকা নেওয়ার অনাগ্রহের মূল কারণ হতে পারে । আমাদের দেশে সীমিত আয়ের মানুষদের মধ্যে বিশেষ করে যারা কায়িক পরিশ্রম করেন একটা ভুল ধারণা আছে যে তারা করণা ভাইরাসে আক্রান্ত হবেন না তাদের শক্ত শারীরিক কাঠামোর কারণে । গ্রামে বসবাসরত অধিকাংশ লোকেরাও এমনটি মনে করেন, ফলে মাস্ক ও স্বাস্থ্যসুরক্ষা মেনে চলেন না। এই শ্রেণির মানুষদেরকে করোনার টিকা দিতে বেগ পেতে হবে যদি টিকার জন্য নির্ধারিত মূল্য বহন করতে হয় ।

ফলে সরকারকে বিনামূল্যে টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে বিশেষ করে গরিব প্রান্তিক ও শ্রমজীবী মানুষদের মধ্যে। টিকা নেওয়ার ব্যাপারে সচেতনতা বাড়াতে মানুষকে উদ্বুদ্ধ গ্রহণের বিভিন্ন কৌশল নিতে হবে, যেমন বিখ্যাত বিজ্ঞানী, ডাক্তার, অভিনয়শিল্পী, রাজনীতিবিদ, শিক্ষক, খেলোয়াড়, গায়ক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ইত্যাদি জনকে প্রচারমাধ্যমে সরাসরি টিকা গ্রহণ ও তার যথাযথ প্রচারণা চালাতে হবে । টিকা গ্রহণ করার ঝুঁকির উপর গুরুত্ব না দিয়ে বরং করোনার কারণে মৃত্যু ঝুঁকির ওপর গুরুত্ব দিয়ে মানুষকে সচেতন করতে হবে । আমেরিকার আরেকটি জরিপে প্রতি ১০ জনের সাতজন করোনার কারণে তাদের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বিশেষ করে শিশু ও বয়স্ক লোকদের নিয়ে ব্যাপক উদ্বেগে থাকেন । এই বাস্তব উদ্বেগ সম্পর্কে মানুষকে অবহিত করতে পারলেও টিকা গ্রহণের হার বাড়বে বলে ধারণা করা যায় । এটা কৃত্রিম টিকা বা মাস্ক পরার ক্ষেত্রেও উদ্বুদ্ধ করতে সাহায্য করবে ।

ব্লুমবার্গের সর্বশেষ খবর অনুযায়ী প্রায় 80 টি দেশ টিকা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে । কানাডা, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়া টিকা রিজার্ভের দিক থেকে শীর্ষে রয়েছে । এই দেশগুলি মাথাপিছু জনসংখ্যার কয়েক গুণ বেশি টিকা রিজার্ভের চুক্তি করেছে । মাথাপিছু টিকা রিজার্ভের দিক থেকে এর পরে রয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের ২৭ টি দেশ, চিলি, যুক্তরাষ্ট্র এবং জাপান । আর এই সমস্ত দেশের জনসংখ্যার বড় একটা অংশ টিকা নিতে অনাগ্রহী । ফলে তাদের প্রকৃত মাথাপিছু টিকা রিজার্ভের পরিমাণ আরো বেশি হবে । অন্যদিকে সামর্থ্যহীন, দুর্বল, গরিব উন্নয়নশীল দেশের করোনা যুদ্ধের সম্মুখ সারির যোদ্ধাদের জন্য প্রয়োজনীয় টিকা রিজাভ করতে পারছে না । করোনা ভাইরাস নামক রোগটি সার্বজনীন হলেও এর সম্ভাব্য মুক্তির অস্ত্রটি সার্বজনীন নয় সকলের দেশের কাছে । ফলে এটা কিছু মানুষের বিজয় কিন্তু সামগ্রিক মানবতার পরাজয় ।

লেখক : সহযোগী অধ্যাপক, ফলিত পরিসংখ্যান আই এস আর টি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও সভাপতি, আই এস আর টি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন নির্বাহী কমিটি।

এইচআর/এমকেএইচ

আমাদের দেশে সীমিত আয়ের মানুষদের মধ্যে বিশেষ করে যারা কায়িক পরিশ্রম করেন একটা ভুল ধারণা আছে যে তারা করণা ভাইরাসে আক্রান্ত হবেন না তাদের শক্ত শারীরিক কাঠামোর কারণে । গ্রামে বসবাসরত অধিকাংশ লোকেরাও এমনটি মনে করেন, ফলে মাস্ক ও স্বাস্থ্যসুরক্ষা মেনে চলেন না। এই শ্রেণির মানুষদেরকে করোনার টিকা দিতে বেগ পেতে হবে যদি টিকার জন্য নির্ধারিত মূল্য বহন করতে হয়

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]