বাংলাদেশে সুখে আছে কে? প্রশ্ন নজরুলের

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৫৯ পিএম, ০৫ জুলাই ২০১৯

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, এ সরকারের বিবেচনায় সাধারণ মানুষ নেই। কারণ, সাধারণ মানুষের ভোট তো এ সরকারের প্রয়োজন হয় না। ৩০ তারিখের ভোট ২৯ তারিখ রাতেই হয়ে যায়। তাহলে মানুষকে খুঁশি করার কি দরকার?

তিনি বলেন, যারা ফুটপাতে ঘুমায়, যারা ছোট ব্যবসা করে, ছোট চাকরি করে, যারা সাধারণ মানুষ, তাদের জন্য বরাদ্দ নেই। যাদের দিয়ে ভোট কাটা যায়, যাদের দিয়ে ভোট কেন্দ্র দখল করা যায়, যাদের দিয়ে নির্বাচনে জয়ী হওয়া যায়, তাদের জন্য বাজেটে বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মহিলা দল আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার নিঃর্শত মুক্তি, গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, আজকে যদি মায়েরা-বোনেরা কষ্টে থাকে, পেশাজীবীরা কষ্টে থাকে, হুজুররা কষ্টে থাকে, গ্রামে উপজেলায় যারা আছে, তারা যদি কষ্টে থাকে, তাহলে সুখে আছে কে বাংলাদেশে? সুখে আছে বাংলাদেশের তারা যারা হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করে বিদেশে পাচার করেছে। সুখে আছে তারা, যারা সরকারি প্রভাব কাটিয়ে প্রতিদিন লাখ কোটি টাকা উপার্জন করছে। কিন্তু বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ আজ নিঃশেষ হয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, যারা গ্যাস দিয়ে কারখানা চালায়, গ্যাসের দাম ৪৪ পার্সেন্ট বেড়ে গেছে, ব্যবসা করতে পারবে না। আর যদি গ্যাস কিনে ব্যবসা করতে হয়, উৎপাদিত পণ্যের দাম বেড়ে যাবে। সেটাও এসে আমাদের ওপর পরবে। অর্থাৎ আমরা যারা সাধারণ মানুষ, তারা প্রত্যাক্ষ ও প্ররোক্ষভাবে এ সরকারের গণবিরোধী সিদ্ধান্তের শিকার হয়ে গেছি।

স্থায়ী কমিটির এ সদস্য বলেন, মানুষ দেশের এ অবস্থার পরিবর্তন চায়। সরকারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেতৃত্ব করার জন্য আজ আমাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে দরকার। এ জন্য আন্দোলন সংগ্রাম করেই নেত্রীকে মুক্ত করতে হবে।

মানববন্ধনের সভাপতিত্ব করেন জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস।

কেএইচ/জেডএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]