আজকের জোকস : বিয়ে নাকি ভেঙে দিয়েছিস

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:৪৩ এএম, ২২ নভেম্বর ২০১৭

বিয়ে নাকি ভেঙে দিয়েছিস
বন্ধু : দোস্ত, যে মেয়েটার সঙ্গে তোর বিয়ে হওয়ার কথা ছিলো; তাকে নাকি বিয়ে করবি না? বিয়ে নাকি ভেঙে দিয়েছিস?
পল্টু : হ্যাঁ! কেন?
বন্ধু : মেয়ে দেখতে শুনতে খারাপ?
পল্টু : নাহ! মেয়ে হুর-পরী লেভেলের সুন্দরী।
বন্ধু : তাহলে বিয়ে করবি না কেন? মেয়ের চরিত্র খারাপ?
পল্টু : নাহ! মেয়ের চরিত্র খুবই ভালো। মেয়ে কখনো প্রেম-ট্রেম করে নাই।
বন্ধু : তাহলে সমস্যাটা কী? মেয়ে কি মুডি টাইপ? কথাবার্তা বলে না এমন? অসামাজিক টাইপের?
পল্টু : আরে না। মেয়ে মুডি না। কথাবার্তা সুন্দর করে বলে।
বন্ধু : তাহলে সমস্যাটা কী? মেয়ে কি অতিরিক্ত মডার্ন? ছোটখাটো জামা-কাপড় পরে ঘুরে বেড়ায়?
পল্টু : কী যে বলিস! মেয়ে অতিরিক্ত মডার্ন না। সবকিছু ভালো!
বন্ধু : প্লিজ, বলবি তাহলে কেনো বিয়ে করলি না?
পল্টু : আরে দোস্ত, ওই সব কোনো সমস্যা না, সমস্যা হলো- মেয়ে স্টার জলসা দেখে!

****

ভিক্ষুকের নম্বরে ফ্লেক্সিলোড
বাদল কলেজে যাওয়ার সময় রাস্তায় এক ঘুমন্ত ভিক্ষুককে দেখতে পেলো। ভিক্ষুকের সামনে একটি সাইনবোর্ড দেখে সে থমকে গেলো। তাতে লেখা, ‘দয়াকরে পয়সা ফেলে শব্দ করে ঘুমের ডিস্টার্ব করবেন না, কাগজের নোট ফেলুন’। এটা দেখে পকেটে হাত দিয়ে বাদল একটি একশ’ টাকার নোট পেলো। কিন্তু পুরোটা তো আর ভিক্ষুককে দেওয়া যায় না। তাই সে ভিক্ষুককে ডেকে তুললো টাকাটা ভাংতি করাতে।

ভিক্ষুকটি উঠে খুব বিরক্তি সহকারে পাশের আরেকটি সাইনবোর্ড বাদলকে দেখালো। যাতে লেখা, ‘১০০ ও ৫০০ টাকার ভাংতি নাই। দয়াকরে ভাংতি দিন’। উপায় না দেখে বাদল বললো-
বাদল : তাহলে আমি ভাংতি করে নিয়ে আসি।
ভিক্ষুক : ভাই, এতো কষ্ট না কইরা আমার নম্বর নিয়া যান, ১০ ট্যাকা ফ্লেক্সি কইরা দিয়েন।

****

ছাগলের ডিম দিয়ে ভাত খাইছি
শিক্ষক : মনে করো, একটি আম গাছে ১৬টি কলা আছে। সেখান থেকে ১৩টি জাম্বুরা পেড়ে নেওয়া হলো। গাছে কয়টা লেবু বাকি থাকবে?
ছাত্র : ৯টি হাতি।
শিক্ষক : বাহ! তুমি কিভাবে জানলে?
ছাত্র : কারণ আমি দুপুরে ছাগলের ডিম দিয়ে ভাত খাইছি!

এসইউ/আরআইপি