৭ দফা দাবিতে সাঁওতালদের অবস্থান কর্মসূচি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি গাইবান্ধা
প্রকাশিত: ০৭:০৩ পিএম, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭
৭ দফা দাবিতে সাঁওতালদের অবস্থান কর্মসূচি

সাঁওতাল হত্যা, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, ভাঙচুর, নির্যাতনের বিচার ও ক্ষতিপূরণসহ সাত দফা দাবিতে গাইবান্ধা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি ও স্মারকলিপি প্রদান করেছে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাঁওতালরা।

বুধবার দুপুরে সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটি, আদিবাসী বাঙালি সংহতি পরিষদ, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ, বাংলাদেশ আদিবাসী ইউনিয়ন ও জনউদ্যোগের আয়োজনে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে এই কর্মসূচি পালন করে সাঁওতালরা।

অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রবীন্দ্রনাথ সরেন, আদিবাসী বাঙালি সংহতি পরিষদের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম বাবু, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন জনউদ্যেগের সদস্য সচিব প্রবীর চক্রবর্তী, জেলা সিপিবির সহ-সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোটেক মুরাদ জামান রব্বানী ও জেলা যুব ইউনিয়নের সভাপতি প্রতিভা সরকার ববি প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ১০ মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো সাঁওতালদের পুনর্বাসনের জন্য কোনো ব্যবস্থা করা হয়নি। এখনও অনেকে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে। গত বছরের ৬ নভেম্বর চিনিকলের জমি থেকে উচ্ছেদের ঘটনায় আমাদের তিনজন সাঁওতাল নিহত হলেও আজও আসামিদের চিহ্নিত করে গ্রেফতার করা হয়নি।

পরে জেলা প্রশাসক গৌতম চন্দ্র পাল সমাবেশস্থলে এলে তার হাতে স্মারকলিপি তুলে দেন সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির সভাপতি ফিলিমন বাস্কে ও সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান আলী। এ সময় জেলা প্রশাসক ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তসহ বিচারের আশ্বাস দেন সাঁওতালদের।

উল্লেখ্য, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কাটাবাড়ী ও সাপমারা ইউনিয়নের সাঁওতাল ও বাঙালিদের কাছ থেকে ১৯৬২ সালের ৭ জুলাই ১৮৪২ দশমিক ৩০ একর জমি কিনে নেয় রংপুর চিনিকল কর্তৃপক্ষ। পরে শর্তভঙ্গের অভিযোগ তুলে বাপ-দাদার জমি ফেরতের দাবি করে তারা বিভিন্ন আন্দোলন কর্মসূচি পালন করে।

দাবি পূরণ না হওয়ায় গত বছরের ১ জুলাই সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম এলাকায় চিনিকলের সেসব জায়গা দখল করে ঘর তৈরি করে সাঁওতালরা।

পরে ৬ নভেম্বর চিনিকল কর্তৃপক্ষ আখ কাটতে গেলে সাঁওতাল-পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় তিনজন সাঁওতাল মারা যায় ও তীরবিদ্ধ হয়ে আহত হয় পুলিশসহ প্রায় ২০ জন। ঘটনার পর চিনিকল ও সাঁওতালদের পক্ষ থেকে গোবিন্দগঞ্জ থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা করা হয়। এসব মামলা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।

রওশন আলম পাপুল/এএম/জেআইএম