ঝালমুড়ি খেতে যাওয়ায় মেরে হাত ফাটালেন শিক্ষিকা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি নওগাঁ
প্রকাশিত: ০৪:৪২ এএম, ১৩ অক্টোবর ২০১৭

নওগাঁর বদলগাছীতে স্কুল শিক্ষিকার মারে ১০ শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। আহতরা সবাই ৫ম শ্রেণির মডেল টেস্ট পরীক্ষার্থী। এদের মধ্যে সাতজন চলতি মডেল টেস্ট পরীক্ষায় অংশ নিতে পারলেও বাকি তিনজন পারেনি।

গত বুধবার উপজেলার মথুরাপুর ইউনিয়নের গয়েশপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনায় শিক্ষার্থী নুসরাত জাহানের বাবা ছারোয়ার জাহান চৌধুরী বৃহস্পতিবার বদলগাছী উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ঘটনার দিন ক্লাসের ফাঁকে ৫ম শ্রেণির ১০-১২ জন শিক্ষার্থী মিলে স্কুলের বাইরে ঝালমুড়ি খেতে যায়। এই অপরাধে স্কুলের সহকারী শিক্ষিকা নাদিরা আক্তার ১০ জনকে ডেকে নিয়ে তাদের ডান হাতের তালুতে বেত দিয়ে প্রহার করেন। এতে ১০ জন শিক্ষার্থী আহত হয়। এদের মধ্যে নুসরাত জাহান, মোশারাত মালিহা চৌধুরী ও সুমাইয়া মাহমুদা বাড়ি গিয়ে বিষয়টি বাবা-মাকে জানায়।

ওইদিন গ্রাম্য ডাক্তার দ্বারা তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হলেও তিন শিক্ষার্থী সুস্থ না হওয়ায় বৃহস্পতিবার মডেল টেস্ট পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি। পরে অভিভাবক ছারোয়ার জাহান চৌধুরী উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেন। ওই তিন শিক্ষার্থীকে বদলগাছী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে চিকিৎসা দেয়া হয়।

অভিযোগের বিষয়ে শিক্ষিকা নাদিরা আকতার বলেন, এটি একটি ভুল বোঝাবুঝির বিষয়। ঘটনাটি পুরোপুরি সঠিক নয়। যা ঘটে তার চেয়ে বেশি রটে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরী বলেন, তিন শিক্ষার্থীর হাতের তালু ফোলা ও জখম রয়েছে। মোশারাত মালিহা চৌধুরীর ডান হাতের তালুসহ বৃদ্ধাঙ্গুলীর গোড়ায় সামান্য ফ্যাকচারও হয়েছে। হাতে ব্যান্ডেস করে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়ি পাঠানো হয়েছে।

বদলগাছী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. ছানাউল হাবিব বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগের প্রেক্ষিতে শিক্ষিকা নাদিরা আক্তারকে বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠানো হয়। আহত তিন শিক্ষার্থীকে বিশেষ ব্যবস্থায় পরবর্তীতে পরীক্ষা নেয়া হবে। আর ঘটনাটি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আব্বাস আলী/এফএ/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :