‘মিয়ানমারে স্বাধীনভাবে বসবাসের অধিকার রয়েছে রোহিঙ্গাদের’

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার
প্রকাশিত: ১০:১৪ এএম, ২০ ডিসেম্বর ২০১৭

নিজ দেশে রোহিঙ্গারা পাশবিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে উল্লেখ করে তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদিরিম বলেছেন, রোহিঙ্গারাও মানুষ। মিয়ানমারে স্বাধীনভাবে বসবাসের অধিকার রয়েছে রোহিঙ্গাদের। কিন্তু জাতিগত নিধনের শিকার হয়ে তারা আজ ভিনদেশে আশ্রিত।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফেরত এবং নিরাপদ আবাসের ব্যবস্থা করা জাতিসংঘের মূল দায়িত্ব। সেই সঙ্গে রোহিঙ্গাদের নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করতে বিশ্ব মহলের উচিত একযোগে কাজ করা।

কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে গণমাধ্যমকে এসব কথা বলেন তিনি। বুধবার দুপুরে বিশেষ বিমানে কক্সবাজার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদিরিম।

ওখান থেকে তাকে সড়কপথে সরাসরি উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে পৌঁছে তিনি মেডিকেল ক্যাম্পের উদ্বোধন এবং রোহিঙ্গাদের চিকিৎসার সুবিধার্থে দু’টি অ্যাম্বুলেন্স হস্তান্তর করেন।

তিনি ক্যাম্প পরিদর্শনকালে আশ্রিত নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলেন। বালুখালী থেকে তিনি কুতুপালং ক্যাম্পে গিয়ে রোহিঙ্গাদের মাঝে খাবার বিতরণ করেন।

Turky-PM-News--(2)

এ সময় তার সঙ্গে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, কক্সবাজারের জেলা প্রশাসাক মো. আলী হোসেন, পুলিশ সুপার ড. একেএম ইকবাল হোসেনসহ তুরস্কের দূতাবাসের কর্মকর্তা এবং বিভিন্ন স্তরের দেশি-বিদেশি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, তুর্কি প্রধানমন্ত্রীর উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনকে কেন্দ্র করে কক্সবাজারশহর থেকে উখিয়াজুড়ে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়।

সকাল থেকে মেরিন ড্রাইভ রোডসহ উখিয়ার কোটবাজার-জালিয়াপালং সড়ক হয়ে পালংখালী পর্যন্ত অংশে যান চলাচল বন্ধ করে দেয় প্রশাসন। সঙ্গে বন্ধ করে দেয়া হয় সড়কের উভয় পাশের দোকানপাট। একই অবস্থা ছিল ক্যাম্প এলাকাতেও। তিন স্তরের নিরাপত্তা বলয় তৈরি করতে কাজ করেছে পুলিশ, র্যাব ও গোয়েন্দা বিভাগের লোকজন।

বেলা পৌনে তিনটার দিকে তুর্কি প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজার থেকে তুরস্কের উদ্দেশ্যে রওনা দেবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে তুর্কি প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদিরিম দু’দিনের সরকারি সফরে সোমবার রাতে ঢাকায় পৌঁছেন।

মঙ্গলবার সকালে তিনি সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এ সময় তিনি পরিদর্শক বইয়ে স্বাক্ষর করেন এবং স্মারক হিসেবে একটি চারাগাছ রোপণ করেন।

সায়ীদ আলমগীর/এএম/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :