যাত্রীর লাগেজ নিয়ে কাস্টমস ও পুলিশের মারামারি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি বেনাপোল
প্রকাশিত: ০৩:৩৬ পিএম, ২০ ডিসেম্বর ২০১৭
ফাইল ছবি

বেনাপোল ইমিগ্রেশনে এক যাত্রীর লাগেজ আটকের ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও কাস্টমসের সদস্যদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় কাস্টমসের ৪ কর্মকর্তাকে পিটিয়ে আহত করা হয়।

বুধবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বিকেল সাড়ে ৫টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত দু’দেশের মধ্যে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য ও পাসপোর্টযাত্রী যাতায়াত বন্ধ ছিল।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিকেলে গোপালগঞ্জ সদরের সৌরভ আলী খান ভারত থেকে বিপুল পরিমাণ মালামাল নিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করার সময় পুলিশ ও কাস্টমসের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ইমিগ্রেশন পুলিশ এবং ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস পার করে দেয়ার জন্য ওই যাত্রীর সঙ্গে চুক্তি করেন। কাস্টমস তল্লাশি কেন্দ্রে ওই লাগেজ আসলে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ ল্যাগেজটি আটকে দেয়।

এ সময় পুলিশ সমঝোতার কথা বললে কাস্টমস অফিসাররা ১২ হাজার টাকা দাবি করেন। পুলিশ ১২ হাজার টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় পুলিশ ও কাস্টমসের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে কাস্টমসের ৪ অফিসারকে পিটিয়ে আহত করে পুলিশ।

ইমিগ্রেশনের অফিসার ইনচার্জ ওমর শরীফ জানান, ভারত ফেরত পাসপোর্টযাত্রী সৌরভ আলী খানের লাগেজে অতিরিক্ত মালামাল থাকায় কাস্টমসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তারা ১২ হাজার টাকা দাবি করেন। এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বিষয়টি জানতে চাইলে কাস্টমস সদস্য ও পুলিশের মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। কথাটাকাটাটির একপর্যায়ে ধাক্কাধাক্কি শুরু হয়।

কাস্টমস এক্সিকিউটিভ অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি রাজস্ব কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বাঙ্গালী বলেন, ইমিগ্রেশন পুলিশ এক পাসপোর্টযাত্রীর ল্যাগেজ জোর করে কাস্টমস তল্লাশি কেন্দ্র পার করার চেষ্টা করলে সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তারা বাধা দেয়।

এতে তারা উত্তেজিত হয়ে সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা ফরহাদ ও রাশেদ আলী এবং রাজস্ব কর্মকর্তা শুভাশিষ মোদককে পিটিয়ে আহত করে। খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে এসে পুলিশের কাছে জানতে চাইলে পুলিশ আমাকেও মারধর করে।

এএম/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :