পরীক্ষার হলে সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি মাদারীপুর
প্রকাশিত: ০৯:৩১ পিএম, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ | আপডেট: ০৯:৩৯ পিএম, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

এবারের এসএসসি পরীক্ষায় মাদারীপুরের আলহাজ আমিন উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এক বেঞ্চে একই স্কুলের দুইজন শিক্ষার্থীকে বসিয়ে পরীক্ষা নেয়া হয়েছে।

সেই সঙ্গে এ কেন্দ্রে সাংবাদিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবিদুর রহমান ও প্রধান শিক্ষক আকমল হোসেন পিলু।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পরীক্ষায় অনিয়মের বিষয়টি জানতে পেরে আলহাজ আমিন উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে সাংবাদিকরা গেলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নিষেধাজ্ঞার কথা বলে স্কুলে প্রবেশে বাধা দেন প্রধান শিক্ষক আকমল হোসেন পিলু।

পরে জেলা প্রশাসকের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলে স্কুলে প্রবেশ করে সাংবাদিকরা। তারা সংবাদ সংগ্রহ করে চলে যায়। পরদিন পত্রিকায় সেই সংবাদ প্রকাশিত হয়।

পরীক্ষার দ্বিতীয় দিনে অভিযোগ আসে পরীক্ষার একটি কক্ষের সামনের বেঞ্চ সরিয়ে পেছনে নিয়েছে স্কুল শিক্ষক। এছাড়া প্রতিটি বেঞ্চের দুই পাশে দুই স্কুলের শিক্ষার্থী রেখে আসন বণ্টন করা হলেও কয়েকটি বেঞ্চে একই স্কুলের দুই শিক্ষার্থী রেখে পরীক্ষা নিচ্ছে কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ।

বিষয়টি দেখতে সাংবাদিকরা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে চাইলে আবারও বাধার সম্মুখীন হন। এবার প্রধান শিক্ষক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবিদুর রহমানের মোবাইল নম্বর লিখে তার অনুমতি নিতে বলেন।

ম্যাজিস্ট্রেট আবিদুর রহমানকে ফোন করলে তিনি সাংবাদিকদের কেন্দ্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার কথা বলেন। পরে জেলা প্রশাসকের সঙ্গে যোগাযোগ করে কেন্দ্রে প্রবেশ করে বেঞ্চ পরিবর্তনের সত্যতা মিলে।

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক আকমল হোসেন পিলু জানান, পরীক্ষা নিয়মানুযায়ী হচ্ছে। বেঞ্চ পরিবর্তনের বিষয়টি আমাকে না জানিয়ে করা হয়েছে। কেন বা কীভাবে এটা করা হয়েছে আমি জানি না। একটি স্কুলের শিক্ষার্থী বেশি হওয়ায় একই স্কুলের দুইজনকে এক বেঞ্চে বসানো হয়েছে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবিদুর রহমান বলেন, পরীক্ষার্থীদের সুন্দরভাবে পরীক্ষা নেয়ার জন্য সাংবাদিকদের পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছি। সাংবাদিকদের চ্যালেঞ্জ করে অনিয়মের প্রমাণ চেয়েছেন তিনি।

জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, বেঞ্চ পরিবর্তন বা এক বেঞ্চে এক স্কুলের শিক্ষার্থীদের বসানো হলে সেটা অনিয়ম। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এছাড়া জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা ছিল সাংবাদিকরা কেন্দ্রে প্রবেশ করে সংবাদ সংগ্রহ করতে পারবে। কিন্তু অহেতুক কোনো সাংবাদিক কেন্দ্রে ঘোরাঘুরি করে যাতে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষায় ব্যাঘাত ঘটাতে না পারে তার দিকে নজর রাখতে বলা হয়েছে। কোনো ম্যাজিস্ট্রেট সাংবাদিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করলে সেটা ঠিক করেনি। বিষয়টি আমরা দেখবো।

এ কে এম নাসিরুল হক/এএম/আরআইপি