পারিবারিক কলহে দুই সন্তানের জননীর আত্মহত্যা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার
প্রকাশিত: ০৪:৪১ এএম, ১৩ জুলাই ২০১৮ | আপডেট: ০৫:৩৮ এএম, ১৩ জুলাই ২০১৮

স্বামীর ঋণের টাকা পরিশোধে ব্যর্থতার যন্ত্রণা আর পারিবারিক কলহের জেরে হালিমা বেগম (২৪) নামে এক গৃহবধূ গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

হালিমা বেগম টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের পশ্চিম পানখালীর রবিউল আলমের স্ত্রী। দাম্পত্য জীবনে তাদের সম্রাট (৫) ও রোমেনা (২ বছর ৬ মাস) নামে দুই সন্তান রয়েছে।

খবর পেয়ে হোয়াইকং পুলিশ ফাঁড়ির আইসি বোরহান উদ্দিন ঘটনাস্থল থেকে বেলা ৩টার দিকে হালিমার মরদেহ উদ্ধার করেন।

হ্নীলা ইউপি চেয়ারম্যান এইচ কে আনোয়ার (সিআইপি) এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন।

পারিবারিক সূত্র জানায়, রবিউল আলমকে তার এক ভায়রা জিম্মায় সৌদি আরব নেন। সেখানকার পরিস্থিতির কারণে দেশে ফিরে আসতে বাধ্য হয়। সৌদি গমনের ব্যাপারে পাওনাদার স্বজনরা টাকার জন্য বারবার চাপ দিয়ে আসছিলেন। টাকা শোধ করতে না পারায় কথা কাটাকাটির জের ধরে মৃত্যুর পর চেহারা না দেখানোর কথা বলেন কয়েকজন নিকটাত্মীয়। এতে চরম অভিমানী হয়ে ওঠেন হালিমা।

অপরদিকে সংসারে শ্বশুর-শ্বাশুড়ি, স্বামী-সন্তান, দেবর-ননদ সবাই থাকলেও অভাবের তাড়নায় তাদের মাঝে প্রায়ই কলহ লেগে থাকতো। সবমিলিয়ে হতাশায় ভোগা হালিমা বৃহস্পতিবার দুপুরে বাড়ির লোকজন বাইরে থাকার সুযোগে রশিতে ঝুলে আত্মহনন করেন।

টেকনাফ মডেল থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) রনজিত কুমার বড়ুয়া জানান, স্বজনদের মাঝে আর্থিক লেনদেন নিয়ে মনোমালিন্য এবং পারিবারিক কলহের জেরে গৃহবধূ হালিমা আত্মহত্যা করেছে বলে জানিয়েছে পারিবারিক সূত্র। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

এদিকে, স্ত্রীর আত্মহননে দিশেহারা হয়ে বারবার জ্ঞান হারাচ্ছেন স্বামী রবিউল আলম।

সায়ীদ আলমগীর/বিএ