নলডাঙ্গায় ভিজিএফের চাল কম দেয়ায় বিতরণ স্থগিত

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি নাটোর
প্রকাশিত: ০৫:০৮ পিএম, ১২ আগস্ট ২০১৮

ভিজিএফের চাল ওজনে কম দেয়ায় নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার বিপ্রবেলঘরিয়া ইউনিয়নের চাল বিতরণ স্থগিত করা হয়েছে। এ ছাড়া ৪০৬ বস্তা চাল জব্দ করে গোডাউন সিলগালা করে দেন উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা আয়েশা সিদ্দিকা।

রোববার দুপুরে বিপ্রবেলঘরিয়া ইউনিয়ন পরিষদে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়দের অভিযোগ, হতদরিদ্রদের মাঝে ভিজিএফ চাল বিতরণের সময় জন প্রতি ৪-৫ কেজি চাল কম দেয়া হচ্ছিল।

স্থানীয় লোকজন ও প্রকল্প কর্মকর্তা সূত্র জানায়, কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে সরকারের খাদ্য সহায়তা কর্মসূচির আওয়াতায় দরিদ্র, হতদরিদ্র ও দুস্থ পরিবারের মাঝে উপজেলার বিপ্রবেলঘরিয়া ইউনিয়নে ১ হাজার ৫১৭ জনের নামে ভিজিএফ কার্ড দেয়া হয়। ওই কার্ডের বিপরীতে জন প্রতি ২০ কেজি চাল করে মোট ৩০ দমমিক ৩৪০ মে. টন ভিজিএফ চাল বরাদ্দ দেয় জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিভাগ। রোববার বিপ্রবেলঘরিয়া ইউনিয়নে ভিজিএফ ওই চাল বিতরণ শুরু করেন চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন। তবে বিতরণে সময় জন প্রতি ৪-৫ কেজি চাল ওজনে কম দেয়ায় স্থানীয়রা এর প্রতিবাদ করেন। এতে কোনো কাজ না হওয়ায় স্থানীয়রা উপজেলা প্রসাশনকে জানায়। পরে নলডাঙ্গা ও নাটোর সদরের উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা আয়শা সিদ্দিকী ঘটনাস্থলে গিয়ে চাল বিতরণে অনিয়মের সত্যতা পেয়ে ৪০৬ বস্তা চাল জব্দ করে বিতরণ বন্ধ করে গোডাউন সিলগালা করেন।

অভিযোগের বিষয়ে বিপ্রবেলঘরিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন জানান, নাটোর ত্রাণ ও পুনর্বাসন গোডাউন থেকে ১ হাজার ৫১৭ জনের নামে ভিজিএফ যে চাল বরাদ্দ দিয়েছে। প্রতি বস্তার ওজন ছিল ৩০ কেজি। সেই ৩০ কেজির বস্তা খুলে ২০ কেজি করে বালতি দিয়ে ওজন দিচ্ছিলেন পরিষদের লোকজন। এতে ওজনে কারো ভাগে বেশি ও কারো ভাগে কিছুটা কম যেতেই পারে।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা আয়শা সিদ্দিকী জানান, স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে বিপ্রবেলঘরিয়া ইউনিয়নে এসে ভুক্তভোগী কয়েকজনের চাল ওজন করে কারো ১৪ কারো ১৫ ও কারো ১৬ কেজি চাল পাওয়া যায়। এ অবস্থায় জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে চাল বিতরণ স্থগিত করা হয়। পরবর্তীতে কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে এ চাল বিতরণ করা হবে।

তবে এ বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হবে কিনা সে বিষয়ে সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

রেজাউল করিম রেজা/আরএ/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :