বালু উত্তোলনের ছবি তোলায় সাংবাদিক রক্তাক্ত

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নড়াইল
প্রকাশিত: ০৫:৫৪ পিএম, ১২ আগস্ট ২০১৮

পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে শেখ ফসিয়ার রহমান নামে এক সাংবাদিককে কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করেছে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকারীরা।

নবগঙ্গা নদীর ভয়াবহ ভাঙনের কাছে ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলনসহ নদী ভাঙনের দৃশ্যধারণ করায় তার উপর হামলে পড়ে সন্ত্রাসীরা। আহত ওই সাংবাদিককে কালিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রোববার দুপুরে নড়াইলের কালিয়া উপজেলার পৌর শহরের বড় কালিয়া নামকস্থানে হামলার এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় স্থানীয় সাংবাদিকদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

আহত সাংবাদিক ও কালিয়া পৌরসভার কাউন্সিলর ফসিয়ার রহমান জানান, উপজেলার প্রধান নদী নবগঙ্গার তীরবর্তী শুক্তগ্রাম নামকস্থানে গত ১৫ দিনের ভাঙনে কুমার পল্লীসহ প্রায় শতাধিক ঘরবাড়ি, ফসলি জমি ও গাছ-পালা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। অব্যাহত ভাঙনে বর্তমানে শুক্তগ্রাম আশ্রায়ন প্রকল্পটিও ভাঙন কবলিত হয়ে পড়েছে। যে কোনো সময় নদী গর্ভে বিলিন হওয়ার আশঙ্কায় স্থানীয় প্রশাসন সেখানকার বাসিন্দাদের অন্যত্র সরিয়ে নিতে শুরু করেছেন। কিন্তু ওই দিন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শুক্তগ্রাম নদী ভাঙনের কাছেই একটি মহল ওই নদীতে ড্রেজার বসিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে জানতে পেরে তিনি তথ্য সংগ্রহ করাসহ ছবি তুলতে ঘটনাস্থলে যান।

ঘটনাস্থলের তথ্য সংগ্রহ ও ছবি তুলে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কালিয়া পৌর শহরে ফেরার পথে বড়কালিয়া স্লুইস গেটের পাশে পৌঁছালে আগে থেকেই ওঁৎ পেতে থাকা বালু উত্তোলনকারী হাড়িডাঙ্গা গ্রামের তারিক, বালা, মেশকাত ও বড়কালিয়া গ্রামের অনির্বান ঘোষ ওরফে ছনোর নেতৃত্বে ১০/১২ জনের একদল সন্ত্রাসী ওই সাংবাদিকের মোটরসাইকেল থামিয়ে বালু উত্তোলনের ছবি তোলার কারণ জানতে চাওয়াসহ তার ক্যামেরাটি কেড়ে নেয় এবং তাকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে মারাত্মক আহত করেছে। এ ঘটনায় স্থানীয় সাংবাদিকদের মধ্যে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

কালিয়া থানা পুলিশের ওসি শেখ শমসের আলী জানান, তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। কেউ আটক হয়নি। অভিযোগ পেলে মামলা দায়েরের পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন।

হাফিজুল নিলু/এমএএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :