যৌন শক্তির জন্য পারদ মেশানো মাংস খেয়ে ২ যুবকের মৃত্যু

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)
প্রকাশিত: ০৭:৪৭ পিএম, ০৩ নভেম্বর ২০১৮

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে যৌন শক্তি বৃদ্ধির জন্য পারদ মেশানো কবুতরের মাংস খেয়ে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়া আরও একজন গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। শনিবার ভোরে উপজেলার গোড়াই ইউনিয়নের রাজাবাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

মৃতরা হলেন, রংপুর কোতোয়ালী থানার পুটিমারী গ্রামের হিরু মিয়ার ছেলে সুলতান উদ্দিন (২৫) ও একই জেলার কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছা গ্রামের আব্দুস ছামাদ মিয়ার ছেলে আনোয়ারুল ইসলাম (২৫)। এ ঘটনায় গুরুতর অসুস্থ গোলাম রাব্বানী (২৫) অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তিনি নওগাঁর মান্দা উপজেলার চরগোপাল গ্রামের বাসিন্দা। রাব্বানী গোড়াই এলাকার একটি মুদির দোকানে কর্মচারী।

মৃতদের মধ্যে সুলতান উদ্দিন গোড়াই এলাকায় দর্জি ও আনোয়ারুল ইসলাম মির্জাপুরের সোহাগপাড়া এলাকায় হোটেলে কাজ করতো বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। তারা রাজাবাড়ি এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, যৌন উত্তেজনা বাড়াতে ওই তিন যুবক শুক্রবার রাতে পারদ মেশানো কবুতরের মাংস খান। পরে তারা অসুস্থ হয়ে পড়লে তাদেরকে মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার সকালে সুলতান ও আনোয়ারুলের মৃত্যু হয়। এছাড়া রাব্বানীর অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিকেলে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়েছে বলে কুমুদিনী হাসপাতালের সিনিয়র অফিসার অনিমেশ ভৌমিক লিটন জানিয়েছেন।

যৌন শক্তি বৃদ্ধিতে পারদ মেশানো কবুতরের মাংস খেয়ে তারা তিনজনই অসুস্থ হয় বলে চিকিৎসাধীন রাব্বানী পুলিশ ও হাসপাতালের চিকিৎসকদের জানিয়েছেন।

মির্জাপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আশিকুজ্জামান বলেন, যৌন শক্তি বৃদ্ধিতে পারদ মেশানো কবুতরের মাংস খেয়ে দুইজন মারা গেছেন। একজন অসুস্থ হয়ে হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন। এ ঘটনায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে। মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এস এম এরশাদ/এমএএস/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]